• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩১ পূর্বাহ্ন |

মাঠে নামছেন খালেদা জিয়া

khalada_zia_সিসি ডেস্ক: সরকারবিরোধী আন্দোলনে দলের তৃণমূলপর্যায়ে জনসম্পৃক্ততা বাড়াতে মাঠে নামছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। আজ রাজবাড়ীতে জনসভার মধ্য দিয়ে প্রথমপর্যায়ে টানা তিন মাস দেশের আনাচে-কানাচে চষে বেড়াবেন তিনি। বিএনপি নেতারা বলছেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন পূর্বাপর আন্দোলনে নানামুখী ‘ঝড়-ঝঞ্ঝাট’ সহ্য করা দলের নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত করা এবং তাদের কাছে চলমান রাজনৈতিক বাস্তবতার আলোকে পরবর্তী নির্দেশনা পৌঁছে দিতেই দলের চেয়ারপারসন এই সাংগঠনিক সফর শুরু করছেন।
৫ জানুয়ারির বিতর্কিত নির্বাচনের পর দল গোছানোতেই মনোযোগ দিয়েছে বিএনপি। এরই অংশ হিসেবে আজ প্রথম ঢাকার বাইরে যাচ্ছেন বেগম খালেদা জিয়া। বিকেলে তিনি রাজবাড়ী রেলওয়ে মাঠে ভাষণ দেবেন। বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, কয়েক ধাপে বেশির ভাগ সাংগঠনিক জেলায় সফর করবেন খালেদা জিয়া। প্রথম ধাপে তিনি ৩৩টি জেলায় যাবেন। অন্য জেলাগুলোতেও পর্যায়ক্রমে যাবেন তিনি। তবে তার পূর্ণাঙ্গ জেলা সফরসূচি এখনো চূড়ান্ত হয়নি।
এসব সফরে বিএনপি ও ১৯ দলীয় জোট আয়োজিত জনসভায় বক্তব্য দেবেন খালেদা জিয়া। একইসাথে সংশ্লিষ্ট জেলার নেতাদের সাথে বৈঠক করে সাংগঠনিক দুর্বলতা চিহ্নিত করে তা সমাধান করবেন। প্রথম দফায় তার এ সাংগঠনিক কর্মসূচি চলবে জুন পর্যন্ত। জানা গেছে, জুলাই মাসে কিছু আন্দোলনমুখী কর্মসূচি থাকবে। রমজান মাসের পর আন্দোলনের গতি পাল্টে যেতে পারে। বিএনপি আশা করছে, ফের কঠোর আন্দোলনে নামার আগেই সরকার পরবর্তী নির্বাচনের ল্েয আলোচনা শুরু করবে।
প্রতি জেলায় বিএনপি চেয়ারপারসনের সাংগঠনিক সফরকে আন্দোলনেরই অংশ বলে মন্তব্য করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব:) মাহবুবুর রহমান। তিনি বলেন, জেলা সফর অবশ্যই আন্দোলনের অংশ। এসব সফরের মাধ্যমে আন্দোলনে জনগণের সম্পৃক্ততা বাড়বে।
দলের স্থায়ী কমিটির এই সদস্য বলেন, বর্তমান সরকারের মতায় থাকার নৈতিক অধিকার নেই। ভোটারবিহীন একতরফা নির্বাচনের মাধ্যমে তারা মতায় থাকার চেষ্টা করছে। জনগণ এ সরকারকে ভোট দেয়নি। বিএনপি চেয়ারপারসন জেলা সফরের মাধ্যমে এসব বিষয়েই কথা বলবেন। একই সাথে তিনি আন্দোলনে জনগণকে শামিল হওয়ার আহ্বান জানাবেন।
লে. জে. (অব:) মাহবুবুর রহমান আরো বলেন, এসব সফরের মাধ্যমে আন্দোলনের পাশাপাশি দলের সাংগঠনিক দুর্বলতা বের হয়ে আসবে। সেই আলোকে দল কার্যকর পদপেও নিতে পারবে।
জানা গেছে, যেসব জেলায় ৫ জানুয়ারির নির্বাচন-পূর্ব ও নির্বাচনোত্তর সময়ে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের নেতাকর্মীরা হামলা, মামলা, নির্যাতন, গুম, খুন ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের তুলনামূলক বেশি শিকার হয়েছেন সেসব জেলায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে খালেদা জিয়া সফর করেবেন। সংশ্লিষ্ট জেলার জনসভায় সেই জেলার কতজন নেতাকর্মী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক, গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যার শিকার হয়েছেন তাদের নাম প্রকাশ করবেন খালেদা জিয়া। একই সাথে হত্যার শিকার হতভাগ্যদের স্বজনদের সান্ত্বনা ও দলের প থেকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করবেন।
বিএনপি সূত্রে জানা গেছে, প্রথমপর্যায়ে রাজবাড়ী, লক্ষ্মীপুর, সাতীরা, সিলেট, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, নীলফামারী, লালমনিরহাট, রংপুর, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জয়পুরহাট, বগুড়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, নওগাঁ, রাজশাহী, মেহেরপুর, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ, যশোর, মাগুরা, পটুয়াখালী, পিরোজপুর, কিশোরগঞ্জ, মুন্সীগঞ্জ, বাগেরহাট, খুলনা, কুমিল্লা, চাঁদপুর, ফেনী, নোয়াখালী, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার সফর করতে পারেন খালেদা জিয়া।
জানা গেছে, পুরোদমে জেলা সফর শুরুর আগেই বিভিন্ন জেলায় তিগ্রস্ত বিএনপি নেতাকর্মী ও তাদের পরিবারকে আইনি সহায়তা দিতে দলীয়ভাবে গঠিত জেলাভিত্তিক লিগ্যাল এইড কমিটিকে আরো সক্রিয় হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন খালেদা জিয়া। পাশাপাশি গুম-খুন ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের তালিকা চূড়ান্ত করে তা বিদেশী ফোরাম, মানবাধিকার সংস্থা ও কূটনীতিকদের কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্যও সংশ্লিষ্ট নেতাদের দায়িত্ব দিয়েছেন। তার নির্দেশে সংশ্লিষ্টরা গুম-খুন ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের প্রাথমিক তালিকা তৈরির কাজ প্রায় সম্পন্ন করেছেন। তালিকায় ২৬১ জন নেতাকর্মী নিহত এবং ৬০ জন গুম হওয়ার তথ্য স্থান পেয়েছে।
তালিকা তৈরির সাথে সংশ্লিষ্ট বিএনপির এক নেতা জানান, গুম, খুন ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের নতুন তালিকাটি নির্ভুলভাবে তৈরি করা হচ্ছে। তালিকায় গুম ও খুন হওয়া নেতাদের নাম, পরিচয়, ঠিকানা উল্লেখ থাকছে। কোথায় কিভাবে ঘটনার শিকার হয়েছেন তারা, তারও বিবরণ থাকবে তালিকায়। তিনি আরো জানান, তালিকা চূড়ান্ত হতে আরো কিছু দিন সময় লাগবে। চূড়ান্ত তালিকায় নিহতের সংখ্যা বাড়তে পারে। উৎসঃ   নয়া দিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ