• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৫:১৬ অপরাহ্ন |

সরকার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় কতদিন সময় পাবে?

আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী:

Gaffar Chuduriপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার মন্ত্রিসভা সম্প্রসারিত করেছেন। সম্ভবত মন্ত্রীর সংখ্যা আরও দু’চারজন বাড়বে। এই মন্ত্রিসভার যোগ্যতা ও দক্ষতা সম্পর্কে জনমনে একটা আস্থার ভাবও তৈরি হয়েছে। ৫ জানুয়ারি নির্বাচন ও বর্তমান সরকারের গঠন পদ্ধতি নিয়ে দেশের চিহ্নিত মহলগুলো এবং তাদের বিদেশি অভিভাবকদের সমালোচনা ও প্রতারণাও দেশের মানুষের মধ্যে তেমন প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করছে না। টিভি টক শোতে এবং একশ্রেণীর সংবাদপত্রের পাতায় সরকারবিরোধী ‘চিহ্নিত সুশীলদের’ উদ্দেশ্যমূলক প্রচারণা এখনও অব্যাহত আছে বটে; কিন্তু তার ধার কমে গেছে।
এটাকে বর্তমান সরকারের জন্য হানিমুন পিরিয়ড বলা যায়। এর আয়ু বড়জোর ছয় মাস। তারপরই একশ্রেণীর মিডিয়া এবং বিরোধী শিবিরগুলো আবার তাদের নখরদন্ত যে বের করবে তাতে সন্দেহ নেই। সরকারের ছোট-বড় প্রত্যেক কাজে খুঁত ধরার চেষ্টা করা হবে, যা একটি ইংরেজি ও বাংলা দৈনিক এখনও নিরলসভাবে করে চলেছে। ভবিষ্যতে তার তীব্রতা ও নগ্নতা আরও বাড়বে।
আর ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে যে বিএনপি এখন তেমন হালে বাতাস পাচ্ছে না। সরকারের জনপ্রিয়তায় টোল খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেটি উদ্দাম হয়ে উঠবে এবং আওয়ামী লীগ যে গণতান্ত্রিক পথে ক্ষমতায় আসেনি_ এই উপপাদ্যটি প্রমাণ করার জন্য একটি ইংরেজি কাগজের সম্পাদক তো ইংরেজি অভিধানের পাতা খুলে বাছা বাছা শব্দ আহরণের জন্য এখন থেকেই চশমা চোখে বসে আছেন।
দেশের যে শান্ত ও স্বাভাবিক অবস্থা দেখে সাধারণ মানুষ স্বস্তিতে আছে, ব্যবসায়ীরা খুশি, ছয় মাস পরে এই পরিস্থিতি থাকবে কিনা তা নিয়ে আমার সন্দেহ আছে। উপজেলা নির্বাচনের ফল, আওয়ামী লীগের জন্য উনিশ-বিশ যাই হোক, তাও আওয়ামী লীগ সরকারের ওপর প্রতিক্রিয়ার ছাপ ফেলবে। নির্বাচনের ফল যদি দেখা যায়, আওয়ামী লীগ কোনোরকমে টেনেটুনে উতরে গেছে, তাহলে বলা হবে, নির্বাচনে কারচুপি হয়েছে। আর উতরাতে না পারলে কী বলা হবে, তাতো বিএনপি-জামায়াত ও সুশীল সমাজের ভয়েস বক্সে রেকর্ড করাই আছে। সেটিই বাজানো হবে এবং বলা হবে, এই সরকারের পেছনে যে গণম্যান্ডেট নেই_ তাতো আমরা আগেই বলেছিলাম। এখন সেটা আরও ভালোভাবে প্রমাণিত হলো। এই সরকারের উচিত অবিলম্বে পদত্যাগ করে নতুন নির্বাচন দেওয়া এবং নির্বাচনটি হতে হবে তাদের পছন্দসই নির্দলীয়-তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে।
এই ঝড় সৃষ্টি এখনই করা না হলেও এটি সৃষ্টি করার সব তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। দেশে এবং বিদেশেও। বিএনপি-জামায়াতের সব প্রচারণা ও ষড়যন্ত্রের সবচেয়ে বড় ঘাঁটি এখন লন্ডন। তাদের প্রচারণা ও তৎপরতার কাছে আওয়ামী লীগের সরকারি ও বেসরকারি পাল্টা তৎপরতা খুবই দুর্বল। বাংলাদেশে সর্বাধিক রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড (২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলাসহ) ভয়াবহ সন্ত্রাসী ঘটনা (ব্রিটিশ হাইকমিশনারকে হত্যাচেষ্টা) ঘটেছে খালেদা জিয়ার শাসনামলে। বিরোধী দলের নেত্রী থাকা অবস্থাতেও জামায়াতের সহায়তায় আগুনে পুড়িয়ে মানুষ হত্যার কী ভয়াবহ ঘটনা অব্যাহতভাবে চালানো যায়, তার প্রমাণ তিনি দিয়েছেন বছরখানেক ধরে গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পূর্ব পর্যন্ত।
তারপরও উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানোর মতো দেশে বিচারবহির্ভূত হত্যা ও গণহত্যার দায়ে আন্তর্জাতিক হেগ আদালতে মামলা হয় শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে। এ ব্যাপারে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আইনবিদ হিসেবে পরিচিত ড. কামাল হোসেন থেকে শুরু করে আমাদের প্রখ্যাত আইনবিশারদদের অনেকের কণ্ঠে কোনো কথা নেই। চোর এবং গৃহস্তের মধ্যে এমন নিরপেক্ষতার নজির বিশ্বের আর কোথাও নেই।
বর্তমানের অপেক্ষাকৃত শান্ত ও স্বাভাবিক অবস্থায় হাসিনা সরকারের স্বস্তি ও সন্তোষ পোষণের কোনো কারণ নেই। এটা ঝড়ের আগের স্তব্ধতাও হতে পারে। বাংলাদেশের রাজনীতিতে জামায়াত এখন কোণঠাসা হয়েছে। কিন্তু তার নখর এখনও ভোঁতা হয়নি। ‘৭১-এর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও দণ্ডদান এখন আপাতত প্রায় ঝুলে আছে। আবার শুরু হলেই দেখা যাবে, জামায়াত ও শিবির হিংস্র হায়েনার মতো গোপন বিবর থেকে বের হয়ে এসেছে এবং যে বিএনপি এখন প্রকাশ্যে ভাব দেখাচ্ছে জামায়াতের সঙ্গে তাদের আর লিভিং টুগেদার নেই, সময়কালে দেখা যাবে, তারা জামায়াত-শিবিরের সহযোগী। বাংলাদেশের শিবিরকে তো ইতিমধ্যেই বিশ্বের টেরোরিস্ট গ্রুপগুলোর মধ্যে শীর্ষ তৃতীয় স্থানে দেখানো হয়েছে।
জামায়াত-শিবিরের আন্তর্জাতিক কানেকশন আছে। কেবল পাকিস্তানের জামায়াতই তাদের বন্ধু তা নয়, আফগানিস্তানের মুজাহেদীন, এমনকি আল কায়দাও তাদের বন্ধু। বাংলাদেশের জামায়াত আমেরিকার ফেভার থেকে বঞ্চিত হওয়ার ভয়ে আল কায়দার সঙ্গে তাদের গোপন সম্পর্কের কথা অস্বীকার করে। কিন্তু আল কায়দাপ্রধান আল জওয়াহিরির সাম্প্রতিক বিতর্কিত বাংলাদেশবিরোধী বক্তব্য প্রায় হুবহু জামায়াতের বক্তব্যের প্রতিধ্বনি এবং আল জওয়াহিরির হুমকিটি ‘৭১-এর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বানচাল করার লক্ষ্যেই দেওয়া হয়েছে তা বুঝতে কষ্ট হয় না।
সরকার সম্ভবত আল কায়দার এই হুমকির বাস্তবতা অনুধাবন করেই ‘৭১-এর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার-প্রক্রিয়া দ্রুত করার পরিবর্তে একটু শ্লথ করেছে। এটা করা ঠিক হবে না। কথায় বলে, ‘বিড়াল মারিলে প্রথম রজনীতেই মারিতে হইবে।’ বাংলাদেশে মৌলবাদী সন্ত্রাস এখন একটু অসংগঠিত ও পশ্চাদপসরণ। তারা আবার ছয় মাসের মধ্যে ঘর গোছানোর আগেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়া ও দণ্ডদান শেষ করাসহ মৌলবাদী সন্ত্রাসের শিরদাঁড়া ভেঙে দিতে হবে। ঘর গুছিয়ে এবং আন্তর্জাতিক কানেকশনের সুযোগ নিয়ে জঙ্গি মৌলবাদীরা আবার সংগঠিত হয়ে মাথা তুললে সরকারকে আরও বড় হুমকির সম্মুখীন হতে হবে।
আগামী ছয় মাসই হচ্ছে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক দুর্বলতা ঝেড়ে ফেলা, প্রশাসন শক্তিশালী করা ও সরকারের শক্ত অবস্থান গ্রহণ করার প্রকৃষ্ট সময়। জামায়াতি হুমকি অগ্রাহ্য করে সরকারের উচিত একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দ্রুত সেরে ফেলা। তাতে মৌলবাদী সন্ত্রাসীদের শিরদাঁড়া আরও ভেঙে পড়বে। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেছেন, পদ্মা ব্রিজ প্রজেক্টের অর্থায়নের মতো বৈদেশিক মুদ্রার যথেষ্ট রিজার্ভ ব্যাংকে রয়েছে। তিনি সে কথা প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীকেও জানিয়ে দিয়েছেন। এরপর আর বিলম্ব না করে এই সেতু নির্মাণের প্রাথমিক কাজ অবশ্যই শুরু করে দেওয়া উচিত।
দুর্নীতি দমনে সরকারের কিছু সাহসী পদক্ষেপ নেওয়া উচিত এবং তা আগামী তিন মাসের মধ্যেই। সাগর-রুনির হত্যা রহস্যটির একটা কিনারাও সরকারের শিগগিরই সেরে ফেলা উচিত। অর্থাৎ যেসব বিষয় নিয়ে সরকার ঘরে-বাইরে সমালোচিত হচ্ছে, সেসব বিষয়কে প্রায়োরিটি দিয়ে সেগুলোর দ্রুত মীমাংসা করে ফেলা উচিত এবং এ জন্য আগামী ছয় মাসই হচ্ছে সরকারের জন্য সবচেয়ে প্রকৃষ্ট সময়।
সবচেয়ে প্রকৃষ্ট সময় কথাটার ওপর আমি গুরুত্ব দিচ্ছি এ জন্যই যে, ঝড়ের পূর্বাভাস পেলেই গৃহস্থ যেমন ঘর রক্ষার জন্য প্রস্তুত হন, তেমনি আগামী ছয় মাস পর বর্তমানের শান্ত ও স্বাভাবিক অবস্থা না-ও থাকতে পারে, এটা ধরে নিয়েই সরকারকে সেই ঝড়ের গতি ফিরিয়ে দেওয়া এবং ঘর রক্ষার আগাম ব্যবস্থা করতে হবে। তা করার এটাই প্রকৃষ্ট সময়।
শেখ হাসিনার সাহস ও রাজনৈতিক কাণ্ডজ্ঞানে আমি আস্থা রাখি। তিনি শুধু অতুলনীয় সাহসের সঙ্গে দেশে বিএনপি-জামায়াত, সুশীল সমাজ ও ইউনূস শিবিরের সম্মিলিত চক্রান্তের বূ্যহ ভেদই করেননি, প্রবল শক্তিশালী পশ্চিমা কূটনৈতিক চাপ থেকেও দেশকে উদ্ধার করেছেন। গত বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) কলকাতার আনন্দবাজার পত্রিকা খবর ছেপেছে, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের পর আমেরিকা ও ব্রিটেনও এখন বাংলাদেশের বর্তমান সরকারের সঙ্গে সর্বপ্রকার সহযোগিতা করে চলার নীতি অনুসরণের ঘোষণা দিয়েছে। বিত্তশালী পশ্চিমা দেশগুলো হাসিনা সরকারকে আর্থিক সাহায্য ও সহযোগিতা দান বন্ধ অথবা হ্রাস করবে বলে যে আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল, হাসিনা সরকার সে আশঙ্কা কাটিয়ে উঠেছে।
বাজারে গুজব ছিল, পশ্চিমা দেশগুলো যাতে হাসিনা সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে কোনো অর্থনৈতিক সাহায্য-সহযোগিতা না দেয়, সে জন্য ড. ইউনূস নাকি তৎপরতা চালাচ্ছিলেন এবং এখনও চালাচ্ছেন। খবরটি সঠিক হোক আর না হোক, সঠিক হলে যে ব্যর্থ হয়েছে তা বোঝা যায়। শেখ হাসিনা সম্ভবত এই সংকট কাটিয়ে না ওঠা পর্যন্ত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় নিজের হাতে রাখতে চেয়েছেন। এখন সংকট কাটিয়ে উঠতেই এএইচ মাহমুদ আলীকে আবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিয়োগ করেছেন।
হাসিনা সরকারের জন্য এটাই হচ্ছে অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত সমস্যাগুলো দ্রুত সমাধানের কাজে হাত দেওয়ার প্রকৃষ্ট সময়। নতুন মন্ত্রীদের প্রধানমন্ত্রীর সতর্ক করে দেওয়া উচিত, তারা যেন অসতর্ক ও অহেতুক কথা না বলেন। আমার অনুজপ্রতিম কলামিস্ট আবেদ খান সম্প্রতি তার এক কলামে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক দুর্বলতা সম্পর্কে আলোচনা করেছেন। এই সাংগঠনিক দুর্বলতার ফলে দলের সর্বস্তরের কর্মীরা বিভক্ত এবং বিদ্রোহী গ্রুপ ও নেতাকর্মীর ওপর দলের হাইকমান্ডের নিয়ন্ত্রণ নেই। উপজেলা নির্বাচনেও দেখা যাচ্ছে, দলের বিদ্রোহী প্রার্থীরা কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ভালো না করার একটা বড় কারণ, দলের মনোনীত প্রার্থীর ভোট কেটে বিএনপি বা জামায়াতের প্রার্থীর জয়লাভের পথ করে দিয়েছে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরাই।
জননেত্রী শেখ হাসিনার উচিত, দলে চেইন অব কমান্ড প্রতিষ্ঠা করা এবং সংগঠনকে তৃণমূল পর্যায় থেকে শক্তিশালী করা। এ জন্য দরকার দলের একজন সার্বক্ষণিক ও সক্রিয় সাধারণ সম্পাদক। সব পর্যায়ে দলের স্থগিত ও বিলম্বিত কাউন্সিল সভাগুলো অনুষ্ঠিত হওয়া এবং ওয়ার্কিং কমিটিগুলোর পুনর্গঠন প্রয়োজন। দরকার দলের রিসার্চ সেল এবং তথ্য ও প্রচার দফতরকে শক্তিশালী করা। দরকার আওয়ামী লীগে প্রচুর নতুন রক্তের সঞ্চালন।
বঙ্গবন্ধু ঊনসত্তরের গণঅভ্যত্থানের মধ্য দিয়ে গড়ে ওঠা তরুণ নেতৃত্ব যেমন তোফায়েল আহমেদ, আবদুর রাজ্জাকসহ আরও অনেককে দলে এবং নিজের কাছে টেনে এনেছিলেন। শেখ হাসিনা সাম্প্রতিককালের শাহবাগ অভ্যুত্থান থেকে বাছাই করে প্রতিশ্রুতিশীল তরুণ নেতৃত্ব দলে ও নিজের কাছে টেনে আনতে পারেন। সময় খুব বেশি নেই। আগামী ছয় মাস এ সরকারের জন্য একটি ট্রায়াল পিরিয়ড। এই ছয় মাসের কার্যকলাপের মধ্যেই এ সরকারের স্থায়িত্ব এবং আগামী নির্বাচনে জয়লাভ নির্ভর করে।
(সমকাল, ০১/০৩/২০১৪)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ