• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১৭ পূর্বাহ্ন |

সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামে নেতৃত্ব নিয়ে দ্বন্দ্ব চরমে : অর্থ ভাগাভাগি ও আধিপত্য বিস্তার মূল কারণ

Fredomসিসি নিউজ: যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে গঠিত বিতর্কিত সংগঠন সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের নেতৃত্ব নিয়ে চরম দ্বন্দ্ব শুরু হয়েছে। ফোরামটিতে কেউ কাউকে মানতে চাচ্ছেন না।
মাল্টিলেভেল কোম্পানি ডেসটিনির সঙ্গে আর্থিক কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়া ফোরামের সাবেক মহাসচিব হারুনুর রশীদের আবার ফোরামে ফেরা এবং শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়া ফোরামের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক পরিকল্পনামন্ত্রী এ কে খন্দকারকে অব্যাহতি দেয়াকে কেন্দ্র করে এ দ্বন্দ্ব শুরু হয়েছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।
জানা গেছে, যুদ্ধাপরাধের বিচার নিয়ে দেশ ও বিদেশে প্রচারণায় সরকারি ও একটি পার্শ্ববর্তী দেশের বরাদ্দের টাকার ভাগবাটোয়ারা নিয়ে দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েছে ফোরামটি। এছাড়া আধিপত্য নিয়ে আওয়ামী এবং বামদের মধ্যেও ঠাণ্ডা লড়াই চলছে।
এ ব্যাপারে ফোরামের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে ঊর্ধ্বতন কেউই আমার দেশ-এর সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি।
তবে সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের ঢাকা বিভাগীয় চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য প্রফেসর আবুল কালাম আজাদ পাটোয়ারী জানান, ‘নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকতে পারে। তবে আমাদের মধ্যে কোনো বিভেদ নেই।
তিনি বলেন, ফোরামের কিছু লোক নাম ভাঙিয়ে ফায়দা হাসিলের চেষ্টা করছেন। এটি ফোরামের জন্য কল্যাণকর হতে পারে না।
সংগঠনের অর্থের উত্স সমন্ধে জানতে চাইলে তিনি জানান, ‘আমরা সবাই চাঁদা দিয়ে ফোরাম চালাই। অনেক দেনদরবার করেও তিনি এ প্রতিবেদককে এর বেশি কিছু আর বলতে রাজি হয়নি।
ফোরামটির বর্তমান কার্যালয় রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালের পিছনে রোড নম্বর ৪/এ, বাড়ি নম্বর ১১।
২০০৭ সালে সেনা সমর্থিত মইন-ফখরুদ্দীন সরকারের আমলে নির্বাচন কমিশনে বাংলাদেশ জামায়াতের ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মুজাহিদ যুদ্ধাপরাধীর বিষয়ে সাংবাদিকদের কাছে একটি বক্তব্য দেন। অভিযোগ আছে, ওই কথার সূত্র ধরে আওয়ামী লীগের ইন্ধনে ও পার্শ্ববর্তী একটি দেশের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সহযোগিতায় গঠন করা হয় সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম।
মুক্তিযুদ্ধকালে সশস্ত্র বাহিনীর সর্বাধিনায়ক, উপ-সর্বাধিনায়ক এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত ১১টি সেক্টরের ১৮ জনসহ ২১ শীর্ষ কমান্ডারের মধ্যে মাত্র ৪ জনকে নিয়ে চলছে এই ফোরাম। বর্তমান ফোরামের মহাসচিব হারুন হাবিব সেক্টর কমান্ডার তো দূরের কথা, তিনি কোনো সেক্টরে মুক্তিযুদ্ধ করেছেন তা ফোরামটির নেতাকর্মীরাই বলতে পারেননি। সাবেক মহাসচিব হারুনুর রশিদও সেক্টর কমান্ডার ছিলেন না। এছাড়াও মুক্তিযুদ্ধকালে সাব-সেক্টরের প্রায় ৭০ জন কমান্ডার এবং কয়েকজন গেরিলা কমান্ডারসহ সব মিলিয়ে প্রায় ১০০ জন মুক্তিযুদ্ধকালে কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করেন। এই চারজন সেক্টর কমান্ডার বাদে বর্তমান যারা এ কমিটিতে আছেন তারা কেউই ওইসব দায়িত্ব পালন করেনি।
আওয়ামী লীগ নেতা ও মহাজোট সরকারের সাবেক পরিকল্পনামন্ত্রী এবং সেক্টর কমান্ডার এ.কে খন্দকারকে সভাপতি করে ৬ সদস্যবিশিষ্ট এই ফোরামের কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন সাবেক সেনাপ্রধান কেএম সফিউল্লাহ, বিএনপির ভিন্ন মতাবলম্বী বলে পরিচিত লে. জে. মীর শওকত আলী, লে. জে. কাজী নুরুজ্জামান, মেজর রফিক বীর উত্তম এবং লে. কর্নেল আবু ওসমান চৌধুরী।
এদের মধ্যে মীর শওকত আলী ও কাজী নুরুজ্জামান ইন্তেকাল করেছেন। এখন মাত্র ৪ জন সেক্টর কমান্ডার এই সংগঠনে রয়েছেন। কয়েকজন সেক্টর কমান্ডার জীবিত থাকলেও তারা আওয়ামী লীগের আজ্ঞাবহ হওয়ার অভিযোগে এই সংগঠনের সঙ্গে যোগ দেননি। তাদের সংগঠনে যোগ না দেয়ার কারণে ওই সব সেক্টর কমান্ডার্স সদস্যদের তারা রাজাকার বলতে দ্বিধা করেননি।
ফোরামটি গঠন হওয়ার পরেই রাজধানীর রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে এক সভায় বাংলাদেশের শীর্ষ ৫০ জন যুদ্ধাপরাধীদের নামের তালিকা প্রকাশ করেন। তাদের নামের তালিকা প্রকাশ নিয়ে দেশের অনেক সংগঠন বিভিন্ন মন্তব্য করেছিল। ওই তালিকায় বিএনপির, জামায়াত, মুসলিম লীগ ও নেজামী ইসলামী নেতাকর্মীদের নাম ছিল। কিন্তু আওয়ামী লীগের মধ্যে থাকা ১৯৭১ সালে মানবতাবিরোধী অপরাধের সঙ্গে জড়িত কারো নাম ছিল না। তখন থেকেই সংগঠনটি বিতর্কিত সংগঠনে পরিণত হয়।
তাদের কর্মকাণ্ড নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা করেছিলেন সেক্টর কমান্ডার ও বিএনপির সাবেক নেতা হামিদুল্লাহ খান। তিনি ২০০৮ সালে একটি বাংলা দৈনিককে সাক্ষাত্কারে বলেছিলেন, ‘এই ফোরাম ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা র’র এজেন্ডা বাস্তবায়নকারী। জাতীয়তাবাদী ও ইসলামী রাজনীতিকে ধ্বংসের জন্য এ ফোরাম গঠন করা হয়েছে।’
জানা গেছে, ফোরামের চেয়ারম্যান পদে আছেন আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক পরিকল্পনামন্ত্রী এ কে খন্দকার ও মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করছেন হারুন হাবিব। এছাড়াও সহ-সভাপতি কে এম সফিউল্লাহ, সহ-সভাপতি সি আর দত্ত, কেন্দ্রীয় ভাইস প্রেসিডেন্ট ডা. সারোয়ার আলী, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদুর রহমান, ফোরামের ঢাকা বিভাগীয় সভাপতি ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য আবুল কালাম আজাদ পাটোয়ারী, ঢাকা বিভাগীয় ভাইস চেয়ারম্যান হাসিনাদ্দৌলা, নারী বিষয়ক সদস্য বুলবুল মহালনবিশ, তথ্য ও প্রচার সম্পাদক অ্যাডভোকেট কেয়া চৌধুরী ও সদস্য জিয়াউল হাসান।
এছাড়াও ফোরামের কোনো সভা সেমিনার হলে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির ও নাসির উদ্দীন ইউসুফ ও ম. হামিদ উপস্থিত থাকেন। তারা সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামে অন্তর্ভুক্ত হতে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে। কিন্তু তাদের ফোরামে নেয়া নিয়ে দ্বন্দ্ব শুরু হয়েছে বলে সূত্র জানায়।
নাম প্রকাশ করতে অনিচ্ছুক ফোরামের এক নেতা দৈনিক আমার দেশকে জানান, ফোরামের একটি পক্ষ বর্তমান চেয়ারম্যান একে খন্দকারকে অব্যাহতি দিতে চাচ্ছেন। কারণ, তিনি শারীরিকভাবে অসুস্থ। তার অসুস্থতার কারণে ফোরামের নামকাওয়াস্তে যেসব কর্মসূচি হয়ে থাকে তিনি সেখানে উপস্থিত হতে পারেন না। কিন্তু অন্যপক্ষের দাবি, তিনি চেয়ারম্যান পদ থেকে চলে গেলে ফোরামের অস্তিত্ব সংকটের মধ্যে পড়বে। এদিকে ফোরামের সাবেক মহাসচিব হারুনুর রশিদ সংগঠনে আবার ফিরতে চাচ্ছেন। কিন্তু একটি পক্ষ তাকেও এ মুহূর্তে আসতে দিতে চাচ্ছে না।
তিনি বর্তমানে ডেসটিনির আর্থিক কেলেঙ্কারির সঙ্গে জড়িত হয়ে ফোরামের সম্মান নষ্ট করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। বাংলাদেশে হারুনুর রশিদই দ্বিতীয় সেনাপ্রধান, যিনি এরশাদের পর আর্থিক কেলেঙ্কারির জন্য কারাগারে গেছেন।
আবার এক সময়ের ছাত্র ইউনিয়ন করা বর্তমান ফোরামের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব হারুন হাবিবকে ফোরামে রাখতে নারাজ ঢাকা বিভাগীয় কমান্ডার আবুল কালাম আজাদ পাটোয়ারীর গ্রুপটি। একে খন্দকার ফোরামের অনেক সদস্যের মতামত উপেক্ষা করে হারুন হাবিবকে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব করেছেন। ফোরামের অধিকাংশ সদস্য ঢাকা বিভাগীয় চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ পাটোয়ারীকে মহাসচিব করতে সম্মতি দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি করেননি। এ নিয়ে ফোরামের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।
আবুল কালাম আজাদ পাটোয়ারীর সমর্থকরা বর্তমানে শক্তিশালী অবস্থানে আছেন। কট্টর আওয়ামীপন্থী ও মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তিনি ফোরামে বেশি সুবিধা পেয়ে থাকেন। এতে নেতৃত্ব নিয়ে ফোরামে ত্রিমুখী লড়াই শুরু হয়েছে। ফলে এখন কেউ কাউকে মানতে চাচ্ছেন না। নেতৃত্ব নিয়ে সংকট চলার কারণে ফোরামে কার্যক্রম স্তিমিত হয়ে পড়ছে।
নেতৃত্বে টিকে থাকার জন্য অনেকে আওয়ামী লীগের উচ্চপর্যায়ে ইতিমধ্যে লবিং শুরু করেছেন। সংগঠনটি তার অস্তিত্ব টিকে রাখতে মাঝে মাঝে জাতীয় প্রেস ক্লাব ও ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সভা সেমিনার করে থাকে। গত কয়েক মাস আগে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ফোরামের পক্ষ থেকে একটি সভা করা হয়। সভায় যুদ্ধাপরাধের ব্যাপারে দেশবাপী প্রচার ও প্রচারণার জন্য সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামকে অর্থ বরাদ্দের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।
জানা গেছে, ফোরামে প্রভাব বজায় রাখার জন্য বর্তমানে কট্টর আওয়ামী লীগ ও বামরা চেষ্টা করছেন। কেউ কাউকে ছাড় দিতে নারাজ। চেয়ারম্যান শুধু আওয়ামী লীগের নেতা হওয়ার কারণে ফোরামে যেন বামদের প্রভাব না থাকে এজন্য কঠোর সতর্কতা অবলম্বন করে চলতেন। কিন্তু ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব হারুন হাবিব আওয়ামী লীগ ও বামদের সঙ্গে যোগাযোগ করে দু’কূল রক্ষা করেন। এতে ফোরামে আওয়ামী লীগ ও বামদের মধ্যে ঠাণ্ডা লড়াই শুরু হয়েছে।
জানা গেছে, ২০০৯ সালে মহাজোট সরকার গঠন করার পর মানবতা বিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য ১০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। তার মধ্যে দেশ ও বিদেশে মানবতা বিরোধী বিচারের প্রচার ও প্রচারণার জন্য সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামকে ২ কোটি টাকা দেয়া হয়েছিল। ওই টাকার মধ্যে ৩০ লাখ টাকার হিসাব দিতে পারেনি সাবেক মহাসচিব হারুনুর রশীদ।
অভিযোগ রয়েছে, তিনি ওই টাকা নিজের ব্যক্তিগত কাজে খরচ করেছেন এবং তার একটি অংশ বর্তমান ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবকে অফিস বরাদ্দের জন্য দিয়েছেন। আবার পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে যে টাকা আসে তার ভাগবাটোয়ারা নিয়েও দ্বন্দ্ব চলছে।
এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা (বীর উত্তম খেতাবপ্রাপ্ত) মঙ্গলবার আমার দেশকে জানান, তাদের বিরুদ্ধে (সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম) কথা বললেই তো যে কেউ রাজাকার হয়ে যায়। ওই ফোরামে আছেন বর্তমানে ৪ জন সেক্টর কমান্ডার। এটা কোন সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম না। তারা আওয়ামী লীগের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছেন।
তিনি আরো অভিযোগ করেন, আজকের জামায়াতে ইসলামী যখন ৯১ সালে আওয়ামী লীগের সঙ্গে তত্ত্বাবধায়কের জন্য আন্দোলন করছিল তখন তারা রাজাকার ছিল না। এখন বিএনপির সঙ্গে জামায়াত আছে বলে তারা এখন রাজাকার। তাদের কূটকৌশল দেশের মানুষ জেনে গেছে। তাদের এই দ্বিমুখী নীতি দেশের মানুষ প্রত্যাখ্যান করেছে। উৎসঃ   আমার দেশ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ