• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৯ অপরাহ্ন |

লালমনিরহাটে সুবিধাজনক অবস্থানে জাপা-জামায়াত প্রার্থীরা

ECলালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাটের ৫টি উপজেলার মধ্যে ৩টি উপজেলায় আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি উপজেলা পরিষদ নিবার্চন হচ্ছে। সদর ছাড়া বাকি দুই’টি উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ-বিএনপি’র একাধিক প্রার্থী রয়েছে। ফলে উভয় দলের নেতা-কর্মীরা কয়েক ভাগে বিভক্ত হওয়ার পাশাপাশি জেলা নেতারা পড়েছে বেশ বেকাদায়। শত চেষ্টা করেও তারা একক প্রার্থী দিতে পারছে না। এই সুযোগকে কাজে লাগাতে বেশ মরিয়া হয়ে উঠেছে জাতীয় পার্টি ও জামায়াত। জেলার হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলায় আওয়ামীলীগ-বিএনপি’র দলীয় কোন্দল ও ভোট ভাগা-ভাগির ফলে জাতীয় পার্টি ও জামায়াতের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বেশ শক্ত অবস্থান তৈরী হয়েছে।লালমনিরহাট সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের নজরুল ইসলাম পাটোয়ারী ভোলা, বিএনপি’র একেএম মমিনুল হক ও জাতীয় পার্টি’র অধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমান মিঠু একক প্রার্থী হয়েছেন। তবে আওয়ামীলীগের দলীয় কোন্দল বিষের কাটা হয়ে দাড়াঁলেও বিএনপি-জাতীয় পার্টি সদর উপজেলায় ঐক্যবদ্ধ।  হাতীবান্ধা উপজেলায় কয়েক ভাগে বিভক্ত অগোছালো বিএনপি’র ৬ জন ও আওয়ামীলীগ’র ৩ জন, পাটগ্রাম উপজেলা আওয়ামীলীগ’র ২ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন। তবে ৩ উপজেলায় জাতীয় পার্টির একক প্রার্থী রয়েছে। জামায়াত সদর উপজেলায় বিএনপি’র প্রার্থীকে সমর্থন দিলেও হাতীবান্ধা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে জামায়াত নেতা হাবিবুর রহমান সাতা ও পাটগ্রাম উপজেলায় জামায়াত নেতা এরশাদ হোসেন সাজু প্রার্থী হয়েছেন।
জামায়াত’র প্রার্থী’র অবস্থান ও অন্য প্রার্থীদের চেয়ে অনেকটা মজবুত বলে জানা গেছে। হাতীবান্ধা উপজেলায় আওয়ামীলীগ থেকে চেয়ারম্যান পদে বদিউজ্জামান ভেলু, লিয়াকত হোসেন বাচ্চু ও ফজলুল হক প্রার্থী হলেও উপজেলা আওয়ামীলীগ লিয়াকত হোসেন বাচ্চুকে সমর্থন দিয়েছেন। ফলে তার সাথে রয়েছে দলের অধিকাংশ নেতা-কর্মী। যে কারণে দলীয় অন্য প্রার্থীদের চেয়ে তার অবস্থা অনেকটা ভাল।
গত নিবার্চনে আওয়ামীলীগ নেতা লিয়াকত হোসেন বাচ্চু মাত্র ১৬৯ ভোটের ব্যবধানে আ’লীগ’র বিদ্রাহী প্রার্থীর কাছে পরাজিত হয়। এই উপজেলায় আওয়ামীলীগ থেকে ভাইচ চেয়ারম্যান পদে সমর্থন পেয়ে বেশ তুঙ্গে আছেন ছাত্রলীগ সভাপতি তফিউজ্জামান জুয়েলও। বিএনপি থেকে চেয়ারম্যান পদে মোশারফ হোসেন, আঃ হাই, সাইদুজ্জামান কোয়েল, শাহাজাদ বাবু, আনোয়ারু ইসলাম বাবু ও শরিফুল ইসলাম প্রার্থী হয়েছেন।
বিএনপি শুধু মাত্র মহিলা ভাইচ চেয়ারম্যান পদে মাকতুফা ওয়াসীম বেলীকে সমর্থন দিলেও এখন পর্যন্ত চেয়ারম্যান পদে কাউকে সমর্থন দিতে পারে নাই। পাটগ্রাম উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগ থেকে প্রার্থী হয়েছেন, রহুল আমিন বাবুল ও ওয়াছেদুল ইসলাম শাহীন। তবে আওয়ামীলীগের সমর্থন বাবুল পেলেও অধিকাংশ নেতা-কর্মী শাহীনের পক্ষে মাঠে নেমেছে।
আওয়ামীলীগ প্রার্থী বাবুলের চেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী শাহীনের অবস্থান বেশ শক্তিশালী বলে জানা গেছে। বিএনপি থেকে শহিদুল্লাহ প্রাধান একক প্রার্থী হলেও তার অবস্থানের চেয়ে জামায়াত প্রার্থী এরশাদ হোসেন সাজুর অবস্থান শক্তিশালী।
এ ছাড়া জাতীয় পার্টি থেকে সদর উপজেলায় মাহবুবুর রহমান মিঠু, হাতীবান্ধা উপজেলায় এম জি মোস্তফা ও পাটগ্রাম উপজেলায় হাবিবুর রহমান বসুনিয়া প্রার্থী হয়েছেন। জাতীয় পার্টি’র একক প্রার্থী হওয়ায় তাদের নেতা-কর্মীরা দলবেধে মাঠে নেমেছে। তবে হাতীবান্ধা উপজেলায় জাতীয় পার্টি’র প্রার্থী এম জি মোস্তফা জেলার অন্য দুই উপজেলার প্রার্থীর চেয়ে অনেক মজবুত অবস্থায় আছেন।
সদর উপজেলায় আওয়ামীলীগ-বিএনপি-জাতীয় পার্টি’র ত্রি-মুখী লড়াই হলেও হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলার হিসাব হতে পারে ভিন্ন রকম। দুই উপজেলার মধ্যে হাতীবান্ধায় আওয়ামীলীগ-বিএনপি’র দলীয় কোন্দল নিরসন করে একক প্রার্থী করতে না পারলে বিজয় চলে যেতে পারে জাতীয় পার্টি বা জামায়াত’র ঘরে।
আর পাটগ্রাম উপজেলায় আওয়ামীলীগের একক প্রার্থী না হলে বিজয় চলে যাবে জামায়াত’র ঘরে। এ উপজেলায় জাতীয় পার্টি ও বিএনপি’র প্রার্থী তেমন শক্ত অবস্থান এখন তৈরী করতে পারে নাই। সবমিলে হাতীবান্ধা উপজেলায় আওয়ামীলীগ-জাতীয় পার্টি-জামায়াত’র ত্রি-মুখী ও পাটগ্রাম উপজেলায় আওয়ামীলীগ-জামায়াত’র দ্বি-মুখী লড়াই হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।
লালমনিরহাট জেলা আওয়ামীলীগের সম্পাদক মতিয়ার রহমান জানান, দল যাকে সমর্থন দিয়েছে নেতা-কর্মীরা তাদের পক্ষেই কাজ করছে। ৩ টি উপজেলায় তাদের প্রার্থী বিজয়ী হবে। লালমনিরহাট জেলা বিএনপি’র সম্পাদক হাফিজার রহমান বাবলা জানান, শুধু মাত্র হাতীবান্ধা উপজেলায় একাধিক প্রার্থী রয়েছে। এ নিয়ে আলোচনা চলছে। তিনিও দাবী করেন, নির্বাচনে তাদের প্রার্থীরা বিজয়ী হবে।
লালমনিরহাট জেলা জাতীয় পার্টির সম্পাদক অধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমান জানান, মানুষ আ’লীগ-বিএনপি’র বিকল্প হিসাবে জাতীয় পার্টির প্রার্থীকে জয়ী করবে। তবে জেলা জামায়াত’র সম্পাদক আলাউল ইসলাম ফাতেমী পভেল দাবী করেন, নিরপেক্ষ নিবার্চন হলে তাদের প্রার্থীরা বিজয়ী হবেই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ