• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৯:০৯ অপরাহ্ন |

কে হচ্ছে রাজিবপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ?

Rajibpurআব্দুল্লাহ খান ফয়েজী, রাজিবপুর: আগামী ২৭ তারিখ  রাজিবপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন । উপজেলা চেয়ারম্যান পদে  ভোট যুদ্ধে লড়ছেন ছয়জন প্রার্থী। আ‘লীগের  সাধারন সম্পাদক শফীউল আলম (আনারস), বিএনপি সভাপতি অধ্যাপক মোখলেছুররহমান (ঘোড়া), জামাআতে ইসলামীর আমীর মওঃ আঃ লতিফ ( উড়োজাহাজ), জাতীয় পার্টী সমর্থীত আঃ বারী সরকার (কাপ পিরিচ), আ‘লীগের সাবেক সভাপতি (বর্তমান বহিস্কৃত) অধ্যাপক আঃ ছবুর ফারুকী(মোটর সাইকেল),এবং যুবদল সভাপতি (বর্তমান বহিস্কৃত) ওসমান গনি খন্দকার(দোয়াত কলম) ।
প্রার্থী ও তাদের কর্মীদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য অনুসারে তারা সকলেই জয়ের ব্যপারে শতভাগ আশাবাদি, কারন ভোটারেরা যে যাচ্ছে তাকেই মুখে মুখে ভোট দিয়ে দিচ্ছে, কাউকে হতাশ করছেনা। এ যেন সোনাভানের পুথির কথা, কেহ কারে নাহী জীতে সমানে সমান। মাঠ পর্যায়ে দেখা যাচ্ছে শফীউল আলম (আলম মেম্বার) সাহেবের কর্মী বাহীনির বহর সবচেয়ে বড়। কেউ কেউ মন্তব্য করতেছে “হাতিকা দাঁত এক খানেকা আওর এক দেখলানেকা ” অতিতেও দেখা গেছে তার কর্মী বাহীনি অনেক বড় হয় কিন্তু গননায় তার ভোট কম পাওয়া যায়। তার ভয়ে কিংবা তার কাছ থেকে খাওয়া ও পাওয়ার আশায় অনেকেই তার কর্মী বাহীনিতে নাম লেখায কিন্তু  ভোট দেয়না। তবে অনেকেই ভাবছে এবারের চিত্র ভিন্ন হবে ।
অধ্যাপক মোখলেছ সাহেবের ভোট কর্মীদের দাবী রাজিবপুর ইউনিয়নে ১০টি ভোট কেন্দ্রে ভোট সংখ্যা ২২০৮৪, এর মধ্যে বেশ কয়েকটি ভোট কেন্দ্রে মোখলেস সাহেবের ঘোড়া মার্কা সর্বউচ্চ ভোট পাবে এবং রাজিবপুর ইউনিয়নে মোখলেস সাহেবই আট হাজারের মতো ভোট পেয়ে  ফাস্ট হবে। কোদালকাটী ইউনিয়নে নিজস্ব প্রার্থী না থাকায় ,সেখান কার ১০৫৭৪ ভোটের মধ্যে ঘোড়া মার্কা পাবে সাড়ে তিন হাজার। মোহন গঞ্জ ইউনিয়নে ১৫২৫৫ ভোটের মধ্যে  ঘোড়া মার্কা পাবে কমকরে হলেও তিনহাজার। কর্মীর দেয়া  এই হিসাবের কাছাকাছিও যদি ঘোড়া পৌছতে সক্ষম হয় তবে বিজয়ের মালা ঘোড়ার গলায় পড়ে ।
মোহনগঞ্জ  ইউনিয়ন জামাআতের ঘাটি, সেখানে ভোট রয়েছে মোট ১৫২৫৫, এ ভোটের উপর ভিত্তি করে বিজয়ের আশা নিয়ে ভোটারদের বাড়ী বাড়ী দৌড়াচ্ছে জামাআত নেতা  মওঃ আঃ লতিফ। তার কর্মী দের ধারনা মোহন গঞ্জে ১৫ হাজার ভোটের ১৩ হাজার কাষ্ট হে , ২ হাজারের মতো বাহিরে যাবে ,বাকী ১১ হাজার মোহন গঞ্জের ২ প্রার্থী  আঃ বারী সরকার (কাপ পিরিচ) ও জামাআত নেতা আঃ লতিফের (উড়ো জাহাজ) মাঝে ভাগ হবে। এতে মওঃ আঃ লতিফ পাবে আট হাজার আর কাপ পিরিচ পাবে তিন হাজার। রাজিবপুর ও কোদাল কাটী থেকে  তিন হাজারের উপরে  ভোট নিতে পাররেই সে চেযারম্যান  সেই হিসাবে রাজিবপুর ও কোদালকাটী চষে বেরাচ্ছে তার দলীয় নেতা-কর্মীরা ।
আঃ বারী সরকারের কর্মীদের  হিসাব ভিন্ন। তাদের মতে, আঃ বারী সরকার গত উপজেলা নির্বাচনে ব্যক্তিগত ইমেজে ভোট পেয়েছিল, মোহনগঞ্জে  তিন হাজারের উপরে, রাজিবপুর ও কোদাল কাটী ইউনিয়ন থেকে প্রায় ২হাজার। গতবার পরাজিত হয়ে আবার এবার হাত পাতায় গতবারের পাওয়া ভোটের চেয়ে এবার তার ভোটের সংখ্যা বাড়বে । এর সাথে যোগ হবে জাতীয় পার্টীর (এরশাদ) ভোট , গতবার জাতীয় পার্টী তাকে সমর্থন না দিলেও এবার দিয়েছে । এই হিসাবে কাপ পিরিচকে হিসাবে রাখতে হয় ।
এবার হিসাব দেখা যাক দলচুত ২প্রার্থী, আ‘লীগের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক আঃ ছবুর ফারুকী, সাবেক যুবদল সভাপতি  ওছমান গনি খন্দকার এর।  ফারুকী সাহেব প্রবিন ব্যক্তি, সততা ও স্পষ্টবাদিতার কারনে  তাকে অনেকেই পছন্দ করে । তার নিজস্ব কোন ভোট ব্যংকও নাই, দলও নাই, তাই ব্যক্তিগত ইমেজ টুকু দিয়ে কত পার্সেন্ট ভোটারের সমর্থন তিনি পাবেন তা বলা মুসকিল। ওসমান গনি খন্দকার একেবারে নবিন, অনেকেই মনে করেন আ‘লীগের অনেক ভোটার কিছু কারনে তাদের দলীয় প্রার্থীকে ভোট দিবেনা, এই ভোট গুলি নবিন নেতা খন্দকার সাহেব পাবে। আবার অনেকেই মনে করছে যতই দিন যাচ্ছে , আ‘লীগের দলছুট ভোট গুলি  আ‘লীগের বহিস্কৃত নেতা ফারুকী সাহেবের দিকে ঝুকে যাচ্ছে ।
এই সকল হিসাব কেতাব সামনে থাকায় মানুষ বলা বলি করছে ,কে হচ্ছে রাজিব পুর উপজেলা চেয়ারম্যান তা ঠিক বলা যাচ্ছেনা। তবে বিএনপি সভাপতির ঘোড়া, জামাআত নেতার উড়োজাহাজ একে অপরকে পিছনে ফেলার চেষ্টায় রত ছিল এবং আছে । পিছন থেকে প্রবিন জননেতা ফারুকী সাহেবের  মোটর সাইকেল জোরে পিকাপ টানতেছে । আ‘লীগ সাধারন সম্পাদক শফীউল আলম (আলম মেম্বার) এর আনারস যারা ফেরি করছে ,আনারসের গুনাগুন নিয়ে তাদের মন্তব্য সাধারন ভোটারদের উৎসাহে ভাটা ফেলতেছে ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ