• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৪:০৯ অপরাহ্ন |

“বহুতল কেঁচো কম্পোস্ট” পদ্ধতি উদ্ভাবন

Agriকৃষি ডেস্ক: নেত্রকোনা জেলার চন্দ্রপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফা কেঁচোর সাহায্যে জৈব সার উৎপাদন প্রণালী “বহুতল কেঁচো কম্পোস্ট” পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছেন, যা কৃষিতে জৈব সার উৎপাদনে নতুন সংযোজন। যার মাধ্যমে কৃষক একই জায়গায় আগের চেয়ে পাঁচ গুন বেশি জৈব সার উত্পাদন করতে পারবেন। তিনি BARI কর্তৃক বিদেশ থেকে আমদানি কৃত এপিজিক ও এসিনি প্রজাতির কেচোর মাধ্যমে বিশেষ পদ্ধতিতে গরুর গোবর, এজুলা (এক ধরনের শেওলা), সোনা ফানা, খুদী ফানা, কচুরি ফানা, কলাগাছ সহ অন্যান্য পচনশীল সবুজ গাছ পালা ব্যবহার করে কেচু কম্পোস্ট বা জৈব সার তৈরী করেন। এই জৈব সার ব্যবহার করলে শাক-সবজি ও ফল রুগ-বালাই এর হাত থেকে রক্ষা পাবে, পাশাপাশি ক্ষতিকর কীটনাশক ব্যবহার করতে হয়না বলে মানুষ, গবাদি পশু, হাঁস-মুরগি, পাখি চর্ম রোগ ও অন্যান্য রোগ থেকে রক্ষা পাবে। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কেন্দ্র (BARI ) কর্তৃক চন্দ্রপুর-কে “Model Organic Agricultural Village” হিসেবে ঘোষনা করা হয়েছে। গত ১৮ জানুয়ারী ২০১৪ চন্দ্রপুর-এ BARI কর্তৃক আয়োজিত “Model Organic Agricultural Village” শীর্ষক এক সেমিনার-এর প্রধান অতিথি BARI-র পরিচালক বিজ্ঞানী ডক্টর আলতাব হোসেন এই ঘোষনা দেন । এই সময় সেমিনার-এ উপস্তিত ছিলেন “Chandrapur Organic Agricultural Farm” -এর প্রতিষ্টাতা ও উদ্যান তত্ত্ব ও জৈব সার গবেষক ও “বহুতল কেঁচো কম্পোস্ট ” পদ্ধতির উদ্ভাবক জনাব গোলাম মোস্তফা (খোকন), BARI-র পরিচালক বিজ্ঞানী ডক্টর আলতাব হোসেন, BARI -র বিজ্ঞানী ডক্টর ফেরদৌসী ইসলাম , সবজি বিভাগের উপ পরিচালক বিজ্ঞানী ডক্টর নাজিম উদ্দিন, Plant Pathology -র বিজ্ঞানী ডক্টর সায়ীদ আহমেদ, বিজ্ঞানী ডক্টর ফারজানা খান এনি সহ আরো কয়েক জন উদ্যান তত্ত্ব বিজ্ঞানী, ETV , ইত্তেফাক, সমকাল পত্রিকার সাংবাদিক বৃন্দ, কৃষি বিভাগের স্থানীয় কর্মকর্তা বৃন্দ ও ২৮ জন কৃষক। সেমিনারে জনাব গোলাম মোস্তফা বিস্তারিত আলোচনা করেন, কি ভাবে তিনি কেচুর মাধ্যমে জৈব সার উতপাদন করেন। তিনি গবেষণা করে “বহুতল কেঁচো কম্পোস্ট ” উৎপাদন পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছেন । তিনি বর্ণনা করেন , কিভাবে রাসায়নিক ও কীটনাশক ছাড়া অর্গানিক/জৈব সারের মাধ্যমে সবজি বাগান, ফুল বাগান, মাছ চাষ, গবাদি পশুর জন্য উন্নত মানের ঘাস উৎপাদন করছেন । সেমিনারে উপস্তিত সবাই “Chandrapur Organic Agricultural Farm” ও “বহুতল কেঁচো কম্পোস্ট “/ জৈব সার উৎপাদন প্লান্ট পরিদর্শন করেন ও ভূয়সী প্রসংসা করেন। BARI-র পরিচালক বিজ্ঞানী ডক্টর আলতাব হোসেন বলেন, “গত ১৫ বছর যাবৎ বাংলাদেশে জৈব সার/ কেঁচো কম্পোস্ট উৎপাদন প্রচেষ্ঠা ও গবেষণা হচ্ছে তার মধ্যে গোলাম মোস্তফা সাহেবের “বহুতল কেঁচো কম্পোস্ট ” উৎপাদন পদ্ধতি উদ্ভাবন সবচেয়ে সফল। তিনি বলেন, দীর্ঘ দিন ধরে ক্ষতিকর রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ব্যবহার করে শাক-সবজি ও ফল উৎপাদন করার কারণে সারা দেশে হাজার হাজার মানুষ চর্ম রুগ সহ নানা রুগে আক্রান্ত হচ্ছে । তিনি আরো বলেন, “বহুতল কেঁচো কম্পোস্ট ” উৎপাদন পদ্ধতিকে মডেল হিসেবে ধরে সমগ্র বাংলাদেশে চালু করা হবে ।” সেমিনারে আলোচনা করা হয় কিভাবে রাসায়নিক সার ও কীটনাশক ছাড়া জৈব/অর্গানিক সারের মাধ্যমে সাস্থ্য সম্মত উপায়ে শাক-সবজি ও ফল উৎপাদন করা যায় । সেমিনারে যোগদান কারী ২৮ জন কৃষক এর মধ্যে বিনা মূল্যে জৈব/অর্গানিক সার উৎপাদনের সামগ্রী ও জৈব সার বিতরণ করা হয় । উল্লেখ্য, এই সব জৈব সার উৎপাদন সামগ্রী ও জৈব সার BARI-কে সরবরাহ করেছেন গোলাম মোস্তফা সাহেব তাঁর নিজের জৈব সার উৎপাদন প্লান্ট থেকে। এই সব কৃষক কর্তৃক উৎপাদিত জৈব সার ও শাক-সবজি-ফল বিক্রয়ের ক্ষেত্রে BARI ও কৃষি বিভাগ সহযোগিতা করবে। কৃষকদেরকে নিয়মিত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নেয়া হবে । উল্লেখ্য সবজি বিভাগের উপ পরিচালক বিজ্ঞানী ডক্টর নাজিম উদ্দিন সাহেব “চন্দ্রপুর অর্গানিক কৃষি খামার ” পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নে গোলাম মোস্তফা সাহেবকে সার্বিক ভাবে পরামর্স দিচ্ছেন। গোলাম মোস্তফা মুরগির খামার, মাছ চাষ, ঔষধী বৃক্ষ উৎপাদন , মধু উৎপাদন , নানা ধরনের মৌসমী ও বারো মাসী শাক-সবজি ও ফল-ফুল উৎপাদন, দেশী-বিদেশী গরুর খামার, ছাগলের খামার, গরুর জন্য উন্নত ঘাস উৎপাদন করে সবার দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন। তিনি ইতিমধ্যে একাধিক বার BARI (গাজীপুর), বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (ময়মনসিংহ) থেকে মধু চাষ, অর্গানিক শাক-সবজি ও ফল চাষ, হাঁস-মুরগি পালন, গবাদি পশু পালন, মাছ চাষ, অর্গানিক সার উউ -এর উপর প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ও স্থানীয় পর্যায়ে অনেককে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন।তিনি গত ১৯৯০ সাল থেকে বাংলাদেশ সরকারের কৃষি বিভাগ আয়োজিত বিভিন্ন প্রদর্শনীতে নিয়মিত অংশগ্রহন করেন ও প্রতিবার পুরস্কার অর্জন করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ