• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:১৯ অপরাহ্ন |

অসাধারণ খেলেও বেদনাদায়ক হার

Criখেলাধুলা ডেস্ক: কী খেলাই না খেলল বাংলাদেশ! রান হয়েছে। ব্যাটসম্যান সেঞ্চুরি পেয়েছেন। সাকিবের টর্নেডো ইনিংস হয়েছে। উত্তেজনার পারদ ছিল আকাশসম উচ্চতায়। শেষ ওভার পর্যন্ত গ্যালারি এবং বাংলাদেশের পুরো জনপদ ক্রিকেটজ্বরে কেঁপে কেঁপে উঠেছে। টাইগাররা জয়ের দেখা পাচ্ছেন এমন স্বপ্নকে হৃদয়ে লালন করেছেন।
মিরপুর স্টেডিয়াম বাংলাদেশের পতাকায় শোভিত হয়ে নতুন এক চিত্রমালা নির্মাণ করেছে। তবে ক্যাচ মিসের দৃশ্য দেখে মহাকাব্যের ট্র্যাজিক নায়কের পরিণতির কথা ভেবে দর্শকেরা চোখের পানিতে ভেসে গেছেন। কান্নায় ভেঙে পড়েছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটারেরাও।
ছবির দেশ, কবিতার দেশ, ক্রিকেটের দেশ বাংলাদেশ অসাধারণ খেলেও হেরে গেছে তিন উইকেটে। শৃঙ্খলা ও আত্মবিশ্বাসী এক নতুন বাংলাদেশ গতকাল মিরপুরের হোম ক্রিকেট গ্রাউন্ডে নৈপুণ্য দেখিয়ে ৩২৬ রানের এক বিশাল স্কোর গড়েছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পাকিস্তানের কাছে পরাজিত হয়ে মাঠ ছেড়েছে ট্র্যাজিক বীরের মতো। প্রাণের উন্মাদনায় পাগলপারা বাংলাদেশের অকুতোভয় ক্রিকেটারেরা সাগরসেচা মানিকের মতো জয় ছিনিয়ে নিতে পারেননি। বেদনাদায়কভাবে হেরে গেল তারা। ১৯৯৯ সালে পাকিস্তানকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। এরপর আর কোনো জয় নেই তাদের। যদিও গত এশিয়া কাপে বাংলাদেশ ফাইনালে দুই রানে হেরে যায় পাকিস্তানের কাছে।
গতকাল চরম নাটকীয়তায় ও উত্তেজনার পরশ ছোঁয়ানো ম্যাচে এক বল বাকি থাকতেই হেরে যায় বাংলাদেশ। টাইগারদের ছুড়ে দেয়া বিশাল অঙ্কের রানকে তাড়া করে ৩২৯ রান তোলে পাকিস্তান।
একটি টুর্নামেন্টে হাই ভোল্টেজ ম্যাচ একটিই হয়! হতে পারে সেটা ফাইনাল বা অন্য কোনো ম্যাচও। এশিয়া কাপে সে ম্যাচ হয়েই গিয়েছিল পাকিস্তান ভারতের মধ্যে। আবারো অমন ম্যাচ? মিরপুরে মঞ্চস্থ হলো হাই ভোল্টেজ আরো একটি। গতকাল তুমুল উত্তেজনাপূর্ণ ও হাই স্কোরিং ম্যাচে বাংলাদেশকে হারাল পাকিস্তান এক বল হাতে রেখে। তবে এ জয়ে রেকর্ডও হয়েছে তাদের। কারণ পাকিস্তানের চেজিংয়ের রেকর্ড ছিল ৩২২, ভারতের বিপক্ষে মোহালিতে। কাল সেটা টপকে নতুন রেকর্ড গড়ে জিতল বাংলাদেশের বিপক্ষে। ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের মতোই এ ম্যাচেও পার্থক্য গড়ে দিলেন সেই শহীদ আফ্রিদি। দলের প্রয়োজন ছিল ৫২ বলে ১০১ রান, জয়ের জন্য। কঠিন টার্গেট; কিন্তু এ অসাধ্যকে সাধন করলেন ওই আফ্রিদি। ভারতের বিপক্ষে জোড়া ছক্কা হাঁকিয়ে জয়ের নায়ক বনে যাওয়া এ অভিজ্ঞ ক্রিকেটার কাল খেলেন ২৫ বলে ৫৯-এর এক ইনিংস। এর আগে হাফ সেঞ্চুরি করেন তিনি মাত্র ১৮ বলে। যার মধ্যে ছিল ছয়টি ছক্কা ও ছয়টি বাউন্ডারি। পরে আরো একটি ছক্কা হাঁকিয়ে, শেষে সাকিবের করা ডাইরেক্ট থ্রোতে হন রান আউট। কিন্তু ততক্ষণে ম্যাচটি চলে যায় বাংলাদেশের হাত ছুঁয়ে পাকিস্তানের হাতে। ফায়াদ ও উমর আকমল শেষ ওভারে নিয়ে গেলেও ছিল নাটকীয়তায় ভরা। চার রান দরকার ছিল। কিন্তু আল আমিনের করা ওই ওভারের প্রথম দুই বলে রান তো নিতে পারেইনি, এরপর তৃতীয় বলে এক রান নিলেও পরের বলে রান আউট ম্যাচের আরেক নায়ক ফায়াদ আলম। কিন্তু ওমর গুল নেমে পরের বলটি সীমানা পার করে জয় তুলে নেন তিন উইকেটে। ৩২৬ রানের টার্গেট দিয়েও আশা ভঙ্গ হবেÑ সেটা ভাবতেই কষ্ট হচ্ছিল গ্যালারিতে উপস্থিত দর্শকদের। আবেগ ধরে না রাখতে পেরে কেঁদেছেনও অনেকে। সত্যিই তো! এত বিশাল স্কোর গড়েও ম্যাচে জয় আসবে না সেটা কে ভেবেছিল? আসলে ব্যাডলাকই বটে টিম বাংলাদেশের। এ মিরপুরে আরো একবার ২৯৬ রানের টার্গেট দিয়েও ম্যাচ বাঁচাতে পারেনি বাংলাদেশ, ভারতের বিপক্ষে। মহেন্দ্র সিং ধোনি শেষ করে দিয়েছিলেন সে স্বপ্ন। এবার তার চেয়েও সমৃদ্ধ স্কোর করেও হলো না। গ্যালারিপূর্ণ দর্শককে কাঁদিয়ে ’৯৯ এর পর পাকিস্তানকে হারানোর স্বপ্নটা অধরাই থাকল বাংলাদেশের। আসলে দুই দলে পার্থক্য তো অনেকই। মাঠ ও মাঠের বাইরেও দেখা গেছে সেটা। পাকিস্তানের ড্রেসিং রুমে জহির আব্বাস, মঈন খানের মতো শত শত ম্যাচে জয়ের নায়ক। তার কঠিন মুহূর্তে তার নির্দেশনা তো বিশাল পাথেয়ও। আর বাংলাদেশের ড্রেসিং রুম? অভিজ্ঞতা বলতে ওই কোচ শেন জার্গেনসেন। আর কেই বা আছেন, বিপদে মনোবল জোগাবেন! ক্রিকেট তো মানসিক গেমও। সেটাও বুঝতেও অনেক দেরি! এ জয়ে ফাইনালে পৌঁছে গেল পাকিস্তান।
এ ম্যাচে পাকিস্তান পাহাড়সম স্কোর সামনে রেখে খেলতে নেমে আহমেদ শেহজাদ ও হাফিজ ৯৭ রানের এক পার্টনারশিপ খেলেন। টার্গেট ঠিক রেখে ব্যাটিং করলেও অত বিশাল রান তাড়া করবে তারা সেটা কল্পনাও ছিল না। হাফিজ আউট হন ওই সময় ৫২ করে। ক্রিজে এসে পরপর আউট হয়ে যান মিসবাহ ও মাকসুদ। ১০৫ রানে চার উইকেটের পতনের পর বিজয়ের উল্লাসটা শুরুই করে দিয়েছিল বাংলাদেশ। এরপর ফায়াদ আলমও নিশ্চিত ছিলেন লেগ বিফোর। দেননি আম্পায়ার। ব্যস! এরপর থেকে ম্যাচ টেনে নেন শেহজাদ ও ফায়াদ। তারা বাংলাদেশী বোলারদের বিপক্ষে যে ব্যাটিং প্রয়োজন সেটা করেই দলীয় রান নিয়ে যান ২১০-এ। অর্থাৎ এ জুটি খেলে ১০৫ রানের মূল্যবান পার্টনারশিপ। এতেই স্বপ্ন ফিকে হয়ে যেতে থাকে বাংলাদেশের। ওই ২১০ রানে আউট হন শেহজাদ। ততক্ষণে সেঞ্চুরিও হয় তার। ১১৭ বলে সেঞ্চুরি করেন তিনি একটি ছক্কা ও ১২টি বাউন্ডারির সাহায্যে। পরে ১০৩ রানে আউট হলে নামানো হয় রেহমানকে বিগ শট নিয়ে খেলার জন্য; কিন্তু পারেননি তিনি। আউট হন তিনিও। এর পরই আফ্রিদির ওই ঘটনা।
ম্যাচের রেজাল্ট যা-ই হোক না কেন, এটা ছিল বাংলাদেশের জেগে ওঠার ম্যাচ। আর এমন করেই ফিরল তারা সেটা স্মরণীয় হয়েও রইল। আগের ২৮১টি ওয়ানডেতে যা হয়নি সেটা হলো এতে। এত দিন জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে করা ৩২০ রানই ছিল এক ম্যাচের সর্বোচ্চ স্কোর। কাল সেটা টপকে রেকর্ড গড়ল ৩২৬/৩ এ। তবে এটাও ঠিক এনামুল বিজয় ও ইমরুল কায়েসের করা ওপেনিংয়ে ১৫০ রানের পার্টনারশিপের পর মুমিনুলও দুর্দান্ত ব্যাটিং করে স্কোর সমৃদ্ধ করার কাজটা সেরে রাখেন। এরপর মুশফিক ও সাকিব ঝড়ো এক ব্যাটিং করে দলের রান ৩০০ পার করতে সহায়তা করেন। তারা ৫.৪ ওভারে ৭৭ রানের এক পার্টনারশিপ খেলেন। যার ওপর ভর করেই ওই বিশাল স্কোর সংগৃহীত হয়। মুশফিক ৩৩ বলে ৫১ এবং সাকিব তিন ম্যাচ পর ফিরে ৪৪ রানে অপরাজিত ছিলেন। মাত্র ১৬ বলে ওই রান করেন তিনি। যার মধ্যে ছিল দু’টি ছক্কা ও ছয়টি বাউন্ডারির মার। এর আগে এনামুল করেন তার ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। প্রথমটি করেন তিনি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। কাল পাকিস্তানের পেস স্পিন সব ধরনের বোলিং মোকাবেলা করে দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে ওই সেঞ্চুরি করেন। এ ছাড়া অনেক দিন পর ওয়ানডেতে ফিরে ইমরুল করেছিলেন ৫৯ রান। মুমিনুলও ভালো করেন। ঠাণ্ডা মাথায় খেলে তিনি করেছিলেন ৪৭ বলে ৫১ রান।
বল হাতে সুবিধা করতে পারেননি এ দিন পাকিস্তানের বোলারেরা। তবে এলোমেলো হয়ে যায় তারা আবদুর রেহমানের ঘটনায়। ১১তম ওভারে এসে রেহমান প্রথম তিন বলই করেন ‘নো’। ফলে আম্পায়ার সাসপেন্ড করে দেন ম্যাচে বল করার ক্ষেত্রে। যদিও দলের অনেক সিনিয়র ও অভিজ্ঞ ক্রিকেটার তিনি। বহু ম্যাচ খেলেছেন তিনি ঢাকাতেও। তার বোলিং স্পেল ০-০-৮-০। মানে তিনটি নো বল করে ৮ রান দেন। কিন্তু কোনো বলই যোগ হয়নি তাতে। পরে মিসবাহ ফায়াদ আলমকে দিয়ে ওভার শেষ করেন। পাকিস্তানের মোহাম্মদ হাফিজই কর্তৃত্ব করতে পেরেছেন। ১০ ওভারে ২৭ রান। আর কেউ-ই পাত্তা পায়নি বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের কাছে। আজমল নিয়েছিলেন দু’টি।
আফ্রিদির কাছেই হেরেছি : মুশফিক
লড়াইটা ছিল মূলত গত এশিয়া কাপের প্রতিশোধের লড়াই। যে দু’জন দু’জনকে জড়িয়ে ধরে কেঁদেছিলেন। তারা দু’জনেই মাঠে উপস্থিত থেকে খেলেছেন। দু’জনেই ছিলেন স্বমহিমায় উজ্জ্বল। তবে গত বারের মতো এবারো সুখের হাসি হাসতে পারেননি কেউ। গ্যালারি ভর্তি দর্শকদের আনন্দের ধারায় হঠাৎ করেই শুনশান নীরবতা চলে আসে। দলের অন্যান্য সদস্য ছাড়াও আফসোসের সঙ্গী হয়েছে পুরো বাংলাদেশের মানুষ। গত এশিয়া কাপের ফাইনালে এই পাকিস্তানের কাছেই খুব কাছাকাছি থেকে হেরেছে বাংলাদেশ। গতকাল ফাইনাল না থাকলেও বাংলাদেশের জন্য একটি জয় ছিল বিশেষভাবে জরুরি। যে জয় জাতীয় দলের উৎসাহ জোগাবে, প্রেরণা হবে ওয়ার্ল্ড টি-২০ বিশ্বকাপের। আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়ার এই ম্যাচে টেনশনও ছিল প্রচুর। বিশেষ করে আফ্রিদি ক্রিজে আসার পর ১৮ বলে হাফ সেঞ্চুরি বিশেষভাবে ঝাঁকুনি দিয়েছে বাংলাদেশ শিবিরে। শেষ পর্যন্ত এক বল বাকি থাকতে বাংলাদেশের করা ৩২৬ রান টপকে ৩২৯ রান করল আফ্রিদি বাহিনী। ফল যা হওয়ার তাই। তিন উইকেটের পরাজয় মেনে মাঠ ছাড়ল সাকিব মুশফিক বাহিনী। তবে বাংলাদেশ ভালো একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ উপহার দিয়েছে তাই বা কম কিসে। ম্যাচ-পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে আফসোসের সাথে নিজেদের মেলে ধরার বিষয়টিও বেরিয়ে এলো মুশফিকের কণ্ঠে। ‘দল সিলেকশন ভালো ছিল। সাকিব ও রাজ্জাক ভালো বোলার হিসেবে সুনাম আছে। গত আট-দশ বছরে তারা কী করেছে সবাই জানে। অন্য রকম বোলার রাজ্জাক। আজকের ম্যাচে ডিফারেন্ট হয়েছে। আসলে হাই ভোল্টেজ ম্যাচে যেকোনো কিছুই হতে পারে। পাকিস্তানের বোলিং অ্যাটাক ভালো বলে আমরা ব্যাটসম্যান বেশি নিয়েছি। রুবেলের হাঁটুতে ইনজুরির কারণে তাকে নেয়া হয়নি। তা ছাড়া সবই ঠিক ছিল। আনলাকি হলে এমনই হয়। তানা হলে তিন শ’র ওপরে রান করেও কেন হেরে যাবো।’ রিয়াদ গত তিন ইনিংসে ছয় রান করায় দলে টিকেনি। তার পরও কেন তাকে নেয়া হলো। এমন প্রশ্নের উত্তরে মুশফিক বলেন, ‘আসলে দলে অলরাউন্ডার দরকার ছিল। সে ব্যাটিংয়ে ভালো করেনি। তবে বোলিং ভালো করেছে। তা ছাড়া দলে স্পিনারের দরকার ছিল। খেলোয়াড়ের পারফর্ম ওঠানামা করেই। তাই বলে একজনকে সরিয়ে দিয়ে নয়। আজ যদি রেজাল্ট ভালো হতো তাহলে এমন প্রশ্ন উঠত না।’ পরাজয়ের মূল কারণে বলেন, ‘আফ্রিদির কাছেই হেরেছি। সাকিব আমাদের বেস্ট বোলার। তাকেই সে যেভাবে পিটিয়েছে তাতে অন্য বোলার হতে কী করত। এটা বিশ্বাস করি, আফ্রিদির জায়গায় অন্য কেউ হলে এভাবে খেলতে পারত না। মুমিনুল ভালো বল করেছে। গত দুই মাসে আমরা ম্যাচগুলো ঠিকমতো হ্যান্ডেল করতে পারিনি। সে প্রভাব থেকে বেরিয়ে আসার সুযোগ ছিল কিন্তু হয়নি।’
লিমিটেড ওভারে আফ্রিদি দুনিয়াসেরা : মিসবাহ
কিছুটা গর্বভরেই পাকিস্তানের অধিনায়ক মিসবাহ জানান দিলেন, ‘লিমিটেড ওভারে আফ্রিদি দুনিয়াসেরা। যেকোনো বোলারকে সে মোকাবেলা করতে পারে। যেভাবে সে আজ ব্যাটিং করেছে তা সত্যিই দেখার মতো। যা চেয়েছে তাই করতে পেরেছে। ৩২৬ রান চেজ করাটা কঠিন। আমাদের ভাগ্য ভালো যে জিতেছি। তবে বাংলাদেশের খেলোয়াড়েরা খুব ভালো খেলেছে। তবে ম্যাচের শেষ পর্যন্ত উত্তেজনা ছিল। জয় পাবো কি না সন্দিহান ছিলাম। আফ্রিদির ব্যাটিং ছাড়াও ৪৮তম ওভারে রাজ্জাকের বলে ওভার বাউন্ডারি হাঁকালে আমাদের জন্য ম্যাচ জেতাটা সহজ হয়ে যায়। ওটাই ছিল ভাইটাল ওভার। আসলে বিপরে বোলিং দেখেই আফ্রিদিকে নামানো হয়। সে স্পিন খেলতে পছন্দ করে। যখন দেখেছি সাকিব ও রাজ্জাক বোলিং করছে। সে সময়টাই তার জন্য উপযোগী মনে করেছি। যেকোনো দলের জন্য ২৮০ রান হলেই তা সন্তোষজনক স্কোর। আমরা তো তিন শ’র ওপরে রান চেজ করেছি। এই জয় আমাদের প্রেরণা জোগাবে টি-২০ বিশ্বকাপের।’ আব্দুর রেহমান সম্বন্ধে বলেন, ‘ওটা খুব দুঃখজনক।’ উৎসঃ   নয়া দিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ