• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:২৬ অপরাহ্ন |

বিডিআর বিদ্রোহের ছয় বছর : কিছু ভাবনা

এম সাখাওয়াত হোসেন:

Sakaoutআজ বিডিআর বিদ্রোহের ষষ্ঠ বছর। আমি প্রথমেই সে সময় যাঁরা শহীদ হয়েছেন, তাঁদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। শহীদদের পরিবারের প্রতি সান্ত্বনা জ্ঞাপন করছি। ২০০৯ সালে আমাদের ঐতিহ্যবাহী বিডিআর বাহিনীর মধ্যে এমন একটি বিদ্রোহ সত্যিই নজিরবিহীন। বিডিআরদের বিদ্রোহে সে সময় দেশের অত্যন্ত চৌকস সেনা কর্মকর্তারা নিহত হয়েছিলেন, যা জাতির জন্য বড় ক্ষতি। আমরা তাঁদের মনে রাখতে চাই, স্মরণ করতে চাই।

আমরা জানি যে বিডিআর বিদ্রোহের বিচার হয়েছে। খুব বেশি সময় না নিয়েই সরকার চেষ্টা করেছে এর বিচার করতে। বিডিআর বিদ্রোহ নিয়ে গঠিত বিশেষ আদালতের রায়ে ১৫২ বিডিআর জওয়ানকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। ১৬১ জনের যাবজ্জীবন জেল হয়েছে। সব মিলিয়ে প্রায় আট-সাড়ে আট হাজার বিডিআরের বিচার হয়েছে। এটিও বিশ্বের নজিরবিহীন ঘটনা। কিন্তু তার পরও এটি ভালো যে আমরা এমন একটি ঘটনার বিচার করতে পেরেছি। নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী বিডিআর বিদ্রোহের বিচার হয়েছে। আমরা খুব বেশি সময় নিইনি, অনেকটা দ্রুততার সঙ্গেই বিচার করতে পেরেছি। তবে এখানে আরেকটি প্রশ্ন থেকেই যায়, তা হলো- আমরা একে বিদ্রোহ বলব নাকি হত্যাকাণ্ড বলব, সেটি এখনো মীমাংসিত নয়। যেখানে রাষ্ট্রের অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিচার ঝুলে আছে, সেখানে আমরা এই হত্যাকাণ্ডের বিচার করতে পেরেছি। এটি আমার মনে হয় সরকারের ঐকান্তিক মনোভাবের কারণেই সম্ভব হয়েছে। বিশেষত ওই সময়ের সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্টা ও তাগিদেই এটি এত দ্রুত করা সম্ভব হয়েছে।

বিচারপ্রক্রিয়া পরিচালনার সময় আদালত এই ঘটনার কয়েকটি পর্যবেক্ষণ তুলে ধরেছে। সেই পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে তারা সরকারকে সতর্ক করেছে, সরকারকে তাদের নিজেদের কয়েকটি দায়িত্বের প্রতি সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়েছে। এ ক্ষেত্রে আদালতের মতামত খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে আমি মনে করি। যেমন তারা বলেছে, এই যে বিদ্রোহের ঘটনাটি ঘটল, এর পেছনে কারা অনুঘটক হিসেবে কাজ করেছে, তাদের ব্যাপারে আদালত কোনো তথ্য পায়নি। এত বড় একটি বিদ্রোহ, সেটিতে কারো ইন্ধন ছিল কি না, সে সম্পর্কে আমরা এখনো কোনো তথ্য জানি না। এটি আমাদের গোয়েন্দা ব্যর্থতার প্রতিফলন। দ্বিতীয়ত, বিডিআরের এই বিদ্রোহের পেছনে আসল উদ্দেশ্য কী ছিল? সত্যিকার উদ্দেশ্য না বের করতে পারলে আমরা যে বিচারের ক্ষেত্রে সফল হয়েছি, এটি বলা যায় না। এটি শুধু সরকারের একটি বাহিনীর নিরাপত্তার প্রশ্ন নয়- এটি দেশের সার্বিক জাতীয় নিরাপত্তার সঙ্গে জড়িত। এত বড় একটি বিদ্রোহের কারণ অনুসন্ধানে যদি আমরা ব্যর্থ হই, তাহলে বলা যেতে পারে, এখনো আমরা আমাদের জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারিনি। বিডিআরের ঘটনাকে শুধু ক্ষুদ্র অবস্থান থেকে দেখা উচিত নয় বলে আমি মনে করি। আজকে আমরা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করছি, তাদের বিচারের জন্য তথ্য অনুসন্ধান করছি। সেটি ৪৩ বছর আগের একটি বিষয়। তাহলে আমরা কেন বিডিআর বিদ্রোহের পেছনের উদ্দেশ্য বের করতে পারব না? এখানে একটি বিষয় খুবই গুরুত্বপূর্ণ যে এটি শুধু একক কোনো সরকারের প্রসঙ্গ নয়, এটি দেশের সামগ্রিক ব্যবস্থার সঙ্গে জড়িত। দেশের ১৬ কোটি মানুষের সঙ্গে জড়িত। এটি জাতীয় সংকট। বিষয়টিকে আমি মনে করি সেখান থেকেই দেখা উচিত। আর যদি একক সরকারের অবস্থান থেকে দেখি, তাহলে আমরা সমস্যার মূল্যায়ন করতে ব্যর্থ হব। সমস্যাকে জাতীয় অবস্থান থেকে সমাধান করতেও ব্যর্থ হব।

বিডিআর বিদ্রোহের ছয় বছর : কিছু ভাবনা

আমি সমস্যাটিকে নিরাপত্তা বিশ্লেষকের অবস্থান থেকে দেখতে চাই। এটি ঠিক যে আমরা এখনো সমস্যাগুলোকে জাতীয় অবস্থান থেকে দেখতে ব্যর্থতার পরিচয় দিই। বিডিআর বিদ্রোহের মতো ঘটনা দেশের জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সরাসরি প্রভাব ফেলে- সেটি অনেক সময় খোলা চোখে দেখলে বোঝা যায় না। বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনাটি আমাদের জাতীয় নিরাপত্তায় সরাসরি প্রভাব ফেলেছে এমন একটি জায়গা। সুতরাং এখানে হেলাফেলা করার প্রশ্ন আসে না। জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে আমরা ব্যর্থ হলে সেটি সমগ্র জাতির জন্য হতাশাজনক। ব্যক্তি ব্যর্থ হলে তা হয়তো খুবই ক্ষুদ্র পরিসরে প্রভাব ফেলে, কিন্তু জাতি ব্যর্থ হলে সেটি সব মানুষকে আক্রান্ত করে, মানুষ হতাশ হয়। আর সবচেয়ে বড় বিষয়, জাতীয় প্রশ্নগুলোকে নিষ্পত্তির জন্য সমগ্র জাতির ঐকমত্য দরকার। জাতীয় ঐকমত্য প্রতিষ্ঠিত না হলে রাষ্ট্রীয় কোনো সমস্যার সমাধান হবে না। তাই রাষ্ট্রের নিরাপত্তাসংক্রান্ত প্রশ্নগুলো নির্মোহভাবে নিষ্পত্তি করতে হবে, সমাধান না হওয়া পর্যন্ত বারবার চেষ্টা করতে হবে।

আদালতের পর্যবেক্ষণের মধ্যে আরেকটি বড় বিষয় ছিল আমাদের গোয়েন্দা দুর্বলতা। কিন্তু আমি নিজে নিরাপত্তা বিশ্লেষক হয়ে মনে করি না যে আমাদের গোয়েন্দা বাহিনী দুর্বল। তারা যথেষ্ট শক্তিশালী এবং তাদের সামর্থ্যের পরিমাণও অনেক। সেখানে অনেক চৌকস, বুদ্ধিদীপ্ত ব্যক্তি রয়েছেন। কিন্তু বারবারই যেটি হয়ে থাকে, যে সরকার ক্ষমতায় থাকে গোয়েন্দা বাহিনীকে তারা নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করে। নিজেদের লাভ-ক্ষতির হিসাব-নিকাশ করে তারা গোয়েন্দা বাহিনীকে ব্যবহার করে। এতে পেশাদারিত্বের ক্ষতি হয়। জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রে এটি একটি বড় প্রশ্ন যে আমরা গোয়েন্দা বাহিনীকে কিভাবে ব্যবহার করব। তাদের পেশাদারিত্বের দিকে সর্বদা নজর দেব, নাকি নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করব। এই যেমন আদালত চত্বর থেকে আসামি পালিয়ে গেল (গত পরশু যে ঘটনাটি ঘটল)। একই দিনে ভয়ংকর তিন জঙ্গিকে পুলিশের প্রিজনভ্যান থেকে আরো কিছু জঙ্গি এসে ছিনতাই করে নিয়ে গেল। পুলিশ তাদের কাশিমপুর থেকে ময়মনসিংহ নিয়ে যাচ্ছিল। এটি তো সামান্য দূরত্বের পথ নয়। এতখানি দূরত্বে এমন গুরুতর আসামিকে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে পুলিশ কি যথেষ্ট সতর্ক ছিল? নিজেদের দায়িত্বের প্রতি সচেতন ছিল? আমরা তো চোখের সামনে এটি দেখতে পাচ্ছি যে জঙ্গি এখন সারা বিশ্বের সমস্যা। অন্য দেশগুলো জঙ্গিদের কিভাবে আদালতে নিচ্ছে, সার্বিক নিরাপত্তা বিধান করছে- এটি তো আমরা দেখতেই পাচ্ছি। তাদের দেখেও তো শেখা যায়। এই জঙ্গি তো সারা বিশ্বের, যে জঙ্গি সেখানকার অংশ। সুতরাং একই মাপকাঠিতে তাদের দেখতে হবে। যা-ই হোক, এটি নিয়ে অনুসন্ধান হচ্ছে, এখনই কথা না বলা ভালো।

তবে আমি যে কথাটি খুব স্পষ্ট করে বলতে চাই, তা হলো আমরা জঙ্গি সমস্যার সমাধান করে ফেলেছি- এটি নিয়ে একটি আত্মতৃপ্তিতে ভুগছিলাম। এখন নতুনভাবে দেখলাম, আমাদের ধারণা ভুল। জঙ্গি সমস্যা হয়তোবা বলা যায় সেটি আরো নতুন রূপে, নতুনভাবে বিকশিত হচ্ছে। মতাদর্শ বা আদর্শগত একটি সমস্যার সমাধান তো শক্তি প্রয়োগ করে দমন করা যায় না। এটিকে দমন করতে হয় আদর্শের ঠিক বা ভুলের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করে। আদর্শের সঙ্গে বিপরীত আদর্শের লড়াই চালাতে না পারলে সেটিকে পরাস্ত করা যায় না। শক্তি প্রয়োগ করে আজকে দৃশ্যগতভাবে নিষ্পত্তি করা গেলেও কিছুদিন পর আবার তা মাথাচাড়া দেবে।

বিশ্বব্যাপী আমরা দেখতে পাচ্ছি অ্যান্টি-টেরোরিস্ট মুভমেন্ট নানাভাবে দানা বাঁধছে। বিশ্বের বৃহৎ শক্তিগুলো টেরোরিস্টদের বিরুদ্ধে বহুমুখী যুদ্ধ চালাচ্ছে। সামরিক শক্তির সঙ্গে সঙ্গে তারা প্রযুক্তিকেও ব্যবহার করছে। তাদের দেখে আমাদের শিখতে হবে। কারণ জঙ্গি সমস্যা শুধু আমাদের একার নয়, এটি এখন বিশ্বের অনেক দেশের জন্যই সমস্যা। আর এই সমস্যাগুলো নিয়ে যদি আমরা রাজনীতি করি, তাহলে তা কখনোই সমাধান করা যাবে না। এ সমস্যাকে রাজনীতির বাইরে রেখে জাতীয় সমস্যার জায়গা থেকে সমাধান করতে হবে। বিশেষ করে দেশের ভেতরে নিজেদের মধ্যে ঐক্য খুবই প্রয়োজন। নিজেদের মধ্যে ঐক্যের সমাধান না করে শুধু জঙ্গি কেন, কোনো সমস্যারই সমাধান করা যাবে না। আর সামরিক বাহিনীর প্রশ্ন তো খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সার্বিক নিরাপত্তা বিষয়ে তাদের জাতীয় ঐক্যের সঙ্গে এক করে দেখতে হবে। সর্বোপরি বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনাকে কোনো ক্ষুদ্র অর্থে বিবেচনা না করে জাতির সামগ্রিক নিরাপত্তার সঙ্গে এক করে দেখতে হবে। সবাই মিলে সমাধান করতে হবে। জাতিকে বিভক্ত রেখে এই সমস্যার সমাধান করা কোনো মতেই সম্ভব নয়।

লেখক : অবসরপ্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তা ও সাবেক নির্বাচন কমিশনার
(কালের কন্ঠ, ২৫/০২/২০১৪)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ