• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন |

উত্তরাঞ্চলের দিশেহারা আলুচাষিদের পাশে বাকৃবির শিক্ষকেরা

05.02.14 ALU 2রংপুর: উৎপাদন খরচের চেয়ে মূল্য ৮০ শতাংশ কম মূল্য হওয়ায় দিশেহারা উত্তরাঞ্চলের আলুচাষিদের পাশে সহানুভূতির হাত বাড়িয়েছেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা। রংপুরের পীরগঞ্জের দুরামিঠিপুর গ্রামে সাত টাকা কেজি দরে উৎপাদনমূল্য দিয়ে ২০ টন আলু ক্রয় করে এর সূচনা করেন বাকৃবির ভিসি ড. মো: রফিকুল হক। পাশাপাশি দেশের সব সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানকে এভাবে আলুচাষিদের পাশে এগিয়ে আসা এবং সরকারকে আলু বিপ্লব ধরে রাখতে প্রক্রিয়াজাত শিল্পপ্রতিষ্ঠাসহ বিভিন্ন সুপারিশ করেছেন কৃষিবিজ্ঞানীরা।

পরিসংখ্যানে জানা যায়, ২০১৩ সালে সারা দেশে চার লাখ ২০ হাজার হেক্টর জমিতে আলু আবাদ করেন কৃষকেরা। এর মধ্যে উত্তরাঞ্চলের ১৬ জেলায় তিন লাখ ২৭ হাজার ১৮৯ হেক্টর জমি থেকে উফশী এবং স্থানীয় মিলে গড়ে হেক্টরপ্রতি ২০ দশমিক ২৫ টন হিসেবে ৬৬ লাখ ২৫ হাজার ৫৭৭ টন। অর্থাৎ সাত কোটি ৮৮ লাখ ৭৫ হাজার ৯১৯ বস্তা আলু উৎপাদন হয়েছিল। রংপুর বিভাগের আট জেলায় এক লাখ ৭১ হাজার ৪৬৩ হেক্টর এবং রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় এক লাখ ৫৫ হাজার ৭২৬ হেক্টর জমিতে আলুর আবাদ হয়। কিন্তু চলতি মওসুমে উত্তরের ১৬ জেলায় তিন লাখ ৩০ হাজার হেক্টর জমিতে আলু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল। তবে আবাদ হয়েছে দুই লাখ ৯৫ হাজার হেক্টর জমিতে।

কৃষকরা জানিয়েছেন, বর্তমানে প্রতি একর জমিতে আলু রোপণ থেকে শুরু করে উঠানো পর্যন্ত খরচ পড়ে লিজ মানি ১২ থেকে ১৫ হাজার, জমি চাষ চার থেকে পাঁচ হাজার, বীজ ৫০ থেকে ৬০ হাজার, রোপণে এক হাজার ২০০ থেকে এক হাজার ৫০০, সেচে তিন হাজার থেকে চার হাজার, কীটনাশক দিয়ে জমি শোধনে চার হাজার থেকে সাড়ে চার হাজার, সার ১৫ হাজার থেকে ১৬ হাজার, শ্রমিক আট থেকে ১০ হাজার মোট এক লাখ ২৪ হাজার টাকা খরচ পড়ে। এক একর জমিতে আলু হয় পৌনে ১১ টন অর্থাৎ ১৪০ বস্তা। এই হিসেবে প্রতি বস্তার খরচ পড়ে ৮৪৫ টাকার ওপরে। বর্তমানে এই অঞ্চলে প্রতি বস্তা আলু বিক্রি হচ্ছে ১৬০ থেকে ২০০ টাকা। সে হিসেবে বর্তমানে এক বস্তা আলুতে লোকসান হচ্ছে ৬০০ থেকে ৬৪৫ টাকা। ফলে আলুচাষিরা দিশেহারা।
আলুচাষিদের এমন অবস্থায় বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা উদ্বিগ্ন। সম্প্রীতি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ‘আলু উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বাজারজাতকরণ সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব’ শীর্ষক গোলটেবিলের আয়োজন করা হয়। বৈঠকে কৃষিবিজ্ঞানীরা আলুর ন্যায্যমূল্য আদায়ে সরকারের কাছে বেশ কিছু সুপারিশ করেন। একই সাথে তা বাস্তবায়নেরও দাবি করেন। ওই গোলটেবিল বৈঠকে উত্তরাঞ্চলের আলুচাষিদের পাশে দাঁড়াতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংস্থাকে উদ্বুদ্ধকরণে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিজন শিক্ষক ১০০ কেজি করে আলু কেনার সিদ্ধান্ত নেন। ওই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শুক্রবার বিকেলে ময়মনসিংহ থেকে রংপুরের পীরগঞ্জের দুরামিঠিপুর গ্রামে আছেন বাকৃবির ভিসি ড. রফিকুল হকের নেতৃত্বে বাকৃবির শিক্ষকেরা। ভিসি নিজেই মাঠে গিয়ে অর্ধশতাধিক আলুচাষির কাছ থেকে ক্রয় করেন সাত টাকা কেজি দরে ২০ টন আলু। মোট এক লাখ ৪০ হাজার টাকার আলু ক্রয় করেন তারা। এ উপলক্ষে অনলাইন পোর্টাল সবুজ বাংলাদেশ২৪ডটকম-এর উদ্যোগে দুরামিঠিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে আয়োজন করা হয় আলু সংগ্রহ আলোচনার। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড. রফিকুল হক। সবুজ বাংলাদেশ২৪ডটকম সম্পাদক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. সহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. মো: সুলতান উদ্দিন ভুঞা, প্রধান খামার ব্যবস্থাপক অধ্যাপক ড. আব্দুর রহমান সরকার প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ