• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩৪ পূর্বাহ্ন |

কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে পুরনো কাগজ বিক্রিতে দুর্নীতি

Uni karogoriঢাকা: কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের পুরনো অকেজো কাগজ বিক্রির টেন্ডারে গুরুতর অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এর আগে পুরনো অকেজো কাগজ, পুরনো উত্তরপত্র, পুরনো ওএমআর লিথো ফরম উন্মুক্ত টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রয়ের জন্য অনুমতি দেয়া হয়। বোর্ড কর্তৃপক্ষ উন্মুক্ত টেন্ডার আহ্বান করলেও পরবর্তী পর্যায়ে সব কিছুই হয়েছে অত্যন্ত সঙ্গোপনে। টেন্ডার জালিয়াতি এবং নির্ধারিত সময়ে টেন্ডার ফেলতে বাধা দেয়ার কারণে প্রথম দফার টেন্ডার বাতিল করা হয় বলে জানা গেছে। পরে টেন্ডার বাক্সে না ফেলে বোর্ডসচিব নিজ হাতেই টেন্ডারদাতাদের কাছ থেকে কোটেশন জমা নিয়েছেন। হাতে হাতে কোটেশন জমা নিয়ে তাতে টেম্পারিং করা হয়েছে বলে অভিযোগ টেন্ডারদাতাদের। তারা বলেন, চিহ্নিত প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেয়ার জন্যই দরপত্রের সাজানো নাটক করছে বোর্ড কর্তৃপক্ষ।
কারিগরি বোর্ডের অন্য সব ঠিকাদারি কাজের ক্ষেত্রেও অনেকটা একই ধরনের জালিয়াতি ও অনিয়মের ঘটনা অব্যাহতভাবে হয়ে আসছে বলে সংশ্লিষ্টদের অভিযোগ। বোর্ড কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগসাজশে বার বার একই ধরনের ঘটনা ঘটছে। বোর্ডের শীর্ষ পর্যায়সহ কোথাও অভিযোগ করে কোনো ধরনের প্রতিকার পাওয়া যাচ্ছে না। একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেটের মাধ্যমে সব অনিয়ম ও কর্মকাণ্ড পরিচালিত হচ্ছে। এর সাথে বোর্ডের কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারীর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদ রয়েছে বলে জানা গেছে। তারাই সব অপকর্মের হোতাদের আশকারা দিয়ে থাকেন বলে সংশ্লিষ্টরা অভিযোগ করেন। কারণ শীর্ষ থেকে সর্ব নিম্নস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অনেকেই এসব পদে দীর্ঘদিন চাকরি করছেন। তাদের বদলি বা চেয়ার পরিবর্তনের কোনো সুযোগ খুব একটা না থাকায় অপরাধের সিন্ডিকেটটি শেকড় গেড়ে বসেছে বলে জানা গেছে।
পুরনো অকেজো কাগজ বিক্রির টেন্ডার সম্পর্কে অভিযোগÑ বোর্ডের কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশে সচিবের অফিসে টেন্ডারে জালিয়াতি করে পূর্বনির্ধারিত একটি প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেয়া হয়েছে এবং অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর টেন্ডারের দর পরিবর্তন করা হয়েছে। ফলে টেন্ডারে অংশ নেয়া অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর কেউই প্রতিযোগিতায় টেকেনি। ওয়ার্ক অর্ডার যাকে দেয়া হয়েছে ওই প্রতিষ্ঠান ছাড়া টেন্ডারে অংশ নেয়া আর কোনো প্রতিষ্ঠান কিছু জানতে পারেনি এখন পর্যন্ত। কিভাবে ওয়ার্ক অর্ডার হয়েছে এবং কারা কাজ পেয়েছে তা জানাতে গড়িমসি করেছেন টেন্ডার নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। অত্যন্ত সঙ্গোপনে সব কিছু শেষ করা হয়েছে। ই জেড এন্টারপ্রাইজ নামে যে প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেয়া হয়েছে সে প্রতিষ্ঠানের মালিক অবৈধ লেনদেনের মাধ্যমে কাজটি বোর্ড কর্মকর্তাদের কাছ থেকে বাগিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
এ ব্যাপারে বোর্ডসচিবে ড. মো: আবদুল হক তালুকদারের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের ও তদন্ত কমিটি গঠনের দাবি জানিয়েছিলেন টেন্ডারে অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠান মেসার্স মুনিয়া ট্রেডিং। অভিযোগে বলা হয়, বোর্ড অফিসের অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগসাজশে কাজ পাওয়া ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান অন্য প্রতিষ্ঠানের শিডিউলের দর পরিবর্তন করেছে। এটি একটি জালিয়াতি এবং গুরুতর অপরাধ। বোর্ড কর্তৃপক্ষ অভিযোগপত্রের ভিত্তিতে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে। কমিটির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অভিযোগ স্পষ্ট নয়, এর সত্যতা পাওয়া যায়নি। টেন্ডার জালিয়াতি সম্পর্কে তদন্ত কমিটি বলেছে, এ ব্যাপারে কাউকে চিহ্নিত করা যায়নি।
তদন্ত কমিটির রিপোর্ট সম্পর্কে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, প্রতিবেদনটি তথ্যভিত্তিক নয়। লিখিত অভিযোগকারী মেসার্স মুনিয়া ট্রেডিংয়ের স্বত্বাধিকারী এম এ হোসেন বলেন, অত্যন্ত সঙ্গোপনে টেন্ডার খোলা হয়েছে। ঠিকাদারদের অনুপস্থিতিতে টেন্ডার খোলা হয়নি। বোর্ড কর্তৃপক্ষ কারো কোনো আপত্তিই আমলে নেয়নি। সব কিছুই করা হয়েছে লোক দেখানো। আসলে আগেই সব কিছু ঠিক করে রাখা ছিল। এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটির প্রধান বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ড. মো: রফিকুল ইসলাম মীরের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বলেন, টেন্ডার খোলার সময় কাউকে পাওয়া যায়নি। অভিযোগকারীও টেন্ডার খোলার সময় উপস্থিত হননি। তার অভিযোগগুলোও স্পষ্ট নয়।
টেন্ডার জালিয়াতির অভিযোগ সম্পর্কে বোর্ডসচিব ড. মো: আবদুল হক তালুকদারের সাথে গত তিন দিন মোবাইল ফোন ও অফিসের ফিক্সড ফোন নাম্বারে অব্যাহত যোগাযোগ করেও তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি। বোর্ডসচিবের অফিস সহকারী শাহাদাৎ গতকাল দুপুরে জানান, সচিব অপরিচিত কারো ফোন ধরেন না, কথাও বলেন না।
টেন্ডার জালিয়াতি ও অন্যান্য অনিয়ম সম্পর্কে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মো: আবুল কাশেম  বলেন, বোর্ডসচিব মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব এবং তিনি একজন সৎ অফিসার। বোর্ডের সব কার্যক্রম স্বচ্ছতার সাথেই করা হয়। টেন্ডার টেম্পারিং বা জালিয়াতির অভিযোগ এখন পর্যন্ত কেউ করেনি। পুরনো অকেজো কাগজ বিক্রির টেন্ডার সম্পর্কে তিনি বলেন, স্বচ্ছতার জন্য তদন্ত কমিটি করা হয়েছিল। কমিটি কোনো অনিয়ম পায়নি। আর অভিযোগ করা হয়েছে কার্যাদেশ দেয়ার পর।     নয়া দিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ