• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৬:১৮ পূর্বাহ্ন |

ঢাল নেই তলোয়ার নেই নিধিরাম সর্দার

Election Picসিসি ডেস্ক: দেশের প্রধান দুটি রাজনৈতিক দলই উপজেলা নির্বাচনের আগে স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করার অঙ্গিকার করেছিলেন। কিন্তু দুটি দলই সংসদে একযোগে উপজেলা চেয়ারম্যানদের ক্ষমতা হরণ করেছেন। আবার অনেকদিন পর দুটি দলই উপজেলা নির্বাচনে ঝাঁপিয়ে পরেছেন। সেই সাথে ঝাঁপিয়ে পড়েছে দেশের উপজেলা প্রার্থীরাও। এবারও ঘাম ঝড়াচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যানরা। মার খাচ্ছেন, মার দিচ্ছেন। আহত হচ্ছেন সাংবাদিক, পুলিশ, নেতাকর্মী। সকল ক্যাজুয়ালিটি বহন করছে জনগন।
সবকিছু মিলিয়ে উপজেলা চেয়ারম্যানদের জন্য একটি উপমা খুবই প্রযোজ্য, ‘ঢাল নেই তলোয়ার নেই নিধিরাম সর্দার’। ইতিমধ্যে দেশে খুব ঘটা করে পালিত হলো উপজেলা নির্বাচনের দুইটি ধাপ। প্রধান দুই রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা ক্ষমতা প্রদর্শন আর জনসমর্থন যাচাই করতে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। নির্বাচনকে ঘিরে ভোটকেন্দ্র দখল, প্রতিপক্ষকে মারধরের দৃষ্টান্ত স্থাপন হয়েছে প্রচুর। হতাহতের ঘটনাও ঘটেছে। কিন্তু এত আয়োজনের পেছনে যেই কারন অর্থাৎ স্থানীয় সরকার পদ্ধতি বা¯ত্মবায়ন ও স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করা, সেইটা কি আদৌ হচ্ছে?
১৯৮২ সালে উপজেলা পরিষদ প্রতিষ্ঠিত হয়ে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত কার্যকর ছিল। পরে ১৯৯৮ সালে আইনের মাধ্যমে উপজেলা পরিষদ পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হলেও কার্যকরভাবে দ্বিতীয়বার যাত্রা শুরু করে ২০০৯ সালে। প্রায় ১৮ বছর পরে ২০০৯ সালে উপজেলা নির্বাচন হয়। এরশাদ সরকার উপজেলা পরিষদ প্রবর্তনের প্রথম পর্যায় থেকে উপজেলা পরিষদের সব সরকারি কর্মকর্তার এসিআর (বার্ষিক মূল্যায়ন প্রতিবেদন) দিতেন উপজেলা চেয়ারম্যান। ২০০৯ সালের ২২ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে আইন সংশোধন করে স্থানীয় সংসদ সদস্যকে উপজেলা পরিষদের উপদেষ্টা করা হয়। এতে খর্ব হয় উপজেলা পরিষদের ক্ষমতা। মজার কথা হচ্ছে এই আইন পাসের সময় সংসদে সরকার ও বিরোধী দলের সদস্যরা কন্ঠভোটে একযোগে এই আইন পাস করেন।
এরপর থেকেই ক্ষমতা নিয়ে সংসদ সদস্য ও উপজেলা চেয়ারম্যানদের মধ্যে শুরু হয় দ্বন্দ্ব। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) করা হয় উপজেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী। এসব কারণে উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানরা চরমভাবে ক্ষুব্ধ হন। পরে আইন কিছুটা সংশোধন করা হলেও কার্যত উপজেলা পরিষদকে কোনো ক্ষমতা দেওয়া হয়নি। স্থানীয় সরকারের কার্যক্রমে উপজেলা পরিষদের প্রতিনিধি ও ইউনিয়ন পরিষদ কর্মকর্তাদের মূল ভূমিকা পালন করার কথা থাকলেও কার্যত সর্বময় ক্ষমতা ভোগ করছেন সংসদ সদস্যরা।
উপজেলা পরিষদের ১৪টি স্থায়ী কমিটির একটিতেও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানরা সভাপতিত্ব করতে পারেন না। এমপি এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদাধিকার বলে এসব কমিটিতে সভাপতিত্ব করেন। বর্তমানে ১৭টি কমিটি করা হলেও এসব কমিটিতে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা ঠুটো জগন্নাথ হিসেবে থাকেন। এছাড়া হস্তান্তরিত অধিকাংশ কমিটিগুলোর সভাপতিও ইউএনও। আর ইউএনও তো এমপিদের ঘাড়ে ভর করে চলেন। এভাবে স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা শক্তিশালী করণের কোন প্রতিশ্রুতিই বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়।
আইন অনুযায়ী সরকারি মোট ১৭টি বিভাগ ন্যস্ত হয়েছে উপজেলা পরিষদের হাতে কিন্তু বিভাগগুলোর সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে যে ১১০টি কমিটি আছে, উপজেলায় এর ৮৫টির সভাপতি ইউএনও। উপজেলার দুস্থদের ত্রাণের জন্য করা ভিজিডি কমিটি, কৃষি পুনর্বাসন কমিটির সভাপতি ইউএনওরা। স্কুলের বিদ্যোৎসাহী নিয়োগের ক্ষমতা সংসদ সদস্যদের হাতে। ভিজিডি কমিটিতে ইউএনওর মনোনীত দু’জন প্রতিনিধি থাকলেও এখানে মূলত সংসদ সদস্যদের কাছের লোকই নিয়োগ পান। এসব কমিটির প্রধান হওয়ায় ইউএনওরা এসব কাজের উপকারভোগী নির্ধারণ করার ক্ষেত্রে উপজেলা চেয়ারম্যানদের চেয়ে সংসদ সদস্যদের মতামতকেই প্রাধান্য দেন।
উপজেলা পরিষদ আইন অনুযায়ী, এমপিরা উপজেলা পরিষদের উপদেষ্ঠা এবং তাদের পরামর্শ নেওয়া বাধ্যতামূলক। এমপিকে না জানিয়ে উপজেলা পরিষদ সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারবে না। উপজেলা পরিষদ বৈঠকের কার্যবিবরণী এমপির কাছে পাঠাতে হবে। উপজেলা পরিষদের ১৪টি স্থায়ী কমিটির একটিতেও উপজেলা চেয়ারম্যান প্রধান হতে পারবেন না বলে বিধান রয়েছে। এছাড়া উপজেলা পরিষদ আইনটি সংবিধানের স্থানীয় সরকার সংশ্লিষ্ট ৫৯ এবং ৬০ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, এমপির অনুমোদনের ভিত্তিতে বরাদ্দ যাবে উপজেলায়।
এক উপজেলা চেযারম্যানের ভাষ্যমতে মাসে চার-পাঁচদিন উপজেলা পরিষদে উপস্থিত হলেই তাদের দাপ্তরিক কাজ শেষ হয়ে যায়। উপজেলা পর্যায় সরকারের ১৭টি বিভাগের ৭০টি কমিটির মাধ্যমে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাজ হয়। তিন্তু তাদের কাজগুলো ইউএনও এবং এমপি মিলে করে ফেলেন। কাজগুলো উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের কাছে আসেও না এবং চেয়ারম্যানের প্রয়োজনও পড়েনা। গত পাঁচ বছরে অধিক ক্ষমতায়নের দাবিতে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানরা নানা দেন-দরবার করেছেন। কিন্তু তাতে খুব একটা কাজ হয়নি। স্থানীয় সরকার বিষয়ে বিশেষজ্ঞরাও সেটা মনে করেন।
উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বড় দুই দলের জনসমর্থন, পেশিশক্তি প্রদর্শন ও শক্তি যাচাই হয়ে গেছে। নির্বাচনের ডামাডোল একসময় থেমে যাবে। উপজেলা চেয়ারম্যানরা আবারও নিষ্ক্রিয় হয়ে ঘরে ফিরে যাবেন। থেমে যাবে মাঠের ঝড়। কিন্তু থামবে না বড় দুই দলের রাজনীতি। বিডি টুডে


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ