• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১১:৩৫ পূর্বাহ্ন |

বিরামপুর: শেষ মুহুর্তে জমে উঠেছে প্রচারণা

Birampur Upazilla Election  = 2014একলাছুর রহমান, বিরামপুর: শেষ মুহুর্তে জমে উঠেছে দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলা নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা। আর একদিন পরেই অনুষ্ঠিত হবে এই উপজেলায় নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রার্থীরা ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে-দ্বারে। দিচ্ছেন এলাকার উন্নয়নে নানান প্রতিশ্র“তি। সব দলের অংশগ্রহণ থাকায় প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে উপজেলা সদর পর্যন্ত জমজমাট হয়ে উঠেছে উপজেলা নির্বাচনের প্রচারণা।
ভারত সীমান্ত ঘেঁষা উপজেলায় নির্বাচনকে ঘিরে দলগুলোর তৃণমূল নেতা-কর্মী ও সাধারণ ভোটারদের মাঝে বিরাজ করাছে উৎসবের আমেজ। আগামী ২৭ফেব্র“য়ারী অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয় দফার নির্বাচন। এদিন দিনাজপুর জেলার বিরামপুর ও ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
এই উপজেলায় জামায়াত সমর্থিত একক প্রার্থী থাকলেও বিএনপি ও আওয়ামী লীগের রয়েছে দুজন করে প্রার্থী। শুধু চেয়ারম্যান পদে নয় একাধিক প্রার্থী রয়েছে ভাইস চেয়াম্যান পদেও। ফলে মুশকিলে পরতে হয়েছে এদুই রাজনৈতিক দলের সাধারণ নেতা কর্মী ও ভোটারদের। অণ্যদিকে থেকে সুবিধা জনক অবস্থায় রয়েছে এখানকার জামায়াত প্রার্থীরা অন্যান্য দল গুলোর একাধিক প্রার্থী থাকলেও জামায়াতের রয়েছে এক জন করে।
এদিকে বিএনপি ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা বলছেন দলের একাধিক বা বিদ্রোহী পার্থী থাকলেও তাতে নির্বাচনে কোন প্রভাব পড়বে না।
জেলা বিএনপি একাংশ ও স্থানীয় বিএনপির নেতাদের সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মঞ্জুর এলাহি চেীধূরী রুবেল দাবি করেন, তিনি তৃণমুল নেতাদের সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী। তিনি নির্বাচিত হতে পারলে দূর্নিতি ও সন্ত্রাস মুক্ত বিরামপুর গড়বেন।
অন্য দিকে জেলা বিএনপি অন্যাংশ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী দবিরুল ইসলাম নিজেকে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী হিসেবে স্বিকার না করলেও সকল দলের ভোটার তাকে ভোট দিয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করবে বলে মনে করেন তিনি। নির্বাচিত হতে পারলে তিনি এলাকার গরীব-দুখি মানুষের পাশে থাকার অঙ্গিকার করেন।
আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী পারভেজ কবির দাবি করেন দলের আরো এক জন প্রার্থী বা বিদ্রোহী  প্রার্থী থাকলেও তার নির্বাচনে কোন প্রভাব পড়বে না। তিনি বলেন নির্বাচিত হলে স্থানীয় সংসদকে নিয়ে বিরামপুর জেলা বাস্তবায়নে কাজ করে যাবেন।
এদিকে, অন্যান্য দল গুলোর একাধিক প্রার্থী থাকলেও জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী রয়েছে একজন। ফলে সুবিধা জনক অবস্থায় রয়েছে জামায়াত সমর্থিত চেয়রম্যান প্রার্থী এনামুল হক। তিনি বলেন, এলাকার সকল উন্নয়নে তার সম্পৃক্ততা রয়েছে। মরহুম সংসদ সদস্য আজিজুল হক চৌধুরীর সাথে থেকে তিনি এলাকার উন্নয়ন কর্মকান্ডে অংশ গ্রহণ করছেন। তাই এলাকার উন্নয়নে জনগন তাকেই চেয়ারম্যান হিসেবে জয়ী করবেন।
তবে স্থানীয় নবীণ ও প্রবিণ ভোটাররা বলছেন, প্রার্থীরা যে যাই বলুক এলাকার সার্বিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারবেন এবারের নির্বাচনে এমন প্রার্থীকেই ভোট দিবেন তারা।
এদিকে, নির্বাচনের আচরণ বিধি অনুযায়ী মটরসাইকেল, বাসসহ কোন প্রকার যানবাহন এবং দেয়ালে কোন প্রকার পোষ্টার লাগানো নিষেধ থাকলেও নির্বাচনী এই আচরণ বিধি মানছেন না কোন-কোন প্রার্থীরা। নির্বাচনী এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বিভিন্ন বাসা-বাড়ি, দোকান ঘর, সিমানা প্রাচিরে পোষ্টার সাটানো রয়েছে। প্রার্থী ও সমর্থকরা মটরসাইকেলে করছেন প্রতিক বহন। আবার কোন প্রার্থী পক্ষে চলছে ছোট খাটো মিছিল।
এ বিষয়ে বিরামপুর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আতাউল হক বলেন, কোন প্রার্থী আচারণ বিধি লঙ্ঘন করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
উপজেলা নির্বাচন অফিস সুত্রে জানাগেছে, এবারের নির্বাচনে জেলার বিরামপুর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৫ জন ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। এখানকার ভোটার সংখ্যা রয়েছে যথাক্রমে বিরামপুরে ১ লাখ ১৯ হাজার ৩৫৬ জন ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ