• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:০১ পূর্বাহ্ন |

তিন জেলায় রোববার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল

Hortal-2সিসি ডেস্ক: ভোটকেন্দ্র দখল করে এজেন্টদের বের করে দেয়া ও কারচুপির অভিযোগে বরিশাল, কক্সবাজার ও ফেনী জেলায় আগামী ২ মার্চ রোববার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে বিএনপি।
বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দফা ভোটগ্রহণ চলাকালে স্ব স্ব জেলা বিএনপি নেতারা হরতালের ঘোষণা দিয়েছেন।  কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলাকালে কেন্দ্র দখল ও চকরিয়া পৌরসভার প্যানেল মেয়রকে আহত করার প্রতিবাদে কক্সবাজার জেলায় আগামী রোববার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে বিএনপি। বৃহস্পতিবার বিকেলে চকরিয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও পৌর মেয়র হায়দার আলী হরতাল পালনের ঘোষণা দিয়েছেন। তিনি অভিযোগ করেন, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা চকরিয়ার ২০টি ভোটকেন্দ্র দখলে নিয়ে কেন্দ্র থেকে বের করে দিয়েছে বিএনপির এজেন্টদের। পরে তারা দলীয় প্রার্থীদের পক্ষে জোর করে ব্যালট পেপারে সিল মেরেছে। এছাড়া হামলাকারীরা চকরিয়ার প্যানেল মেয়র ফোরকান আলীর ওপর হামলা চালিয়ে তাকে আহত করেছে। এসব ঘটনার প্রতিবাদে আগামী ২ মার্চ রোববার কক্সবাজার জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালনের ঘোষণা দিয়েছে উপজেলা বিএনপি।

বরিশালে সদর উপজেলায় ভোটকেন্দ্র দখল ও কারচুপির অভিযোগে নির্বাচন বর্জন করেছে বিএনপি। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে সদর উপজেলা কাউনিয়ার নিজ বাসভবনের সংবাদ সম্মেলন করে এ ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার। এ সময় এর প্রতিবাদে তিনি রোববার সকাল সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ঘোষণা দেন।

অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ার আরও জানান, ভোট কারচুপি কেন্দ্র দখলের প্রতিবাদে উপজেলার ১৯ দলের নেতাকর্মীরা রোববার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালন করবেন।অপরদিকে সংবাদ সম্মেলন করে ফেনী সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী অ্যাড. সৈয়দ মিজানুর রহমান ও পরশুরামে বিএনপি সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আবু তালেব নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছেন। নির্বাচন বাতিল ও পুনরায় নির্বাচন দেয়ার দাবিতে রোববার ফেনীতে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডাক দিয়েছে অ্যাড. সৈয়দ মিজানুর রহমান। সদর উপজেলায় ধলিয়ায় জাল ভোট না দেয়ায় মুজিবুর রহমান নামে এক কিশোরকে পিটিয়ে আহত, একই ইউনিয়নের বিএনপি সমর্থিত ইউপি সদস্য বাহার উদ্দিনের মা জরিনা খাতুনকে (৭৫) মারধর করে স্থানীয় যুবলীগ কর্মী।  কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, সরকার দলীয় প্রার্থীরা প্রিজাইডিং অফিসারদের জিম্মি করে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নিয়েছে। বেশিরভাগ কেন্দ্রে ভোটারদের উপস্থিতি দেখা যায়নি। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের অভিযোগ দুই উপজেলার বিভিন্ন কেন্দ্রে  ১৯ দলীয় প্রার্থীর এজেন্ট ও ভোটারদের কেন্দ্রে ঢুকতে দেয়া হয়নি। নির্বাচনের আগের দিন রাত থেকে পুরো দুই উপজেলায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে সরকার দল। পরশুরাম উপজেলার সবকটি কেন্দ্রে ১১টার মধ্যে দখলে নেয় সরকার দলীয় প্রার্থীরা। ১৯ দলীয় ভোটারদের কেন্দ্রে ঢুকতে দেয়া হয়নি। সদর উপজেলায় ফতেহপুর কেন্দ্রে বিএনপি এজেন্ট আবুল বাশারকে মারধর করে আওয়ামী লীগ কর্মীরা। সেখানে ৬০০ ব্যালট ছিনতাই করেছে দুর্বৃত্তরা। দেড়ঘণ্টা ভোট বন্ধ রাখা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ