• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৩৯ অপরাহ্ন |

পাকিস্তানে বিমান হামলায় নিহত ৫০

Pakistan11আন্তর্জাতিক ডেস্ক : আফগান সীমান্তসংলগ্ন পাকিস্তানের উপজাতি অধ্যুষিত পাহাড়ি এলাকায় অবস্থিত তালেবানদের আস্তানাগুলোর ওপর রবিবার সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সরকারি বাহিনীর বিমান হামলায় অন্তত ৩৮ তালেবান নিহত হয়েছেন। অন্যদিকে, রবিবার পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে পেশোয়ারের পাশের শহর কোহাতে এক বোমা বিস্ফোরণে অন্তত ১২ জন নিহত হন। এ হামলায় আহত হন আরও অন্তত ১২ জন। দেশটির ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের উদ্যোগে গত ২৯ জানুয়ারি থেকে তালেবানের সঙ্গে শান্তি আলোচনা ভেস্তে যাওয়ার পর ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে তালেবানদের ওপর ব্যাপক হামলা শুরু করে পাকিস্তান সেনাবিাহিনী। অবশ্য শান্তি আলোচনার উদ্যোগ চলাকালেও হামলা-পাল্টা হামলা অব্যাহত ছিল। রবিবার পর্যন্ত কয়েকশ’ তালেবান নিহত হয়।

এদিকে, গত শুক্রবার তালেবানের প্রধান মুখপাত্র শহিদুল্লাহ শহিদ সাংবাদিকদের সঙ্গে সরাসরি এক সাক্ষাতে ঘোষণা করেন, ‘সম্প্রতি উত্তর ওয়াজিরিস্তানে সেনাবাহিনীর হামলায় আমাদের ৭৪ জন সদস্য নিহত হওয়ার পরও আমরা সংলাপে বসতে রাজি আছি। তবে ইসলামী শরিয়াহর অধীনেই সংলাপ অনুষ্ঠিত হতে হবে। কারণ আমরা ইসলামী শরিয়াহ কায়েমের জন্যই লড়াই করছি। আর পাকিস্তান রাষ্ট্র এর রাজনৈতিক ও আইন ব্যবস্থা পরিবর্তন করে ইসলামী শরিয়াহ কায়েম না করা পর্যন্ত কোনো শান্তি আসবে না।’

পাকিস্তানের ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ ক্ষমতায় আসার আগে তালেবানের সঙ্গে শান্তি আলোচনা করে যুদ্ধ বন্ধ করা এবং তালেবানদের নিয়মতান্ত্রিক ও বৈধ রাজনীতিতে ফিরিয়ে আনার কথা বলেছিলেন। প্রসঙ্গত, নওয়াজ শরিফ নিজেও ১৯৯০’র দশকের শেষ দিকে পাকিস্তানে ইসলামী শরিয়াহ আইন প্রতিষ্ঠার কথা বলেছিলেন। কিন্তু এর কিছুদিন পরই তিনি এক সেনা অভ্যুত্থানে ক্ষমতাচ্যুত হন। এদিকে, ২০১৪ সালের শুরু থেকেই পাকিস্তানের সামরিক ও বেসামরিক উভয় ধরনের লক্ষ্যবস্তুতেই তালেবানদের হামলা ব্যাপকভাবে বেড়ে যায়। ২০০৭ সালে শুরু হওয়া পাকিস্তান রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে তালেবান বিদ্রোহে এ পর্যন্ত অন্তত ৪০ হাজার মানুষের প্রাণহানি ঘটেছে।

(সূত্র : এনডিটিভি ও আল জাজিরা)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ