• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৫:২৪ পূর্বাহ্ন |

মীর কাসেমের বিরুদ্ধে ১৩ ও ১৪তম সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ

Mirসিসি ডেস্ক: দিগন্ত মেডিয়া কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান ও জামায়াতের  নির্বাহী পরিষদের সদস্য মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষে প্রসিকিউশনের ১৩ ও ১৪তম সাক্ষীর জবানবন্দ্গ্রিহণ করা হয়েছে।

সোমবার ট্রাইব্যুনাল-২এর চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে ১৩তম সাক্ষী ইঞ্জিনিয়ার মো. হাসান ও ১৪তম সাক্ষী ফয়েজ আহমেদ সিদ্দিকীর জবানবন্দী গ্রহণ করার পর আসামিপক্ষের আইনজীবী মিজানুল ইসলাম তাদের জেরা করেন। এরপর মঙ্গলবার পরবর্তী সাক্ষীর জবনবন্দী গ্রহণের দিন ধার্য করা হয়েছে।

জবানবন্দীতে সাক্ষী মো. হাসান মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ করেননি। অপর দিকে ১৪তম সাক্ষী ফয়েজ আহমেদ সিদ্দিকী জেরায় বলেছেন, মীর কাসেম আলীর ব্যক্তিগত জীবন সম্পর্কে আমার কোন ধারণা নেই।

সাক্ষ্যগ্রহণের সময় মীর কাসেম আলীকে ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত ছিলেন। তার পক্ষে আইনজীবী ছিলেন মিজানুল ইসলাম, ব্যারিস্টার মীর আহমদ বিন কাসেম, অ্যাডভোকেট আসাদ উদ্দিন ও অ্যাডভোকেট আবু বকর সিদ্দিক। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম ও সুলতান মাহমুদ সিমন।

১৩তম সাক্ষী ইঞ্জিনিয়ার মো. হাসানের জবানবন্দী :
জবানবন্দীতে সাক্ষী মো. হাসান বলেন, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় নভেম্বর মাসের শেস দিকে একদিন সন্ধ্যা রাতে আমরা বাড়িতে বসে রেডিওতে খবর শুনছিলাম, এমন সময় বাড়িতে হুসেলে ও লোকজনের দৌড়াদৌড়ির শব্দ শুনতে পাই। মুখে কাপড় বাধা অবস্থায় একদল লোক আমাদের বাড়ি ঘেরাও করে তল্লাশি করে। আমার চাচা বশিরুল হুদা সাহেবের ঘরবাড়ি তল্লাশি করে তিনজনকে আটক করে। এরা হলেন হাবিবুর রহমান, ইলিয়াস সওদাগর ও সানাউল্লাহ চৌধুরী। তাদের আটক করে ডালিম হোটেলস্থ আল-বদর ক্যাম্পে নিয়ে যায়।

তিনি বলেন, এই ঘটনার নয় বা দশদিন পর হাবিবুর রহমান একটি রিকসাযোগে বাড়িতে ফিরে আসে। ওইদিন আমরা তাকে খুব অসুস্থ অবস্থায় দেখতে পাই। হাবিবুর রহমান বাড়িতে ফিরে আসার তিন বা চারদিন পর সানাউল্লাহ চৌধুরীও ফিরে আসেন। তখন তাকেও আমি বিধ্বস্ত অবস্থায় দেখতে পাই। তাদের কাছ থেকে জানতে পারি উভয়কেই বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে ডালিম হোটেলস্থ আল-বদর ক্যাম্পে নির্যাতন করা হয়েছিল।

১৪তম সাক্ষীর জবানবন্দী ও জেরা
রাষ্ট্রপক্ষের ১৪তম সাক্ষী ফয়েজ আহমেদ সিদ্দিকী জবানবন্দীতে বলেন, ১৯৭১ সালের ২৪ নভেম্বর আমার দুলাভাই সাইফুদ্দিন খানকে পশ্চিম মাদারবাড়িস্থ আজিজ কলোনী বাসা থেকে গভীর রাতে অন্যদের সাথে আল-বদর বাহিনী ধরে ডালিম হোটেলে নিয়ে যায়। আল-বদর কমান্ডার ছিলেন মীর কাসেম আলী।

তিনি বলেন, আমার বড়বোন নুরজাহান খানের কাছ থেকে আমি একথা শুনি। এ কথা শুনার পর আমি আমার মোটর সাইকেল নিয়ে ডালিম হোটেলের সামনে যাই। ওই সময় ডালিম হোটেলের সামনে থাকা নিরাপদ মনে না করে বাসায় চলে আসি। চট্টগ্রাম শহরে থাকাও নিরাপদ মনে না করায় পটিয়ার অন্তর্গত করলডাঙ্গা পাহাড়ে আমাদের গেরীলা ইউনিটের ক্যাম্পে চলে যাই। সেখানে আমি ’৭১ সালের ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত থাকি। ওইদিন রাতেই পাকিস্তান সেনাবাহিনীর কর্মকান্ড নিস্ক্রিয় হয়ে যাওয়ার সংবাদ পাওয়ার পর আমি চট্টগ্রাম শহরের বাসায় চলে আসি।

সাক্ষী বলেন,’৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর খুব ভোরে শতর্কতার সাথে আমি ডালিম হোটেলে পৌছাই। সেখানে দেখতে পাই কিছু লোক জড়ো হয়ে ডালিম হোটেলে বন্দীদের উদ্ধারের প্রচেষ্টা করছে। ডালিম হোটেলের প্রত্যেকটি রুমে রুমে গিয়ে আমি দুলাভাইকে খুঁজেছিলাম কিন্তু দেখা পায়নি। ডালিম হোটেলে অবস্থান কালে আমি ১০০ বা ১৫০ জন বন্দীকে মুক্ত হতে দেখি।

তিনি বলেন, যাদের মধ্যে কদমতলী থানার জাহাঙ্গীর চৌধুরী, এমরান, হাজারী লেনের সুশিল কান্তি বর্ধন, ইস্কান্দার আলম চৌধুরী ও পটিয়ার নাসিরউদ্দিন চৌধুরী ছিলেন। ১৭ ডিসেম্বরের পর আমার দুলাভাই সাইফুদ্দিন খানের সাথে দেখা হয়। তিনি চট্টগ্রাম কারাগার থেকে মুক্তিলাভ করেন। তার কাছ থেকেই জানতে পারি ডিসেম্বর মাসের ২ বা ৩ তারিখে তাকে ডালিম হোটেল থেকে কারাগারে পাঠিয়ে দেয়া হয়। ডালিম হোটেলে থাকা কালীন সময়ে তাকে অমানুষিক নির্যাতন করা হয়। জবানবন্দী শেষে আসামিপক্ষের আইনজীবী মিজানুল ইসলাম এই সাক্ষীকেও জেরা করেন।

সাক্ষীদের জবানবন্দি ও জেরা শেষে মামলার পরবর্তী কার্যক্রম মঙ্গলবার পর্যন্ত মুলতবি ঘোষণা করেছেন ট্রাইব্যুনাল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ