• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৭:১৭ অপরাহ্ন |

উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতের জয়, সরকারের সুদূরপ্রসারী কূটচাল !

ECসিসি ডেস্ক: ভোটারবিহীন ৫ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ের পর দুদফা উপজেলা ভোটে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের হতাশ করা ফলাফলে রাজনীতিতে নতুন হিসাব-নিকাষ শুরু হয়েছে। তৃণমূল নির্বাচনে বিস্ময়কর জয় পেয়ে বিএনপি-জামায়াত উল্লসিত হলেও রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা একে সরকারের সুদূরপ্রসারী কূটচাল বলে মনে করছেন। তাদের ভাষ্য, উপজেলা নির্বাচনে তাদের হাতে আশাতীত সাফল্য তুলে দিয়ে আওয়ামী লীগ কৌশলে নিজের নিরপেক্ষতা ও গ্রহণযোগ্যতার সনদ হাতিয়ে নিচ্ছে। একই সঙ্গে ৫ জানুয়ারির সাধারণ নির্বাচন বর্জনের যৌক্তিকতা নিয়ে বিএনপি-জামায়াতকে প্রশ্নের মুখে ফেলেছে।
বিশ্লেষকদের ধারণা, বিগত সরকারের আমলের শেষ সময়ে চার সিটি করপোরেশনের সব কটিতেই বিএনপিকে জয়ী হওয়ার সুযোগ দিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যোগ দেয়ার টোপ দিয়েছিল ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সে ফাঁদে ধরা না দেয়ায় একতরফা নির্বাচন দিয়ে দেশের জনগণের কাছে সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হয়েছে। ৫ জানুয়ারির ‘একতরফা’ নির্বাচনের পর দেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে স্বস্তিবোধ করলেও যুক্তরাষ্ট্রসহ কয়েকটি পশ্চিমা দেশের অবস্থানে অস্বস্তিতে আছে সরকার ও আওয়ামী লীগ। এই দেশগুলো এ নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। যুক্তরাষ্ট্রের পাশাপাশি যুক্তরাজ্য, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, কানাডাসহ পশ্চিমা কূটনৈতিক মহলে সব দলের অংশগ্রহণে নতুন নির্বাচনের কথা ওঠায় সরকারের শীর্ষ পর্যায় বেশ চাপে আছে। তাই এবার বিএনপি-জামায়াতকে কৌশলে উপজেলার ভোট দৌড়ে টেনে এনে অবাধ নির্বাচনের সুযোগ দিয়ে সে বিতর্কের অবসান ঘটিয়েছে বলে মনে করছে বিশ্লেষকরা।
এদিকে ভোট কারচুপি, ব্যালট ছিনতাই ও কেন্দ্র দখলের অভিযোগ তুলে প্রথম ও দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে বিএনপি যেসব উপজেলায় ভোট বর্জন করে হরতালের ডাক দিয়েছে তার বেশ কয়েকটিতে তারা জয়ী হওয়ার মধ্য দিয়ে দলটি নিজেই নিজের গলায় ফাঁস এঁটেছে। নেহাত রাজনৈতিক কূটচালে টিকে থাকতেই বিএনপি-জামায়াত প্রতিটি ক্ষেত্রেই আওয়ামী লীগকে অযথা দোষারোপ করছে- ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষ নেতাদের এমন বক্তব্য এখন সহজেই জনগণের আস্থার ঘরে পেঁৗছেছে। হিসাব এ সুযোগে আওয়ামী লীগ নতুন করে আরো কূটচাল চালতে শুরু করেছে। সিটি করপোরেশন ও উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি অংশ নিয়ে আশাতীত সাফল্য পেলেও তারা কেন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়নি তা নিয়ে আওয়ামী লীগ প্রশ্ন তুলেছে। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহালের নামে বিএনপি-জামায়াত জোট মূলত অগণতান্ত্রিক পথে ক্ষমতা দখলের ছক এঁটেছিল এমন বক্তব্য প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করছে। সে চক্রান্ত আওয়ামী লীগ বানচাল করে না দিলে বাংলাদেশকে গভীর খাদে পড়তে হতো নেতাদের এমন বক্তব্যও জনমনে প্রভাব ফেলেছে।
তবে অভিজ্ঞ রাজনীতিকদের অনেকেই বলছেন, ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ তৃণমূল নির্বাচনে পরাজয়ের মধ্য দিয়ে জয় হাতিয়ে নেয়ার যে কূটচাল চেলেছে তা আগামীতে বুমেরাং হয়ে দেখা দেয়ারও আশঙ্কা রয়েছে। কার্যত এ নির্বাচনের ফলাফলে বিএনপি তৃণমূলের সমর্থনে এগিয়ে থাকায় দলীয় হাইকমান্ড আবারো সরকারবিরোধী আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ার উদ্দীপনা পেয়েছে। চাঙ্গা হয়েছে জোটের নেতাকর্মীদের মনোবলও। এটিকে কাজে লাগিয়ে অন্যান্য ধাপের নির্বাচনে ফল নিজেদের অনুকূলে রাখতে তৃণমূল কর্মীরা উদ্যমী হয়ে উঠবে।
রাজনীতিকদের ভাষ্য, প্রথম দুই ধাপের উপজেলা নির্বাচনের ফলাফলের হিসাব-নিকাষে নিজেদের অবস্থান যথেষ্ট শক্তিশালী করেছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৯ দলীয় জোট। দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জয়ের ব্যবধান কমালেও কেন্দ্র দখল ও জালিয়াতির অভিযোগে দলের পাশাপাশি সরকার ও নির্বাচন কমিশনকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।
অন্যদিকে জাতীয় সংসদে প্রধান বিরোধী দল হিসেবে আসন অলঙ্কৃত করে থাকা জাতীয় পার্টি দুদফায় মাত্র দুটি উপজেলায় জয় পাওয়ার মধ্য দিয়ে নিজেদের পাশাপাশি ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতাকে প্রশ্নের মুখে ফেলেছে। পাতানো নির্বাচন না হলে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনসমর্থনহীন জাপা ১০টি আসনও যে পেত না তা দেশের মানুষের কাছে পরিষ্কার হয়ে গেছে।
প্রসঙ্গত, দুই ধাপের নির্বাচনে ২১০টি উপজেলার ঘোষিত ফলাফলে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ সমর্থিতরা জিতেছেন ৭৯টিতে, বিএনপি ৯৫টিতে এবং জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন ২০টিতে। বিএনপি-জামায়াত মিলে জয়ী হয়েছে ১১৫টিতে। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক মিত্র ও জাতীয় সংসদের প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির প্রার্থী দুই ধাপের নির্বাচনে মাত্র দুটিতে জয়ী হয়েছেন। দুই ধাপের নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত জোট সমর্থিত প্রার্থী আওয়ামী লীগের প্রার্থীর চেয়ে বেশি বিজয়ী হয়েছেন ৩৭ জন।
রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, তৃণমূল নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াতকে জয়ের জোয়ারে ভাসিয়েই আওয়ামী লীগ কৌশলে নিজেদের জিতিয়েছে। কেননা উপজেলা চেয়ারম্যানদের ক্ষমতা সংসদ সদস্যদের হাতে কুক্ষিগত। তার ওপর বিরোধী দল সমর্থিত প্রার্থীরা নির্বাচিত হলে জনকল্যাণ ও উন্নয়নমূলক কাজে তেমন অংশ নিতে পারবেন না। ফলে সহজেই স্থানীয়রা তাদের ওপর আগ্রহ হারাবে। এতে বিএনপির আগামীর আন্দোলনে আরো একদফা হোঁচট খাওয়ার ঝুঁকিতে পড়বে।
উপজেলা পরিষদ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (উপজ্যাব) কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. আতাউর রহমান আতা বলেন, গতবারের মতো এবারের উপজেলা চেয়ারম্যানদের ক্ষমতাহীন রেখেই উপজেলা নির্বাচন করা হচ্ছে। এই আইন বলবৎ থাকলে তারা (চেয়ারম্যানরা) জনগণের জন্য কতটুকু কাজ করতে পারবেন তা নিয়ে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।
রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা জানান, আগে উপজেলা পরিষদের ১৪টি স্থায়ী কমিটির একটিতেও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানরা সভাপতিত্ব করতে পারেননি। এমপি এবং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পদাধিকার বলে এসব কমিটিতে সভাপতিত্ব করেছেন। বর্তমানে ১৭টি কমিটি করা হলেও এসব কমিটিতে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা ঠুঁঠো জগন্নাথ হিসেবে থাকবেন। এছাড়া হস্তান্তরিত অধিকাংশ কমিটিগুলোর সভাপতিও ইউএনও। আর ইউএনও এমপিদের ঘাড়েই ভর করে চলেন। তাই উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ভরাডুবি হলেও তাতে দলের তেমন কিছু আসে যাবে না।
রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের এ বক্তব্যকে সমর্থন করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, সিটি করপোরেশন ও উপজেলা নির্বাচনে বিরোধীরা জিতলেও দেশের শাসন আওয়ামী লীগের হাতেই থাকবে। এসব ক্ষেত্রে ছাড় দিলেও নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনকে সম্পূর্ণ ব্যবহার করে তারা ক্ষমতা ধরে রাখতে সাধারণ নির্বাচনে ভয়াবহ কারচুপির পরিকল্পনা করেছিল। রিজভী বলেন, ‘সেই খবর পেয়েই আমরা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে অনড় ছিলাম।’
অভিজ্ঞ রাজনীতিকরা বলছেন, রাজনৈতিক কূটচালে পরাস্ত করতে আওয়ামী লীগ উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ও দ্বিতীয় দফায় বিএনপি-জামায়াতকে স্বেচ্ছায় কিছুটা ছাড় দিলেও পরবর্তীতে তা পুষিয়ে নেয়ার চেষ্টা করবে। কেননা সব উপজেলার নির্বাচনী ফল বিশ্লেষণে দুদলের জনপ্রিয়তার হ্রাস-বৃদ্ধির হিসাব হবে। আর এর প্রভাব জাতীয় রাজনীতিতে পড়বে।
বিশ্লেষকদের ধারণা, জনসমর্থন বাড়ার সুনির্দিষ্ট হিসাব পাওয়ার পর নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে দ্রুত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দাবি আদায়ে বিএনপি জোরেশোরে আন্দোলনে নামার শক্তি ও সাহস পাবে। তাই এ বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় রেখে আওয়ামী লীগ নিজের অবস্থান ধরে রাখার চেষ্টা করবে।
আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের একাধিক নেতা জানান, যেসব উপজেলায় এখনো নির্বাচন বাকি রয়েছে সেখানে নিরঙ্কুশ বিজয় না পেলেও যাতে অন্তত সন্তোষজনক ফল পাওয়া যায় সেজন্য দলের পক্ষ থেকে সর্বোচ্চ তৎপরতা চালানো হবে। এর প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসেবে দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দল, প্রার্থী বাছাইয়ে তৃণমূলের মতামতের প্রাধান্য, দলীয় মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব বিস্তার, জোটের সঙ্গে সমন্বয়হীনতা ও বিদ্রোহী প্রার্থীর ইস্যু গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।
ওই নেতারা জানান, প্রথম ও দ্বিতীয় দফার বেশিসংখ্যক উপজেলায় দলের সমর্থন দেয়া প্রার্থীদের বিজয় নিশ্চিত করতে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সব উদ্যোগ ব্যর্থ করে দিয়েছে স্থানীয় অভ্যন্তরীণ কোন্দল। কেন্দ্রের নির্বাচিত প্রার্থীকে সমর্থন দেয়া দূরে থাক, প্রকাশ্যে বিরোধী দলের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালানোর নজির রয়েছে। এর ফলে আওয়ামী লীগের ভরাডুবি হয়েছে স্বীকার করে নেতারা বলেন, আগামী তৃতীয় ও চতুর্থ দফা নির্বাচনে এ ধরনের ভুল করার কোনো সুযোগ নেই। একই ধরনের ভুল আবারো হলে আওয়ামী লীগকে কঠিন খেসারত দিতে হবে।
আওয়ামী লীগের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, প্রথম ধাপের নির্বাচনে হোঁচট খাওয়ার পর ঘুরে দাঁড়াতে বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছিল আওয়ামী লীগ। প্রশাসনিক সহায়তা নেয়া ছাড়াও আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায় থেকে সাংগঠনিক শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করা হয়। ১১৫টি উপজেলার মধ্যে অন্তত ৪৬টি উপজেলায় আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী ছিল। এদের মধ্যে ১০ জনকে দল থেকে বহিষ্কার করা হলেও বাকিদের দমানো যায়নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আওয়ামী লীগের এক নেতা বলেন, বিদ্রোহী দমনে দায়িত্বপ্রাপ্ত কেউ কেউ দলে সাংগঠনিক শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার চেয়ে নিজের কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেছেন। এ কারণে কোনো উদ্যোগই কাজে আসেনি।
এদিকে দুদফা উপজেলা নির্বাচনে আশাতীত সাফল্যের পর ঘুরে দাঁড়াতে যাচ্ছে জামায়াত। টানা প্রায় চার বছর সরকারের প্রচা- চাপে থাকার পরও তাদের সাংগঠনিক শক্তি যে ফুরিয়ে যায়নি এবং তৃণমূলে এখনো যে দলের ওপর জনআস্থা অটুট রয়েছে তা প্রমাণ হওয়ার পর আগামীর আন্দোলন দ্রুত বেগবান করারও চিন্তাভাবনা করছে। এছাড়াও তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম দফা নির্বাচনেও যাতে তারা জয়ের ধারা ধরে রাখতে পারে সেজন্য দলীয়ভাবে সর্বোচ্চ তৎপরতা চালানোরও সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
জোটের প্রধান শরিক বিএনপির কেন্দ্রে সুসম্পর্ক থাকলেও তৃণমূলে বিরোধ থাকার কারণে প্রথম দুদফা উপজেলা নির্বাচনে জামায়াতকে যে সমস্যায় পড়তে হয়েছে আগামীতে তা যাতে কাটিয়ে ওঠা যায় এজন্যও ব্যাপক পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।
জামায়াত নেতাদের দাবি, বেশ কয়েকটি উপজেলায় বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে জামায়াতকে হারতে হয়েছে। অথচ ওইসব উপজেলায় বিএনপিও শেষ পর্যন্ত সুবিধা করতে পারেনি। জোটের শরিক হিসেবে বিএনপি তাদের কিছুটা ছাড় দিলে আরো অন্তত ৪টি উপজেলায় জামায়াত নিশ্চিতভাবে জয় ছিনিয়ে আনতে পারতো।
জামায়াত নেতারা জানান, সরকারবিরোধী আন্দোলনে জামায়াতকে সক্রিয় অংশ নিতে হলে তাদের তৃণমূলে শক্ত ঘাঁটি গড়তে হবে। আর উপজেলা নির্বাচনের সাফল্যই তাদের সে সুযোগ এনে দেবে। তাই আন্দোলনের সক্রিয় সঙ্গী হিসেবে জামায়াতকে কাছে পেতে হলে বিএনপিকে উপজেলার ভোটে ছাড় দেয়ার মানসিকতা থাকতে হবে। দলের কেন্দ্রীয় নেতারা এ ব্যাপারে বিএনপির হাইকমান্ডকে বোঝানোর চেষ্টা করবে।
দলীয় একাধিক সূত্র জানায়, ইতোমধ্যেই এ ব্যাপারে বিএনপি-জামায়াতের শীর্ষ পর্যায়ে আলোচনা চলছে। এতে দুদলই লাভবান হবে এ ব্যাপারে তারা একমত হয়েছে। জামায়াত নেতারা জানান, তৃণমূলের আগামীর নির্বাচনে অঘোষিতভাবে জোটগত প্রার্থী দেয়ার ব্যাপারেও তারা চিন্তাভাবনা করছেন।
উপজেলা চেয়ারম্যানদের ক্ষমতা স্থানীয় সংসদ সদস্যদের হাতে কুক্ষিগত করে রেখে তাদের নিষ্ক্রিয় রাখার চেষ্টা চালালে তৃণমূলে জোরদার আন্দোলন চালিয়ে সরকারের ভিত নাড়িয়ে দেয়ার আগাম পরিকল্পনা হাতে নেয়ারও উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।
এদিকে সংসদের প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি দুই দফা উপজেলা নির্বাচনে ভরাডুবির পর দলের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখাই দায় হয়ে পড়েছে। দলটির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ উপজেলা পদ্ধতির প্রবর্তক হলেও এবারকার উপজেলা নির্বাচনে তার দলের অবস্থা হ-য-ব-র-ল। বিশ্লেষকরা বলছেন এ যেন নিজেদের বানানো ঘরে নিজেদের ঠাঁই নেই অবস্থা। সর্বশেষ নির্বাচনে সংসদে ৩৪ আসন পেলেও উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে মাত্র দুটিতে জয় পেয়েছে এরশাদের দল।
এ কারণে জাপার মাঝে এখন ব্যাপক হতাশা। উপজেলা নির্বাচন সম্পর্কে জাপার মুখপাত্র ও নির্বাচন সমন্বয়কারী ববি হাজ্জাজ জানান, পার্টি উপজেলা নির্বাচনে আশানুরূপ সফলতা পায়নি। এর কারণ হিসেবে নির্বাচনী মাঠ গোছানোয় অসঙ্গতিকে দায়ী করেন তিনি।
জাতীয় পার্টি সূত্র জানায়, জয়ের লক্ষ্য নিয়ে উপজেলা নির্বাচনে মাঠে নামার কথা ছিল দলটির। একপর্যায়ে নেতাকর্মীদের মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করতেও বলা হয়েছিল। কিন্তু সময় স্বল্পতার কারণে শেষপর্যন্ত পিছু হটে জাতীয় পার্টি। কোনো রকম সমন্বয় ছাড়াই নির্বাচনে ইচ্ছুক প্রার্থীদের নিজ নির্বাচনী এলাকায় মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। এরপর থেকে প্রার্থীদের সঙ্গে দলের জেলা এবং কেন্দ্রীয় কমিটির কোনো ধরনের সমন্বয় হয়নি। তাই উপজেলা নির্বাচনে দলের এ করুণ পরিণতি।
জাপার একাধিক নেতা জানান, নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের ব্যর্থতার দায় কারো ঘাড়ে না চাপিয়ে বরং এ ফলাফল বিশ্লেষণ করে তারা নতুন পথ খুঁজে নেবে। যাতে আগামীর নির্বাচনগুলোতে আশানুরূপ সাফল্য অর্জন করা যায়। কেন্দ্রের সঙ্গে সমন্বয় করে তৃণমূল কাজ করলে তাদের সে প্রত্যাশা পূরণ হবে বলে মনে করেন ওই নেতারা।
উৎসঃ   যায়যায়দিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ