• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৪৬ অপরাহ্ন |

কাহারোলে চলছে অশ্লীল নৃত্য ও জুয়ার আসর

jatraদিনাজপুর প্রতিনিধি: জেলার কাহারোল উপজেলায় ইনডোর গেম এবং কালচারাল প্রোগ্রামের নামে চলছে অশ্লীল নৃত্যু, হাউজি, জুয়া ও লটারির জমজমাট আসর।
দিনাজপুর-বীরগঞ্জ মহাসড়ক সংলগ্ন কাহারোল উপজেলার রামপুর বটতলী বাজার এলাকায় বিশাল সুসজ্জিত প্যান্ডেলে ‘মহামান্য হাইকোর্ট অনুমোদিত-বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা ওয়েলফেয়ার ক্লাবের সৌজন্যে বিভিন্ন রকম ইনডোর গেম এবং কালচারাল প্রোগ্রাম চলিতেছে’ লেখা বিশাল ব্যানার দেখা গেছে। কিন্তু এখানে ইনডোর গেম এবং কালচারাল প্রোগ্রামের নামে চলছে যাত্রায় অশ্লীল নাচ, হাউজি, জুয়া ও লটারির জমজমাট আসর।
মেলার পাশেই রয়েছে, মাজার, মসজিদ ও মাদরাসা। এরপর চলছে এসএসসি পরীক্ষা। এ অবস্থায় কোনো মেলায় চিত্ত বিনোদনের নামে এসব অসামাজিক কর্মকান্ডে বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে এলাকাবাসী। তারা এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ চেয়ে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। কিন্তু প্রশাসন এলআর ফান্ডে উৎকোচ নিয়ে তা দেখেও না দেখার ভান করছে। এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর।
বাংলাদেশের আদি সংস্কৃতি যাত্রাগানের নামে চলছে এসব অশ্লীল নাচ। এতে নৈতিক অধঃপতন ঘটছে কিশোর ও যুবসমাজের। অবৈধ হাউজি, জুয়া ও লটারিতে নিঃস্ব হচ্ছে সাধারণ মানুষ। এ ব্যাপারে জেলা পুলিশ সুপার রুহুল আমিন সাংবাদিকদের জানান, আমিও অভিযোগ পেয়েছি। কিন্তু বিষয়টি জেলা প্রশাসকের আয়ত্বে রয়েছে। তিনি চাইলে আমি আধা ঘণ্টার মধ্যে স ভেঙে দেব।
স্থানীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে জানান, এ ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ আমার এলাকায় কোথাও প্রদর্শিত হোক এটা আমি চাইনা। কিন্তু তারা হাইকোর্টের আদেশ বলে এসব চালাচ্ছে বলে তারা জানিয়েছে। যদিও মহামান্য হাইকোর্ট এমন কোনো অসামাজিক কার্যকলাপের অনুমতি দিতে পারে বলে আমি বিশ্বাস করিনা। এ বিষয়ে আমি স্থানীয় জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সঙ্গে কথা বলেছি। প্রশাসন এ ব্যাপারে ব্যবস্থা না নিলে দু’এক দিনের মধ্যে আমি নিজেই স্থানীয় জনগণকে সাথে নিয়ে তা উচ্ছেদ করবো।
সংসদ সদস্য গোপাল আরও জানান, সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হচ্ছে, কাহারোল উপজেলার রামপুর বটতলী বাজার সংলগ্ন ওই জায়গাটা যার, ওই জায়গার মালিকও জানেন না এ ধরনের অসামাজিক কার্যকলাপ চলছে। এগুলোকে মেনে নেয়া যায় না। এসএসসি পরীক্ষা চলছে। এটাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় ক্রাইম বেড়ে যাচ্ছে। যদি প্রশাসন আইনগত ব্যবস্থা না নেয়, তাহলে মানুষের ওপরে তো কোনো আইন নেই। জনগণই এটার ব্যবস্থা করবে।
ঐতিহ্যবাহী যাত্রাশিল্পে অপসংস্কৃতি অনুপ্রবেশের কথা স্বীকার করেছেন দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক বলেন, ‘যাত্রার অনুমতি আমরা দিতে পারি। কিন্তু কোনো অসামাজিক কার্যকলাপ, জুয়া, হাউজি ও লটারির অনুমোদন  দেয়ার অধিকার আমাদের নাই। কিন্তু কোনো কোনো দুষ্ট লোক যাত্রার অনুমতি নিয়ে গিয়ে ওখানে নানা রকম অসামাজিক কার্যকলাপসহ অন্যায় কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। আগে এ ধরনের কোনো অভিযোগ পেলেই আমার তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছি। এক্ষেত্রে এমন ঘটনা ঘটে থাকলে আমরা ব্যবস্থা নিবো।’
ইনডোর গেম এবং কালচারাল প্রোগ্রামের নামে এ ধরনের মেলার আয়োজক তোফাজ্জলের সঙ্গে এ বিষয়ে সরজমিনে গিয়ে যোগাযোগ চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। মুঠোফোনে তার সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। তিনি বিষয়টি সম্পর্কে সরাসরি এসে বলতে চেয়ে পরে আর আসেননি। দেখাতে পারেনি অনুমোদনের কোনো বৈধ কাগজপত্র। প্রশাসন ও স্থানীয় সচেতন সমাজ এ ধরনের মেলা বন্ধ করে এলাকার যুবসমাজকে রক্ষা করবেন এটাই সবার প্রত্যাশা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ