• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০৩ পূর্বাহ্ন |

উপজেলা নির্বাচনে এরশাদের স্বপ্নভঙ্গ

Arsad-11সিসি ডেস্ক: চলমান উপজেলা নির্বাচনে দুই দফায় মোট ২১২টি উপজেলায় নির্বাচন শেষ হয়েছে। এতে চেয়ারম্যান পদে মাত্র দুটি উপজেলায় নির্বাচিত হয়ে বর্তমান সংসদের প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির অবস্থান একেবারেই তলানিতে। ফলে নির্বাচনের ফলাফলের মতো রাজনৈতিক অঙ্গনেও এখন অনেকটা এক ঘরের বৃত্তেই বন্দি হয়ে পড়েছে জাতীয় পার্টির কর্মকা-।
জানা গেছে, চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দুই দফায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে শোচনীয় পরাজয় অব্যাহত রয়েছে। এ পদ্ধতির প্রতিষ্ঠাতা এইচএম এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির। গত ১৯ ফেব্রুয়ারি প্রথম দফায় ৯৭টি উপজেলা নির্বাচনে জাতীয় পার্টির একজন মাত্র চেয়ারম্যান পদে জয়ী হয়েছেন। তিনি গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার গোলাম শরিফ রঞ্জু। এর আগে গত নির্বাচনেও তিনি জাপা থেকে বিজয়ী হয়েছিলেন। সর্বশেষ ২৭ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ১১৫টি উপজেলা নির্বাচনেও জাতীয় পার্টির একজন মাত্র প্রার্থী চেয়ারম্যান হয়েছেন। তিনি নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার রাশিদুল ইসলাম।
এ ব্যাপারে জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, উপজেলা নির্বাচন নিয়ে জাতীয় পার্টির বলতে গেলে তেমন কোনো গুরুত্ব দিয়ে কাজ করেনি। কিন্তু কেন করেনি এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দলের কিছু সাংগঠনিক দুর্বলতার কারণে এ নির্বাচন গুরুত্ব পায়নি।
এদিকে, উপজেলা পরিষদ পদ্ধতির প্রতিষ্ঠাতা হয়েও এবারের নির্বাচনে দলের এমন শোচনীয় পরাজয়ে এরশাদের মাঝে চরম হতাশা বিরাজ করেছে বলে দলীয় সূত্রে আভাস পাওয়া গেছে। কারণ তিনি এ নির্বাচনের শুরুতে ঢাকডোল পিটিয়ে মনোনয়ন দিয়েছিলেন। এরশাদ তার ইমেজকে কাজে লাগিয়ে উপজেলা নির্বাচনে জয়লাভের আশায় প্রার্থী দিয়ে ছিলেন। স্বপ্ন দেখেছিলেন এ নির্বাচনে নজরকাড়া ফল করে ত্রিধারায় বিভক্ত ভঙ্গুর প্রায় দলকে পুনর্গঠন করে চাঙ্গা করা। কিন্তু তার সে রঙিন স্বপ্ন এখন ফিকে হয়ে গেছে। কারণ ২১২টির মধ্যে ২টি মাত্র উপজেলা চেয়ারম্যান ও ৪টি ভাইস চেয়ারম্যান পদে জয়লাভ করেছেন জাপা-সমর্থিত প্রার্থীরা। এমনকি জাপার ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত রংপুর বিভাগের কোনো উপজেলায়ও জিততে পারেননি জাপা প্রার্থীরা। সর্বশেষ ২৭ ফেব্রুয়ারি জাতীয় পার্টির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত রংপুর, পঞ্চগড়, লালমনিরহাট, গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম ও জয়পুরহাটের কোনো উপজেলাতেই জাতীয় পার্টির প্রার্থী জেতেননি। জাতীয় পার্টির চেয়ে উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যানসহ সব কটি পদে অনেক বেশি এগিয়ে রয়েছে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে অভিযুক্ত দল জামায়াতে ইসলামী। দুই দফা ভোটে এ দলটি মোট ২১ জন চেয়ারম্যানসহ বাকি সবগুলো পদেও উল্লেখযোগ্য সংখ্যকহারে জিতেছে। এ অবস্থায় জাতীয় পার্টির বর্তমান অবস্থা বিবেচনা করে প্রার্থীদের অনেকেই ফ্ল্যাটফর্ম পরিবর্তনের সুযোগ খুঁজছেন। কেউ কেউ বিএনপি-জামায়াতের আশীর্বাদ নিয়ে নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়ার চেষ্টাও করছেন।
দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দেড় মাসের মধ্যে অনুষ্ঠিত উপজেলা পরিষদের দুই দফায় ২১২টি উপজেলার নির্বাচনে তুলনামূলক ভালো ফল অর্জন করেছে বিএনপি-জামায়াত জোট। অথচ সংসদ নির্বাচন বয়কট করেছিল এ দলটি। অপরদিকে দশম সংসদে একচেটিয়া সংখ্যাগরিষ্ঠ দল আওয়ামী লীগ বিজয়ী প্রার্থীর সংখ্যায় পিছিয়ে পড়েছে। তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে জামায়াতে ইসলামী। বিরোধী দল জাতীয় পার্টি চতুর্থ অবস্থানে।
জাপা দলীয় সূত্র জানায়, মূলত এরশাদের সঙ্গে স্ত্রী রওশনের দ্বন্দ্ব, এরশাদের দ্বিমুখী নীতি ও সুবিধাবাদী রাজনীতি করার কারণেই জাতীয় পার্টি থেকে মানুষ মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে বলে মনে করেন দলের নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের অনেক নেতা।
তবে এরশাদের গণমাধ্যম ও রাজনৈতিক সচিব সুনীল শুভ রায়  বলেন, প্রথম দফায় ১২ জনকে দলীয় সমর্থন দিলেও দ্বিতীয় দফায় জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে কাউকে সমর্থন দেয়া হয়নি। তাই ফলাফলে এ অবস্থা। তবে ফল বিপর্যয়ের বাস্তবতা মেনে নিতে হবে। কেন এই ভরাডুবি দলের তৃণমূল নেতাকর্মীদের ডেকে তা পর্যালোচনা করা হবে। সব উপজেলায় চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলের পক্ষ থেকে প্রার্থী না দিতে পারার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা উচিত বলে মনে করেন তিনি। নির্বাচনে ভোটাররা কেন মুখ ফিরিয়ে নিল, তাও পর্যালোচনা করতে হবে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জাপার এক প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, এরশাদ (স্যার) দলের সিনিয়র নেতাদের মূল্যায়ন না করার কারণে উপজেলা নির্বাচনে ভরাডুবি হয়েছে। এরশাদের অর্থনৈতিক লাভের আশার কারণে তার সমর্থিত প্রার্থীদের এই করুণ পরিণতি।
উৎসঃ   যায়যায়দিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ