• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫১ পূর্বাহ্ন |

জামায়াতের অর্থের উৎস খুঁজতে টাস্কফোর্স গঠন করছে সরকার!

Jamatসিসি নিউজ: জঙ্গি মদতদাতা জামায়াতে ইসলামীর অর্থের উৎস খুঁজতে একটি টাস্কফোর্স গঠন করছে সরকার। এ টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব খুব শিগগিরই মন্ত্রিসভায় পাঠানো হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির প্রথম বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়েছে বলে সভাসূত্রে জানা গেছে।
সভায় আইজিপি বলেন, ‘জামায়াত জঙ্গি অপতৎপরতায় অর্থের জোগান দিচ্ছে। এ কারণে জামায়াতের অর্থের উৎস খোঁজা দরকার। এটা করতে হলে টাস্কফোর্স গঠন করা প্রয়োজন। এতে বাংলাদেশ ব্যাংক, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধি থাকবে। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ দমনে জামায়াতের অর্থায়নের বিষয়টি সরকারের নজরে রাখতে হবে।’
সূত্র জানায়, সভায় টাস্কফোর্স গঠনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। যেহেতু টাস্কফোর্স গঠন করতে মন্ত্রিসভার অনুমোদন নিতে হয়। এ জন্য মন্ত্রিসভায় দ্রুত প্রস্তাব পাঠাতে বলা হয়েছে। অবৈধ অর্থের উৎসের জোগান খুঁজে বের করতে বলা হয়েছে।
স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘ঢাকা মেডিকেল কলেজসহ সরকারি হাসপাতাল সংলগ্ন বহু অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠেছে। এসব স্থাপনা বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকের দালালদের দখলে রয়েছে। এরা হাসপাতাল থেকে রোগীদের বিভ্রান্ত করে ক্লিনিকে নিচ্ছে, হাসপাতালের ওষুধ, সরঞ্জামাদি নিচ্ছে। আমরা হাসপাতালের পাশে কোনো অবৈধ স্থাপনা রাখতে চাই না।’ আইজিপির উদ্দেশে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের জন্য আপনি শুধু পুলিশ দেবেন। কোনো রাজনৈতিক বা ট্রেড ইউনিয়নগত চাপ এলে সেটা আমি সামাল দেব।’ হাসপাতালগুলোকে দালাল মুক্ত রাখতে হবে।’ এছাড়া ইপিজেডে শ্রমিকদের ট্রেড ইউনিয়ন করার বিষয়টি নিয়ে সভায় আলোচনা হয়। এ সময় বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘ইপিজেডের শ্রমিকরা ট্রেড ইউনিয়ন করতে পারবে না, এমন নিশ্চয়তা পেয়েই বিদেশিরা সেখানে বিনিয়োগ করেছে। সেই শর্তভঙ্গ করে এ সুযোগ দেয়া যাবে না।’
ইপিজেডে ট্রেড ইউনিয়ন করার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের অব্যাহত চাপের প্রসঙ্গটি তোলেন এক মন্ত্রী। এর জবাবে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘বিদেশিদের সব চাপ তো আমলে নেয়া যাবে না। তারা বলেছিল নির্বাচন করা যাবে না। তাই বলে আমাদের নির্বাচন ঠেকে থাকেনি।’ তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র নিজের দেশে শ্রমিকদেরই ট্রেড ইউনিয়ন করার সুযোগ দেয় না। অথচ তারা এ ব্যাপারে আমাদের পরামর্শ দেয়। সব কিছু আমলে নেয়া যাবে না। তবে শ্রমিকদের স্বার্থের দিকে আমাদের নজর রাখতে হবে।’ এছাড়াও সভায় জেএমবির মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ৩ আসামি ছিনতাইয়ের ঘটনাটি আলোচনায় এসেছে। এ ক্ষেত্রে কোনো দুর্বলতা থাকলে তা খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেন বাণিজ্যমন্ত্রী।
এদিকে ধর্মের নামে যারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে, তাদের উৎস খুঁজে বের করতে তৎপরতা চালানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এছাড়া ছিনতাই হওয়া জঙ্গিদের ধরতে জোরালো পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানানো হয়েছে। সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আইন-শৃঙ্খলা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভা শেষে কমিটির সভাপতি শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু সাংবাদিকদের এ সব কথা জানান।
শিল্পমন্ত্রী বলেন, ‘সন্ত্রাসী কার্যক্রম, বিশেষ করে ধর্মকে ব্যবহার করে যারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে, তাদের বিভিন্ন রকম উৎস খুঁজে বের করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এছাড়া সংখ্যালঘুদের ওপর যাতে হামলা না হয়, সে ব্যাপারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা চালানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।’
শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমুর সভাপতিত্বে বৈঠকে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, নৌ-মন্ত্রী শাজাহান খান, পানিসম্পদ মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব সি কিউ কে মুসতাক আহমেদ ও আইজিপি হাসান মাহমুদ খন্দকারসহ বিভিন্ন সংস্থার প্রধানরা ছিলেন। উৎসঃ   মানবকন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ