• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১২:৫৫ অপরাহ্ন |

হাসি ফুটেছে জামায়াতের মুখে

Jamatনিউজ ডেস্ক: উপজেলা নির্বাচন হাসি ফুটিয়েছে জামায়াতে ইসলামীর মুখে। উপজেলায় আশাতীত সাফল্য অস্তিত্ব সংকটে থাকা দলটিকে উজ্জীবিত করে তুলেছে। দলের নিবন্ধন ও তৃণমূলে শক্তি ফিরে পেতে এ জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগাতে চায় জামায়াত।  নিবন্ধন বাতিল হলেও স্থানীয় সরকার নির্দলীয় হওয়ায় উপজেলায় ভোটে লড়ার সুযোগ পায় দলটি। সেই সুযোগকে কাজেও লাগাচ্ছে তারা। হামলা-মামলার হুলিয়া নিয়ে নির্বাচন করেছেন জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীরা। প্রথম ধাপের ৯৭ উপজেলা নির্বাচনে ১৩টি চেয়ারম্যান পদ পেয়েছে দলটি। এ ছাড়া ২৩টি পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান ও ১০টি মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানেও নির্বাচিত হয়েছেন জামায়াত সমর্থিতরা।

চরম বিপর্যয়ের মুখে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী দলটি। সারা দেশের কার্যালয়গুলো বন্ধ। গ্রেপ্তার, হামলা-মামলায় বিপর্যস্ত নেতা-কর্মীরা আসতে পারছেন না প্রকাশ্যে। মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে কারান্তরীণ দলটির শীর্ষ পর্যায়ের প্রায় সব নেতাই। বেশ কয়েকজনের সাজাও হয়েছে। এমন অবস্থায় উপজেলা নির্বাচনে এই বিজয় দলটিকে আশাবাদী করে তুলেছে।

আর এ বিজয়কে কাজে লাগিয়ে তৃণমূলে নতুন করে শক্তি সঞ্চয় করতে চায় জামায়াত। তাই উপজেলায় বাকি ৫ দফা নির্বাচন নিয়েও সতর্কতার সঙ্গে এগোচ্ছে দলটি। জোটগতভাবে নির্বাচনে যেতে সমঝোতা না হলে এককভাবে লড়ার প্রস্তুতিও নেয়া হচ্ছে বলে জামায়াত সূত্রে জানা গেছে। প্রথম দফার উপজেলা নির্বাচনে বিএনপির ঘাঁটি বলে খ্যাত বগুড়ায় তিনটি উপজেলায় জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন। জামায়াতের এ বিজয়কে রীতিমতো হুমকি বলেও মনে করছে স্থানীয় বিএনপি। সামনে বিএনপিও এ নিয়ে সতর্ক থাকবে বলে জানা গেছে। অবশ্য বিএনপি  নেতারা এও স্বীকার করছেন, ওই তিন উপজেলায় বিএনপির একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন। তাই বিএনপির ভোট কমে যাওয়ায় জিতে গেছেন জামায়াতের প্রার্থীরা।

মুক্তিযুদ্ধে জামায়াতের বিতর্কিত ভূমিকা এবং যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে দলটির শীর্ষ নেতাদের জড়িত থাকার ফলে গত কয়েক বছরে জনগণের মধ্যে তীব্র জামায়াতবিরোধী মনোভাব দেখা গেছে। এর পরও আওয়ামী লীগ, বিএনপি এবং জাতীয় পার্টিতে বিভিন্ন সমস্যা থাকায় উপজেলায় আশাতীত জয় পেয়েছেন জামায়াতের প্রার্থীরা। এ নিয়ে যেমন অনেকেই বিস্মিত হয়েছেন, তেমনি চলছে চুল-চেরা বিশ্লেষণ। তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর ভাষ্য, জামায়াত কীভাবে এতগুলো উপজেলায় নির্বাচিত হলো- তা নিয়ে গবেষণা হওয়া উচিত।
সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ