• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:১৭ পূর্বাহ্ন |

কিশোরগঞ্জ আওয়ামীলীগ প্রার্থীর ভরাডুবির নেপথ্যে

ECসিএসএম তপন, কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী): ২৭ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের প্রার্থীর চরম ভরাডুবি হয়েছে। ৬ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে আ’লীগের প্রার্থী সর্বনি¤œ ভোট পেয়ে জামানত হারিয়েছেন। প্রার্থী নির্বাচনে উপজেলা আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতিকে প্রার্থী করায় এ ভরাডুবি বলে মনে করছেন এলাকার নেতা কর্মীরা। এ ছাড়া তৃণমুল নেতকর্মীদের দাবি যে সকল উপজেলায় আ’লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা পরাজিত হচ্ছে সে সব উপজেলায় সরাসরি দলের সভাপতি ও প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে একটি তদন্ত টিম গঠন করে বিষয়টি খতিয়ে দেখা। তা না হলে আগামীতে দলের বড় ধরনের ক্ষতি হয়ে যাবে।
চেয়ারম্যান পদে বেসরকারী ফলাফলে এ উপজেলায় জাতীয় পার্টি সমর্থিত প্রার্থী কিশোরগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি রশিদুল ইসলাম ( ঘোড়া) বেসরকারী ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।
তিনি ভোট পেয়েছেন  ৩৫ হাজার ৭৭৩ । তার নিকটতম প্রার্থী বিএনপির উপজেলা সভাপতি রাজ্জাকুল ইসলাম রাজা ( আনারস)পেয়েছেন  ২৬ হাজার ৮০৭  ভোট।
এ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন জেলা ওলামা দলের সভাপতি আ ফ ম রুহুল আমিন। তিনি ভোট পেয়েছেন ২৩ হাজার ৪৪৫। তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী জোনাব আলী পেয়েছেন ১৯ হাজার ৯৮৯ ভোট। এখানে আওয়ামীলীগের রবিউল ইসলাম বাবু পেয়েছেন ১৯ হাজার ৫৭১। নারী ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী শিরিনা বেগম। তিনি ভোট পেয়েছেন ৪৯ হাজার ১৮৩। তার নিকটতম আওয়ামীলীগ সমর্থিত ফাতেমা বেগম ভোট পেয়েছেন ২৯ হাজার ৪৩৫ভোট।
এ উপজেলায় আওয়ামীলীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থীছিলেন  উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এছরারুল হক(কাপপিরিচ)। তিনি ভোট পেয়েছেন মাত্র এক হাজার ১০৯ ভোট। অপর দিকে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী নিতাই ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সদস্য মশিয়ার রহমান (মটরসাইকেল) ভোট পেয়েছেন ২১ হাজার ৩৩২। এখানে আওয়ামীলীগ সমর্থিত প্রার্থীর তুলনায় বিদ্রোহী প্রার্থী প্রায় ২০ গুন এবং বিজয়ী  প্রার্থী ৩৫ গুন বেশি ভোট পান।
চেয়ারম্যান প্রার্থী মশিয়ার রহমান বলেন উপজেলা আঃ লীগের তৃণমুল নেতাকর্মীদের বৈঠকের সিদ্ধান্তে ও সমর্থনে আমি প্রার্থী হলেও উপজেলা আঃ লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এছরারুল হক জোড় পূর্বক প্রার্থী হন। পরে কেন্দ্রিয় ও জেলা নেতৃবৃন্দের সিদ্ধান্তে এছরারুল হক কে দলীয় প্রার্থী ঘোষনা করা হয়। এমন কি আমাকে আঃ লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসাবে অপ প্রচারে কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দ কে নিয়ে আসেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি। তিনি অভিযোগ করে বলেন এসব ঘটনায় চলে টাকার খেলা। আর আমার বিজয় ঠেকানোর জন্য শেষ মুহুর্তে এছরারুল হক রাতারাতি তার পক্ষের নির্বাচন প্রচারনা বন্ধ করে জাতীয় পাটির প্রার্থীকে ভোট দেয়ার  জন্য ভোটারদের উৎসাহিত করেন।
কিশোরগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ফণি ভূষন মজুমদার অভিযোগ করে বলেন, আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নিজে প্রার্থী হলেও  জাপা প্রার্থী রশিদুল ইসলামের ঘোড়া প্রতিকে পক্ষ নিয়ে নিজে যেমন হেরেছেন তেমনি দলের অপর প্রার্থী মশিয়ার রহমান কে হারিয়েছেন। তিনি বলেন  মশিয়ার রহমান তৃণমুল নেতা কর্মীদের সমর্থনে  প্রার্থী হলেও বেশ কিছু কেন্দ্রিয় নেতা মাঠ পর্যায়ের বাস্তবতা না জেনে  গত ২৩ফেব্রুয়ারী  বিকেলে কিশোরগঞ্জ বাজারে এসে এক পথ সভা করেন। সভায় তারা এছরারুলকে দলীয় সমর্থন  জানিয়ে  মশিয়ারকে বিদ্রোহী  প্রার্থী ঘোষনা করেন। এ সময় সেখানে ছিলেন, আওয়ামীলীগের রংপুর বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ, সাবেক বানিজ্য মন্ত্রী ফারুক খান,অসিম কুমার উকিল সহ স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতারা। তার দাবি যে সকল উপজেলায় আঃ লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা পরাজিত হচ্ছে সে সব উপজেলায় সরাসরি দলের সভাপতি ও প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে একটি তদন্ত টিম গঠন করে বিষয়টি খতিয়ে দেখা। তা না হলে আগামীতে দলের বড় ধরনের ক্ষতি হয়ে যাবে।
এ ব্যাপারে কথা বলা হয় আওয়ামীলীগের পরাজিত ও জামানত হারানো চেয়ারম্যান প্রার্থী  উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এছরারুল হক বলেন দলীয় নেতা কর্মীরা আমার সাথে বিট্ট্রে (অসহযোগিতা) করেছেন।  কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দ তার পক্ষে কাজ করেছেন স্বীকার করলেও জাতীয় পার্টির প্রার্থীর  পক্ষে দলীয় নেতা কর্মীদের কাজ করার কথা অস্বীকার করেন তিনি।
অপর দিকে কিশোরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জাকির হোসেন  বাবুল বলেন আমি গত ৫ বছরের উপজেলা চেয়ারম্যান ছিলাম। বিপুল ভোটে জয় লাভ করেছিলাম। কিন্তু কোন জনসমর্থন বা নেতাকর্মীদের সমর্থন না থাকলেন উপজেলা আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এছরারুল হক জোর পূর্বক দলীয় প্রার্থী হয়েছেন। ফলে আমি আমার প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নিতে বাধ্য হই। এ ছাড়া কেন্দ্রিয় নেতারা তার পক্ষে এখানে জনসভা করলেও স্থানীয় নেতা কর্মীদের সাথে কোন আলোচনা না করে চলে গেছেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন এছরারুল হক এখানে তার নির্বাচনী জনসভায় কেন্দ্রিয় নেতাদের এখানে আনছেন সে বিষয়টিও স্থানীয় নেতা কর্মীদের জানাননি। তিনি মনে করেন কেন্দ্রিয় নেতাদেরও  উচিৎ  ছিল মাঠ পর্যায়ে জরিপ করে এখানে আসা। ফলে যা হবার তাই হয়েছে। দলের প্রার্থীর শুধু চরমভাবে ভরাডুবি নয় লজ্জার বিষয় জামানত টুকু হারাতে হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ