• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১৭ অপরাহ্ন |

জেএমবির টার্গেট ২১ জনকে মুক্ত করার

1113ঢাকা: আরো ২১ জনকে মুক্ত করার টার্গেট রয়েছে জেএমবির। ২৪ জনকে মুক্ত করতে তারা টার্গেট নিয়ে মাঠে নেমেছিল। তার মধ্যে তিনজনকে প্রিজন ভ্যান থেকে মুক্ত করতে পারলেও তাদের মধ্যে একজন পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছে। একাধিক সূত্র জানিয়েছে, এই ২১ জনকে মুক্ত করতে জঙ্গিরা তাদের সর্বোচ্চ বল প্রয়োগের চেষ্টা চালাবে। এ দিকে পুলিশ ও র‌্যাব সূত্র জানিয়েছে, পুলিশ হত্যা করে তিন জঙ্গিকে ছাড়িয়ে নেয়ার পর কঠোর সতর্কাবস্থা জারি করা হয়েছে। এমনকি জঙ্গিরা যেসব জেলে রয়েছে সেসব জেলে ইতোমধ্যেই নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। বিভিন্ন মামলার হাজিরায় জঙ্গিদের আনা-নেয়ার পথে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা গ্রহণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একাধিক সূত্র জানিয়েছে, বিভিন্ন সময় জঙ্গি সংগঠনগুলোর সদস্যদের গ্রেফতারের পর যারা জামিনে মুক্তি পেয়েছে তারাই এখন সক্রিয়ভাবে সংগঠনটি পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েছে। আবার বেশ কিছু দুর্ধর্ষ জঙ্গি সন্ত্রাসী রয়েছে যাদেরকে গ্রেফতার সম্ভব হয়নি গত ৯ বছরেও।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় রাজধানী ছাড়া দেশের বিভিন্ন জেলায় ১৩৮টি মামলা দায়ের হয়। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে এক হাজার ৪০০ জন গ্রেফতার করা হয়। পরে যাচাই-বাছাই করে ৯৮১ জনকে বিভিন্ন মামলায় আসামি করা হয়। জেএমবির তৎকালীন প্রধান শায়খ আব্দুর রহমানসহ বেশির ভাগ শীর্ষ জঙ্গিকে গ্রেফতার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-র‌্যাব।
ওই সব মামলার এখনো ৫৯টি বিচারাধীন রয়েছে। মামলার রায়ে ৩৪ জন আসামিকে ফাঁসির দণ্ড দেয়া হয়েছে। ফাঁসি কার্যকর হয়েছে ৬ জনের। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছে মোট ১১৮ জনের। বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড হয়েছে ৯৯ জনের। খালাস পেয়েছে ১১৮ জন। জামিন পেয়েছে ৩৫ জন। এখনো পলাতক আছে ৫৭ জন। রাজধানীর ৩৩টি স্পটে বোমা হামলার ঘটনায় ১৮টি মামলা দায়ের হয়। এর মধ্যে ৫টি মামলায় বোমার বাহককে খুঁজে পায়নি পুলিশ। ফলে ওই সব মামলায় কাউকে অভিযুক্ত করতে পারেনি। সূত্র জানায়, শায়খ আব্দুর রহমান গ্রেফতার এবং ফাঁসির দণ্ড কার্যকর হওয়ার পর জেএমবি প্রধানের পদে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জন এসেছে। সূত্র জানায়, যাদেরকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি এবং যারা বিভিন্ন সময় জামিনে জেল থেকে বের হয়েছে তারাই আবার সংগঠনটি শক্তিশালী করে। সূত্র জানায়, এসব জঙ্গির হাতে এখনো বিপুল অস্ত্র ও গোলাবারুদ রয়েছে।
সূত্র জানায়, দেশের বিভিন্ন জেলে এখনো সহস্রাধিক জেএমবি ও জঙ্গি সদস্য বন্দী রয়েছে। তাদের মধ্যে ২৪ জনকে মুক্ত করার প্রাথমিক টার্গেট রয়েছে জেএমবির। যার মধ্যে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি ময়মনসিংহ থেকে তিন জেএমবি সদস্য হাফেজ মাহমুদ ওরফে রাকিব হাসান ওরফে হায়দার, সালাহউদ্দিন ওরফে সালেহীন ওরফে সজিব, জাহিদ হাসান ওরফে জাহিদুল ইসলাম ওরফে মিজান ওরফে বোমারু মিজানকে ছিনিয়ে নেয় জঙ্গিরা। প্রিজন ভ্যানে গুলি চালিয়ে ছিনিয়ে নেয়া হয় তাদের। এতে এক পুলিশ নিহত এবং অপর দু’জন গুরুতর আহত হয়। ঘটনার ৪ ঘণ্টার মাথায় টাঙ্গাইলের সখিপুর থেকে গ্রেফতার করা হয় রাকিবকে। ১৪ ঘণ্টার মাথায় পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয় রাকিব। বাকি দুইজনকে এখন পর্যন্ত গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আরো ২১ জনকে এভাবে মুক্ত করার টার্গেট রয়েছে জেএমবির। তারা হলো- নওগাঁর নিয়ামতপুরের আবদুল কাইউম, বগুড়ার শেরপুরের হাফেজ মিনহাজুর ইসলাম ওরফে সোহেল রানা ওরফে সানোয়ার হোসেন, জামালপুরের মো: আক্তারুজ্জামান, খুলনার তরিকুল ইসলাম ওরফে রিংকু, ঝিনাইদহের মনিরুল ইসলাম ওরফে মোকলেছ, নাসরুল্লাহ ওরফে শান্ত, ঝিনাইদহের রোকনুজ্জামান ওরফে সিবুন, গাইবান্ধার আবু তালেব আনছারী ওরফে বাবুল আনছারী, ঝিনাইদহের মোহন, মামুনুর রশিদ, ঝিনাইদহের মুহিদ আহম্মদ, মোজাম্মেল হক ওরফে মোজাম, তুহিন রেজা, সবুজ আলী, শৈলকুপার ফারুক হুসাইন, গাইবান্ধার মতিন মেহেদী ওরফে মতিনুর ইসলাম, ঝিনাইদহের মহিরুল আল মামুন ওরফে চাদ, ঝিনাইদহের বিলাল হোসেন, সাবউদ্দিন, শৈলকুপার রবজেল হোসেন এবং আজিজুর রহমান।
এ দিকে পুলিশ সদর দফতর গতকাল মঙ্গলবার বোমারু মিজান ও সালাহউদ্দিনকে গ্রেফতারের জন্য তাদের ছবি সংবলিত বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। র‌্যাবের মিডিয়া উইং প্রধান উইং কমান্ডার এ টি এম হাবিবুর রহমান বলেন, জেএমবির সর্বশেষ টার্গেট কী ছিল তা জানা যায়নি। ময়মনসিংহের ঘটনায় যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে তাদের পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে।

উৎসঃ   নয়া দিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ