• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১১:০৭ পূর্বাহ্ন |

‘বেটিং এনজাইম’ আবিষ্কারকের স্বীকৃতি পেলেন তরুণ বিজ্ঞানী রুবেল

68814_1সিসি ডেস্ক: প্রথম কোনো বাংলাদেশি হিসেবে ‘বেটিং এনজাইম’ আবিষ্কারকের স্বীকৃতি পেলেন তরুণ বিজ্ঞানী সৈয়দ রুবেল হোসেন।
ট্যানারি শিল্পে চামড়া প্রক্রিয়াজাতকরণের ক্ষেত্রে অপরিহার্য একটি উপকরণের নাম বেটিং এনজাইম। রুবেল হোসেনের আবিষ্কারের ফলে গুরুত্বপূর্ণ এ উপকরণটি এখন বাংলাদেশেই উৎপাদন করা সম্ভব হবে।
সৈয়দ রুবেল হোসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চতর বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্রর অধীনে গবেষণা করে বেটিং এনজাইম আবিষ্কারে সফল হন।
তরুণ এ বিজ্ঞানী মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার হরেকৃষ্ণপুর গ্রামের সৈয়দ সলেমান আলী ও শিউলী আক্তারের ছেলে। সম্প্রতি একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বেটিং এনজাইম আবিষ্কারের স্বীকৃতি স্বরূপ রুবেল হোসেনকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি ও সনদ (আন্তর্জাতিক গবেষকের স্বীকৃতি) প্রদান করা হয়।
চামড়া প্রক্রিয়াজাতকরণের একটি অপরিহার্য ধাপ বেটিং, যেখানে বেটিং এনজাইম সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। কাঁচা চামড়াকে পণ্য উৎপাদনের পর্যায়ে নিয়ে যেতে বেটিং এনজাইমের কোনো বিকল্প নেই। চামড়ার গুণগতমান ঠিক রেখে টেকসই ও আরামদায়ক পণ্য উৎপাদন নির্ভর করে বেটিংয়ের সফলতার ওপর। চামড়া শিল্পের জন্য অপরিহার্য এ উপকরণটি এখনও পর্যন্ত উচ্চ মূল্যে জার্মানি থেকে আমদানি করে থাকে বাংলাদেশ।
এ উপকরণটি দুই রূপে পাওয়া যায়- একটি পাউডার, অন্যটি তরল। এর মধ্যে তরল বেটিং অধিক কার্যকরী। কিন্তু জার্মানি থেকে তরল বেটিং আমদানি জটিল ও অধিক ব্যয়বহুল। যে কারণে পাউডার বেটিং আমদানির পর দ্রবণ তৈরি করে দেশের চামড়া শিল্পে ব্যবহার করা হয়। চামড়া শিল্পের সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের কাছে এ উপকরণটি বেট পাউডার নামে পরিচিত।
সৈয়দ রুবেল হোসেনের জন্ম ১৯৮৬ সালে। মাগুরার মহম্মদপুরের নিভৃত হরেকৃষ্ণপুর গ্রামে। গ্রামের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে পঞ্চম শ্রেণি, উপজেলা সদরের ঐতিহ্যবাহী আর. এস. কে. এইচ. ইন্সটিটিউশন থেকে এসএসসি এবং আমিনুর রহমান কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। এর পর ২০০৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউট থেকে কৃতিত্বের সঙ্গে স্নাতক সম্পন্ন করেন।
স্নাতক শেষে তিনি গবেষণা বিজ্ঞানী হিসেবে যোগ দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুজীব বিজ্ঞান বিভাগের অধীনে উচ্চতর বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্রে। ২০১০ সালের শুরু থেকেই তিনি বেটিং এনজাইম নিয়ে গবেষণায় আত্মনিয়োগ করেন। তার সঙ্গে প্রধান গবেষণা উপদেষ্টা হিসেবে ছিলেন অনুজীব বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মুজাম্মেল হক এবং গবেষণা সহযোগী ছিলেন আরাফাত আল-মামুন, নাহিম আহমেদ আকন্দ ও রুবেলের সহপাঠী রুহুল আমীন টুটুল।
দীর্ঘ ৩ বছর গবেষণার পর চলতি বছরের ২৫ জানুয়ারিতে বেটিং এনজাইম আবিষ্কারে সফল হন তারা। দেশীয় কাঁচামালে এবং স্বল্প ব্যয়ে তরল বেটিং উৎপাদনে অবিশ্বাস্য সাফল্য নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের জন্য অনন্য ও গৌরবোজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।
সম্প্রতি ঢাকার হোটেল ওয়েস্টিনে আমেরিকান সংস্থা কেয়ারসের আয়োজনে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো বায়োটেকনোলজি-বিষয়ক (জৈব প্রযুক্তি) এক আন্তর্জাতিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শ্রীলঙ্কার বিজ্ঞান প্রতিমন্ত্রী প্রফেসর তিশা ভিতারানা। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের কৃষি মন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমির প্রেসিডেন্ট ড. শমসের আলী। ওই সম্মেলনে দেশ-বিদেশের আরো অনেক আবিষ্কারের সঙ্গে বাংলাদেশে আবিষ্কৃত বেটিং এনজাইমকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি দেয় কেয়ারস।
তরুণ বিজ্ঞানী ড. সৈয়দ রুবেল হোসেন জানান, চাউলের কুড়া ও ব্যাকটেরিয়া সেল থেকে খুব সহজেই তরল বেটিং উৎপাদন করা সম্ভব। তিনি বলেন, জার্মানির থেকে আমদানি করা প্রতি লিটার তরল বেটিংয়ের মূল্য তিন শ ৫০ টাকা। যেখানে দেশে উৎপাদিত সমগুণের তরল বেটিং প্রতি লিটার ৫০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি করা সম্ভব হবে।
তিনি আরো বলেন, সরকার এই সফলতাকে পৃষ্ঠপোষকতা করলে দেশেই তরল বেটিং উৎপাদন সহজ হবে। সেক্ষেত্রে দেশের চামড়াজাত পণ্যের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানি করে এ খাত থেকে আরো বেশি বৈদিশ মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব হবে বলে জানান তিনি।
উৎসঃ   রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ