• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ১০:৩৬ পূর্বাহ্ন |

কম সেচেও ফলন বাড়ানো সম্ভব

Riceসিসি ডেস্ক: বোরো ধান উৎপাদনে সেচের জন্য ব্যাপকভাবে পানি ব্যবহার হয়ে থাকে। প্রচলিত পদ্ধতিতে কৃষকরা বোরো ধানখেতে কিছু না কিছু দাঁড়ানো পানি রেখে থাকেন। ফলে ধান উত্পাদন করতে প্রচুর পানির প্রয়োজন হয়। অঞ্চল বা মাটি ভেদে ১ কেজি ধান উত্পাদন করতে কৃষকদের ৩ হাজার থেকে ৫ হাজার লিটার পানি ব্যবহার করতে হয়। যা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক বেশি বলে গবেষণায় পাওয়া গেছে।
আন্তর্জাতিক ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট ও বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের গবেষণায় দেখা গেছে, ভালো ফলন পাওয়ার জন্য ধান ক্ষেতে সব সময় দাঁড়ানো পানি রাখার প্রয়োজন নেই। দেশে-বিদেশে বিজ্ঞানীরা ধান উত্পাদনের জন্য অনেক পানি সাশ্রয়ী সেচ পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন। যা ব্যবহার করে কম পানি দিয়ে ধানের চাহিদামত ফলন পাওয়া যায়। এমন একটি পদ্ধতি হলো অল্টারনেট ওয়েটিং অ্যান্ড ড্রায়িং বা পর্যায়ক্রমে পরিমিতভাবে জমি ভেজানো ও শুকানো সেচ পদ্ধতি। এ পদ্ধতিতে সেচ প্রদান করলে সনাতন পদ্ধতির চেয়ে প্রায় ২০/২৫ ভাগ পানি সাশ্রয় করা যায়।
এ পদ্ধতিটি মাঠ পর্যায়ে ব্যবহার কর সহজ। বাঁচানো পানি দিয়ে অধিক জমি চাষ করা যেতে পারে। অল্টারনেট ওয়েটিং অ্যান্ড ড্রায়িং বা (এ ডাব্লিউডি) সেচ পদ্ধতি হলো ধান ক্ষেতে প্রয়োজনমত সেচ দেয়া। মাটিতে পর্যাপ্ত রস বা পানি থাকলে ধান গাছ শিকড়ের মাধ্যমে তার প্রয়োজনীয় পানি গ্রহণ করতে পারে। ধান ক্ষেতে একটি ছিদ্রযুক্ত প্লাস্টিক বা বাঁশের পাইপ বসিয়ে মাটির ভেতরে পানির স্তর পর্যবেক্ষণ করে সেচ দেয়াই হলো এ পদ্ধতির অন্যতম বৈশিষ্ট্য।
পর্যবেক্ষণ পাইপের মাধ্যমে সেচ প্রদানের জন্য একটি প্লাস্টিক বা বাঁশের পাইপ লাগবে।
পাইপের দৈর্ঘ্য হবে ৩০ সেন্টিমিটার ও চওড়া হবে ৮ থেকে ১০ সেন্টিমিটার। পাইপটির উপরের ১০ সেন্টিমিটারের মধ্যে কোনো ছিদ্র করা যাবে না। ছিদ্র করতে হবে নিচের ২০ সেন্টিমিটারের মধ্যে। পাইপটির ৫ সেন্টিমিটার পরপর ৩ সুতা চওড়া ড্রিল মেশিনের আল দিয়ে ছিদ্র করতে হবে। কৃষক নিজেই বা স্থানীয় ওয়ার্কশপে গিয়ে ছিদ্র করে আনতে পারেন।
পাইপটি এমনভাবে ধান ক্ষেতে বসাতে হবে যেন এর উপরের ছিদ্রহীন ১০ সেন্টিমিটার মাটির উপরে থাকে। যাতে সেচের পানির সঙ্গে খড়কুটো বা অন্যান্য আবর্জনা পাইপের মধ্যে প্রবেশ করতে না পারে। নিচের ছিদ্রযুক্ত ২০ সেন্টিমিটার মাটির নিচে থাকবে। যাতে মাটির ভেতরের পানি ছিদ্র দিয়ে পাইপে সহজে প্রবেশ করতে বা বেরিয়ে আসতে পারে।
ধান রোপণের আগে জমি ভালোভাবে সমতল করে নিতে হবে। তারপর একই সমতলে অবস্থিত এক একর পরিমাণ ধান ক্ষেতের ৩/৪ জায়গায় গর্ত করে প্লাস্টিক বা বাঁশের পাইপ খাড়াভাবে বসাতে হবে।
ধানের চারা রোপণের ১০ থেকে ১৫ দিন পর্যন্ত জমিতে ২/৪ সেন্টিমিটার দাঁড়ানো পানি রাখতে হবে। তারপর থেকে এডব্লিউডি পদ্ধতিটি কার্যকর হবে। এভাবে প্রথমদিকে জমিতে দাঁড়ানো পানি রাখলে জমিতে আগাছা কম হবে। এরপরও এডব্লিউডি পদ্ধতিতে সেচ প্রদান করলে ধান ক্ষেতে কখনও কখনও আগাছার উপদ্রব বেশি হতে পারে। তাই আগাছা দমনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।
সেচ সাশ্রয়ী এ পদ্ধতি চালুর পর প্রত্যেকবার সেচ দেয়ার সময় এমন পরিমাণ পানি দিতে হবে যাতে জমিতে ৫ সেন্টিমিটার গভীরতায় পানি থাকে। পানি কমতে কমতে পানির স্তর যখন পর্যবেক্ষণ পাইপের ভেতর ২০ সেন্টিমিটার নিচে নেমে যাবে তখন আবার সেচ দিতে হবে। এ অবস্থায় মাটি ভেদে আসতে ৫ থেকে ৮ দিন সময় লাগবে। এভাবে সম্পূর্ণ আসা পর্যন্ত সেচ দিতে হবে।
ফুল আসার পর ২ সপ্তাহ পর্যন্ত জমিতে সব সময় ২ থেকে ৪ সেন্টিমিটার পানি রাখতে হবে। এ সময় কোনো অবস্থাতেই যেন পানির ঘাটতি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা প্রয়োজন।  এভাবেই পানি দিতে হবে ধান কাটার দুই সপ্তাহ আগ পর্যন্ত।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ