• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫২ পূর্বাহ্ন |

বীরগঞ্জে পালিয়ে বেড়াছে আলু চাষীরা

05.02.14 ALU 2মীর কাসেম লালু, বীরগঞ্জ (দিনাজপুর): বীরগঞ্জে আলু চাষীদের রাতের ঘুম কেড়ে নিয়েছে আলূর উপর নেয়া এনজিওর  ঋন। ঋনের বোঝা মাথায়  নিয়ে বাড়ী ছাড়া অনেক কৃষক।
বীরগঞ্জে আলুর ন্যায্য মূল্যের দাবিতে পৌরসভার মুক্তিযোদ্ধা নাম ফলক চত্বরের সামনে দিনাজপুর-পঞ্জগড় মহাসড়ক অবরোধ করে চাষীরা আলু ফেলে প্রতিবাদ করায়, সারা দেশে আলোচনা ঝড় উঠেছিল, আলোচনা হয়েছিল জাতীয় সংসদে। চাষিরা তাদের কষ্টের কথা সংসদ পযন্ত পৌছাতে পেরেছিল। কিন্ত তারপরও সরকার চাষীদের জন্য এক পা এগিয়ে আসেনি, নেয়নি কোন সঠিক কোন পদক্ষেপ। অশ্র“সজল চোখে উপরোক্ত কষ্টের কথাগুলো বললেন মাহানপুর গ্রামের তরুন উদ্যেমি কৃষক মোঃ খয়রুল ইসলাম । ফলে নিঃস্ব হয়ে পথে বসেছে অনেক চাষী। এখন তাদের দিনকাল ভালো নেই। কারণ মাথার উপর ঝুলছে ঋণের বোঝা। বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে আলু চাষ করেছিল অনেক প্রান্তিক ও বর্গা চাষী। আলু চাষ করে ক্ষতিগ্রস্থ হয়ে এখন তারা সর্বশান্ত। স্বপ্ন ভঙ্গ হওয়া আলু চাষীদের চোখে মুখে ফুটে উঠেছে করুন আর্তনাদের চিত্র। তাদের উৎপাদিত ফসল বিক্রয় করতে হচ্ছে মাত্র ১টাকা কেজি দরে। তারা এনজিওর  ঋণের টাকার বদলে আলু দিতে চাইলে এন জিওর লোকেরা বলে আমাদের আলুর দরকার নেই, আমাদের টাকার বদলে টাকা চাই।
সোমবার উপজেলার সুজালপুর ইউনিয়নের জগদল গ্রামের আব্দুল মজিদের পুত্র আলু চাষী লিটন সরকার আক্ষেপ করে জানালেন, অনেক স্বপ্ন নিয়ে এনজিও হতে ৬০ হাজার টাকা ঋণ গ্রহণ করে ৩ একর জমিতে আলু চাষ করেছিলাম। ৩ একর জমিতে সার, বীজ, কীটনাশক ও কৃষি শ্রমিকের মজুরী সহ খরচ হয়েছে ৫৫হাজার ২শত টাকা। কিন্তু ১টাকা  কেজি দরে  আলু বিক্রয় করে পেয়েছি মাত্র ৪০ হাজার টাকা। লাভতো দুরের কথা ঋণের টাকাই অর্ধেক নেই । পুঁজি হারিয় এখন ঋণ পরিশোধ করার ভয়ে এখন নিজেকে অনেকটা আড়াল করে রেখেছি।
একই অবস্থা সুজালপুর ইউনিয়নের শীতলাই গ্রামের আব্দুল বাসেদ মাষ্টারের  পুত্র এরশাদুল হকের। তিনিও এনজিও হতে ৯০হাজার টাকা ঋণ নিয়ে ৪একর জমিতে আলু চাষ করেছিলেন। কিন্তু আলুর দাম না থাকায় ক্ষেতেই ফেলে রাখায় নষ্ট হয়ে গেছে সিংহ ভাগ আলু। তিনি এখন পুঁজি হারিয়ে সর্বশান্ত। সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখা গেছে উপজেলার অনেক কৃষকের দুরাবস্তার এমন কাহিনী।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় ৬ হাজার ৬ শত ২০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদের লক্ষ্য মাত্রা ছিল। উৎপাদনের লক্ষ্য মাত্রা ছিল ১ লক্ষ ৩০ হাজার ১ শত ৪৫ মেট্রিক.টন। আলুর মোট আবাদ হয়েছে ১০হাজার ১ শত ২০ হেক্টর জমিতে। এবার ফলন ভালো হওয়ায় ১ লক্ষ ৯৮হাজার ৩ শত ৫২ মে.টন আলু উৎপাদন হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন কৃষি বিভাগ। আলু সংরক্ষণের জন্য উপজেলার সুজালপুর ইউনিয়নের হাবলু হাটে ৮ হাজার মে.টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন শাহী হিমাগার, চাকাই গ্রামে ৮ হাজার ৮ শত মে.টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন হিমাদ্রি লিমিটেড, সাতোর ইউনিয়নের দলুয়া গ্রামে ৭ হাজার ৫ শত মে.টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন শাহী হিমাগার, ভোগনগর ইউনিয়নের বটতলী গ্রামে ১১ হাজার মে.টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন রাহবার হিমাগারসহ মোট ৪ হিমাগার রয়েছে।
উপজেলা কৃষি অফিসার নিখিল চন্দ্র বিশ্বাস জানান, উপজেলায় এবার রেকর্ড পরিমান আলু চাষ বৃদ্ধি পেয়েছে। ছাড়িয়ে গেছে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা। আলু নিয়ে জাতীয় সংসদে আলোচনা হয়েছে । মাননীয় কৃষি মন্ত্রী এ ব্যাপারে বেশ তৎপর রয়েছেন। অচিরেই ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের বিষয়ে সরকার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন মত প্রকাশ করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ