• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৬ অপরাহ্ন |

খানসামায় প্রাইমারী স্কুলে দপ্তরী পদের মূল্য ৬ লাখ!

Takaবিশেষ প্রতিনিধি: আউট সোর্সিংয়ের মাধ্যমে সৃজিত দপ্তরী কাম প্রহরী পদে দিনাজপুরের খানসামায় ১৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে লোক নিয়োগে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব বিদ্যালয়ে দপ্তরী পদে নিয়োগে উপেক্ষিত হচ্ছে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা এবং পদের দাম উঠেছে ৬ লাখ টাকা।
সূত্রমতে, দ্বিতীয় দফায় খানসামার ১৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী পদে লোক নিয়োগে ১৫ জানুয়ারি থেকে ৩০ জানুয়ারির মধ্যে দরখাস্ত আহ্বান করে একযোগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়। পদগুলোতে সাধারণ লোকের পাশাপাশি মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরাও আবেদন করেন। অপরদিকে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর থেকে নিয়োগ বাণিজ্যের একটি দালাল চক্র সক্রিয় হয়ে ব্যাপক ভাবে ঘুষ বাণিজ্য শুরু করে। চক্রটি প্রতিটি পদের মূল্য ৫-৬ লাখ টাকা নির্ধারণ করে এবং রামনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিয়োগ কমিটিতে থাকা বিদ্যালয় কমিটির সভাপতি নাসির উদ্দিন তার ৪ জন নিকট আত্মীয়কে দরখাস্ত করান তাদের মধ্য থেকে দপ্তরী নিয়োগে নামের তালিকা উপজেলা শিক্ষা অফিসে প্রেরণ করনে। যা সরকারের দেয়া পরিপত্রের নিয়ম বর্হিভূত। এতে করে, বিদ্যালয় এলাকার গরীব, মেধাবী, দাতা সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান মো: সুমন উপেক্ষিত হওয়ায় তার পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা মো: জাফর আলী উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও শিক্ষা অফিসার বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন এবং এটি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রীসহ ৯টি দপ্তরে অনুলিপি করেছেন। একই ভাবে পশ্চিম আঙ্গারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিয়োগ কমিটির মোটা অংকে অর্থের বিনিময়ে অযোগ্যদের নিয়োগ দানের পায়তারা করছে বলে অভিযোগ এনে ওই এলাকার বাসিন্দা এবং আবেদনকারী মজনু রহমান, আইনুল হক, আবুল কালাম আজাদ, শাহানুর রহমান, মোতালেব, সফিকুল ইসলামসহ ১৫ জন ব্যক্তির স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগপত্র দাখিল করেন। অপর একটি লিখিত অভিযোগ করেন সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোহাম্মদ আলী শাহ্’র ছেলে এনামুল হক। তিনি উল্লেখ করেন আগ্রা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিয়োগ কমিটিতে থাকা প্রধান শিক্ষক হুমায়ুন কবির, এসএমসি’র সভাপতি ও উপজেলা শিক্ষা কমিটির অন্যতম সদস্য সামসুল হক এবং সংশ্লিষ্ট ক্লাস্টার অফিসার এটিও আব্দুস সামাদ ক্ষমতা দেখিয়ে পার্শ্ববর্তী খামারপাড়া ইউনিয়নের জুগিঘোপা গ্রামের বাসিন্দা ৩২৮ নম্বর ভোটার (ন্যাশনাল আইডি নম্বর-২৭১১৭৭৩৫০৪৫১) নেদু মোহাম্মদের ছেলে ফজলু রহমানকে রাতারাতি আগ্রার বাসিন্দা বানিয়ে মৌখিক পরীক্ষাসহ নিয়োগের যাবতীয় কাগজপত্র প্রস্তুত করেছেন।
নাম প্রকাশে অনেচ্ছুক একটি গোপন সূত্র জানায়, এই নিয়োগ বাণিজ্যের মূল হোতা হিসেবে কাজ করছেন ডনকেয়ার মাইন্ডের উপজেলা শিক্ষা অফিসার নুরুল আমীন নিজেই। তিনি ঘুষে অর্থ তুলে জমা দিতে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের প্রতি কড়া নির্দেশ দিয়েছেন। এছাড়াও শিক্ষা অফিসারের বিশেষ সহচর উত্তমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তুষার কান্তি রায় সহ বেশ কয়েক জন নামধারী নেতা এবং ৪ জন সহকারি শিক্ষা অফিসার বিশেষ কৌশলে কাজ করে যাচ্ছেন। সূত্রটি জানায়, যেসব বিদ্যালয়ের নিয়োগ কমিটি দপ্তরী নিয়োগের অর্থ আদায় করে দিতে ব্যর্থ হয়েছে এবং ভাগবাটোয়ার নিয়ো ফ্যাসাদ সৃষ্টি হয়েছে সেসব বিদ্যালয়ে কৌশলে দ্বন্দ্ব লাগিয়ে পরীক্ষার নামে উপজেলা অফিসে ডেকে নিয়ে বিশেষ কায়দায় অর্থ আদায় করেন এবং নিয়োগের কাগজপত্র প্রস্তুত করেন। অনুসন্ধান করে জানা গেছে, খানসামার প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নুরুল আমীন আগামী ৩১ মার্চ রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলায় বদলি হয়ে যাবেন। তাই এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে নির্দিধায় নানা ধরণের অনিয়ম দুর্নীতি করছেন।
এসব অভিযোগে রামনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি নেতা নাসির উদ্দিনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, আমার কোন নিকট আত্মীয় নাই। এলাকা হিসেবে সবাই আমাকে বিভিন্ন সম্পর্ক ধরে ডাকতেই পারে।
আগ্রা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিয়োগ কমিটিতে থাকা এটিও আব্দুস সামাদের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার সংশ্লিষ্ট আসনের এমপি মহোদয়ের সাথে পরামর্শ করে নিয়োগের বিষয়টি চুড়ান্ত করবেন। তবে ওই ব্যক্তির বাড়ি বিদ্যালয়ের ক্যাচমেন্ট এলাকার বাইরে নয়। রীতিমত তার খাজনা-খারিজার কাগজপত্র এবং চেয়ারম্যানের দেয়া প্রত্যয়নপত্র রয়েছে। আর অর্থ বাণিজ্যের বিষয়টি আমার জানা নেই।
এ ব্যাপারে উপজেলা শিক্ষা অফিসার নুরুল আমীনের সাথে কথা হলে তিনি অভিযোগপত্র পাওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, আমি ৪টা স্কুলের অনিয়মের অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করলে সব বেরিয়ে আসবে। অপরদিকে বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা (দায়িত্ব প্রাপ্ত) এ কে আনোয়ার হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, অনিয়মের কথা ইউএনও সাহেবকে জানান। আমাদের কিছু করার নেই এখান থেকে। উপজেলায় নিয়োগ কমিটি আছে। তারা যখন নিয়োগ দিতে পারবেন তখন ডিস্ট্রিকে একটা কমিটি আছে, তারা তখন মতামত দিতে পারেন। তার আগে কিচ্ছুনা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ