• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৬:২০ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীর শিবির নেতা মহিদুলের লাশ সনাক্ত

photo-04.03.14সিসি নিউজ: বগুড়ায় অজ্ঞাত লাশ হিসেবে দাফনের একমাস তিনদিন পর নীলফামারী সদর থানায় পাঠানো লাশের ছবি দেখে নিখোঁজ শিবির নেতা মহিদুলের লাশ সনাক্ত করেছে পরিবারের সদস্যরা। গত ১ ফেরুয়ারী বগুড়া আঞ্জুমানে মফিদুলে অজ্ঞাতনামা হিসেবে মহিদুলের লাশ দাফন করা হয়েছিল। নীলফামারী সদর উপজেলার টুপামারী ইউনিয়নের সুখধন গ্রামের ক্বারী আনোয়ার হোসেন ছেলে মহিদুল। সে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সন্মান তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ও ইসলামী ছাত্র শিবিরের সদস্য ছিল। গত ২০১৩ সালের ১৪ ডিসেম্বর জেলা সদরের রামগঞ্জ বাজারে এমপি আসাদুজ্জামান নুরের গাড়ী বহরে হামলা ও আওয়ামী লীগের চারজন নেতাকর্মী হত্যার মামলার নয় নম্বর আসামী ছিলেন মহিদুল। মহিদুল ইসলামের খালা মমেনা বেগম, মামি রাশেদা খানম, বড় বোন আম্বিয়া ও আফরোজা বেগম জানায়, ওই ঘটনার পর থেকে  মহিদুল ও তার বন্ধু আতিক টাঙ্গাইল জেলার দেলদুয়ার উপজেলার দেবিডুবা গ্রামে সাথিয়া স্কুলের নিকটবর্তী আতিকের আত্মীয় বাবুল খানের বাড়িতে আত্মগোপনে ছিল। এদিকে গত ১৩ জানুয়ারী রাতে আইনশৃংঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সেখান থেকে মহিদুল ও আতিককে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। গ্রেফতারের পর ২০ জানুয়ারী আতিকের রক্তাক্ত লাশ নীলফামারীর সৈয়দপুরে পাওয়া গেলেও এতোদিন মহিদুলের কোন সন্ধান মিলেনি। তারা জানায় মঙ্গলবার দুপুরে নীলফামারী থানা থেকে কয়েকজন পুলিশ লাশের একটি ছবি দেখিয়ে বলেন এই ছেলেটির লাশ গত ১ফেরুয়ারী বগুড়ার মোকামতলায় পাওয়া যায়। পরে তার কোন পরিচয় না পেয়ে তাকে অজ্ঞাত হিসেবে দাফন করা হয়েছে। ছবিটি দেখে আমরা সেটি মহিদুলের বলে সনাক্ত করি।
বগুড়া মোকামতলা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক সানোয়ার হোসেন জানান, গত এক ফেব্রুয়ারী বগুড়া মোকামতলা রহবল বাজারের উত্তর পাশে একটি উচু জমি থেকে এক অজ্ঞাতনামা যুবকের লাশ উদ্ধার করা হয়। লাশের মাথার বাম পাশে কানের উপরে গুলি ঢুকে তা ডান পাশ দিয়ে বের হয়ে গেছে। অনেক অনুসন্ধানের পরেও কেউ সনাক্ত করতে না পারায় ময়না তদন্ত শেষে অজ্ঞাতনামা লাশ হিসেবে বগুড়া আঞ্জুমানে মফিদুল তাকে দাফন করে। দেশের সব থানায় লাশের ছবিসহ ম্যাজেজ দেয়ার পরে মঙ্গলবার জানা গেল, তার বাড়ি নীলফামারী সদর উপজেলার রামগঞ্জ গ্রামে।
নীলফামারী সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) বাবুল আকতার জানান, ছবি দেখে মহিদুল ইসলামের পরিবারের লোকজন তাকে সনাক্ত করেছে।
প্রসঙ্গত ২০১৩ সালের ১৪ ডিসেম্বর জেলা সদরের রামগঞ্জ বাজারে নীলফামারী-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ও সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুরের গাড়ী বহরে হামলা এবং পরে আওয়ামী-পুলিশের সাথে ১৮ দলের সংঘর্ষে আওয়ামী লীগের চার জন সহ পাঁচজন নিহত হয়। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি ও  নিহত কৃষক লীগ নেতা খোরশেদ আলম চৌধুরীর ভাই রাশেদ আলম চৌধুরী বাদি হয়ে অপর একটি মামলা দায়ের করেন। নিহত খোরশেদ আলম চৌধুরীর ভাইয়ের দায়ের করা মামলার নয় নম্বর আসামী ছিল শিবির নেতা মহিদুল ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ