• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৫৬ পূর্বাহ্ন |

আফগানদের কাছে বিধ্বস্ত বাংলাদেশ

AsiaCup-2014খেলাধুলা ডেস্ক: এশিয়া কাপে আফগানিস্তান খেলবে-এ কথা শোনার পর থেকে ভয়ে তটস্থ ছিলেন বাংলাদেশের ক্রিকেটারেরা! সেই ভয়ই সব কেড়ে নিলো। এশিয়া কাপে ভারতের পর আবারো হার। তবে এ হার বড় দলের সাথে শত হারের চেয়েও বেশি লজ্জার। কারণ মুশফিকদের লজ্জার কালিমা মাখা এমন হার যে অখ্যাত তথা আইসিসির সহযোগী দেশ আফগানিস্তানের সাথে। একটু প্রেসার যারা সহ্য করতে পারে না, যাদের মধ্যে আত্মবিশ্বাসের চরম অভাব। তাদের তো এমন পরাজয়ই শোভা পায়। তবে বাংলাদেশের চেয়ে শতগুণ ভালো ক্রিকেট খেলে যোগ্য দল হিসেবেই জয় পেয়েছেন যুদ্ধবিধ্বস্ত আফগানরা। এশিয়া কাপের মতো বড় কোনো আসরে প্রথম খেলতে এসেছিলেন তারা অন্তত একটি জয়ের প্রত্যাশায়।  টার্গেট ছিল বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ৩২ রানে জয় নিয়ে তাতে সফল। বাংলাদেশকে ব্যাটিং-বোলিং সব দিক দিয়ে ব্যর্থ এক দলে পরিণত করেই জয়ের অট্টহাসিতে ফেটে পড়েছে আফগানিস্তান। কারণ টেস্ট প্লেয়িং কোনো দেশের বিপক্ষে এটা তো প্রথম জয় তাদের।  আফগানিস্তানের ২৮তম ওয়ানডের মধ্যে এটা ছিল চতুর্থ টেস্ট প্লেয়িং কোনো দেশের বিপক্ষে ম্যাচ।
আসলে ব্যাট হাতে পুরোপুরি ব্যর্থ ছিলেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানেরা। শ্রীলঙ্কার সাথে ওয়ানডে সিরিজে যে বাজে পারফরম্যান্স ছিল সেটাই আবার প্রদর্শন করলেন তারা এ ম্যাচে। এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে কিছুটা গুছিয়েছিলেন তারা। কিন্তু এ ম্যাচে সেগুলো যেন ভুলে বসেন। দুই ওপেনার শামসু ও এনামুল বিজয় আফগান পেস অ্যাটাকের ভয়েই যেন তটস্থ হয়ে পড়েন। এক রানে পতন দুই উইকেটের। এরপর মুমিনুল ও মুশফিক ৬৮ রানের এক পার্টনারশিপ খেলে আশা জাগালেও এলোমেলো খেলে ব্যর্থ তারা। নবির বলে লেগ বিফোর মুশফিক। এরপর আউট হন মুমিনুল। কে ধরবেন হাল। প্রতিটা ব্যাটসম্যানের মধ্যে পরিলক্ষিত হয় চরম আত্মবিশ্বাসহীনতা। কাঁপতে কাঁপতে আউট মুমিনুলও। এরপর নাসির ও নাঈম বারবার লাইফ পেয়েও সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি। বিশেষ করে নাসির। চারবার লাইফ পেয়েও শেষ পর্যন্ত আউট ৪১ রানে। নাঈমও যে এ পর্যায়ে চলে না তার প্রমাণ দিলেন এ ম্যাচেও। পরবর্তীতে জিয়া কিছুটা মারমুখী খেলে আশা জিইয়ে রাখলেও হয়নি। লাইফ পান তিনিও। কিন্তু সেটাও কাজে লাগাতে পারেননি। ২৪ রানে আউট তিনি। মাঝে আউট হন আরাফাত সানি ও রাজ্জাক। এমন যাচ্ছেতাই ফিল্ডিং, বোলিং ও ব্যাটিং শেষে বিধ্বস্ত হলো ২২২ রানে অল আউট হয়ে নিজ দেশে, দর্শকদের সামনে।
এর আগে টসে হেরে প্রথম ব্যাটিং করার সুযোগ পেয়ে আফগানিস্তান করেছিল ২৫৪ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর। সূচনা ভালোই করেছিল বাংলাদেশ। ৬ রান থেকে উইকেট তুলে নিতে থাকলে ৯০ রানে পতন ঘটিয়েছিল ৫ উইকেটের। ওই সময় মনে হচ্ছিল বোধ হয় ২০০ রানও করতে পারবে না তারা। কিন্তু এরপর ৬ষ্ঠ উইকেট জুটিতে আসগর স্তানিকজাই ও সলিমুল্লাহ সেনওয়ারি যা করেছেন, সেটা ছিল এক কথায় অসাধারণ। বিগ শট নিলে চলবে না। খেলতে হবে ৫০ ওভার এবং তাতেই হবে প্রয়োজনীয় রান। এমন লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে সতর্কতার সাথে খেলেন। শেষ ৭ ওভার আর সংযত ছিলেন না। বাংলাদেশী বোলারদের লাইন নিশানা রপ্ত করে ফেলা ওই ব্যাটস্যান চার-ছক্কা মেরে ইনিংসের চেহারাই পাল্টে দেন। ১৬৪ রান তুলে ফেলেন তারা ৬ষ্ঠ উইকেটে। যেটা রেকর্ডও এশিয়া কাপে। আফগানিস্তানের সেরা জুটি তো বটেই। এশিয়া সেরা জয়সুরিয়া ও দিলশানের ২০০৪ এ করা ১০৩-কে টপকে। অবশ্য ওই ব্যাটসম্যানের মধ্যে আসগরের তিনবার ক্যাচও ছাড়েন বাংলাদেশের দুই ফিল্ডার নাসির হোসেন ও ইমরুল কায়েস। তার ৩৫ রানে মুমিনুলের বলে নাসির কাভারে প্রথম ড্রপ করেন। এরপর ৭২ ও ৭৭ রানে ক্যাচ ছাড়েন ইমরুল কায়েস। অবশ্য নাসিরের ক্যাচটি হয়ে গেলে ওই বিশাল স্কোর হয়তো হতো না। আসগর করেন তিনটি ছক্কা ও ছয়টি বাউন্ডারির সাহায্যে অপরাজিত ৯০ এবং সামিউল্লাহ একটি ছক্কা ও ১০টি বাউন্ডারির সাহায্যে করেন ৮১ রান। বল হাতে আরাফাত নিয়েছিলেন দুই উইকেট।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ