• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৭:০৯ অপরাহ্ন |

রেলের শত কোটি টাকার সম্পদ মাটির নিচে

Trainঢাকা: সারাদেশে রেলওয়ের সাড়ে ৩ লাখ স্লিপার মাটির নিচে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। মরিচা পড়ে লতা-গুল্মে ঢেকে গেছে ৯ হাজার ১৭৪ টন ওজনের ১৮ হাজার ৪০৮টি ট্র্যাক (রেল লাইন)।
রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলে ১৪০ ও পশ্চিমাঞ্চলে ৯৫ কিলোমিটারসহ মোট ২৩৫ কিলোমিটার লাইনে কোনো ট্রেন চলে না। অব্যবহৃত রেললাইনে এসব স্লিপার ও ট্র্যাক পড়ে থাকায় রেলওয়ের বিপুল পরিমান সম্পদ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।
রেলওয়ের (পূর্বাঞ্চল) ট্র্যাক পরিসংখানে জানা গেছে, তিন শ্রেণীর স্লিপারের মধ্যে গড়ে প্রতি স্লিপার ৩ হাজার টাকা মূল্য হিসেবে সাড়ে ৩ লাখ স্লিপারের মূল্য দাঁড়ায় ৯০ কোটি টাকা। আর প্রতিটন ট্র্যাক গড়ে ১ লাখ টাকা হলে মোট ট্র্যাকের মূল্য দাঁড়ায় ৯ কোটি ১৭ লাখ ৪০ হাজার টাকা।
সব মিলিয়ে সরকারের প্রায় ৯৯ কোটি ১৭ লাখ ৪০ হাজার টাকার সম্পদ অব্যবহৃত অবস্থায় মাটির নিচে পড়ে আছে। সরজমিনে ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, অব্যবহৃত রেললাইনের কোনো কোনো এলাকায় ট্র্যাকগুলো চুরি হয়ে যাচ্ছে। ট্র্যাকগুলোর গায়ে মরিচা পড়ে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ছে। ভবিষৎতে বন্ধ হয়ে যাওয়া লাইন সংস্কার করা না হলে এসব স্লিপার ও ট্র্যাক কোনো কাজে আসবে না। যদিও সংস্কার করা হলেও তখন নতুন করে নতুন স্লিপার ও ট্র্যাকের প্রয়োজন হবে বলে রেলের ট্র্যাক অফিসাররা জানান।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী বিভাগের প্রকৌশলীরা জানান, হবিগঞ্জ-বাল্লা, ফেনী-বেলুনিয়া, ঈশ্বরদী-পাকশি, কুলাউড়া-শাহবাজপুরসহ বন্ধ হওয়া ২৩৫ কিলোমিটার রেললাইন সংস্কারে সরকারের কোনো উদ্যোগ নেই।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে রেলওয়ের এক কর্মকর্তা জানান, এসব অব্যবহৃত রেললাইনে আদৌ ট্রেন চলাচলের কোনো সম্ভাবনা নেই।
তাহলে বছরের পর বছর এভাবে মাটির নিচে পড়ে থাকলে সরকারের বিপুল পরিমান সম্পদই নষ্ট হয়ে যাবে। এই বিপুল পরিমান সম্পদ রক্ষা করতে হলে টেন্ডারের মাধ্যমে ট্যাক টন হিসেবে বিক্রি এবং স্লিপারগুলো তুলে অন্য কোন নতুন লাইনে কাজে লাগানো হলে সরকারের বিপুর পরিমাণের সম্পদ রক্ষা পেতে পারে।
অন্যদিকে ট্র্যাক ও স্লিপার টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রির টাকা দিয়ে ৫ থেকে ৬টি রেল ইঞ্জিন কেনাও সম্ভব বলে রেল বিশেষজ্ঞদের অভিমত।
রেলপথমন্ত্রী মো. মুবিবুল হক জানান, স্বাধীনতার ৪০ বছর পর পৃথক রেলমন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠা করা হয়। রেলমন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠার এক বছর বয়সে রেলওয়ের অনেক প্রকল্প নেয়া হয়েছে। উন্নয়নও কম-বেশি হচ্ছে। নগরীর যানজট ও যাত্রীসেবার মান বাড়াতে চীন থেকে ২০টি কমিউটার ট্রেন সংগ্রহ করা হয়েছে। গত ৫ মার্চ ক্যান্টনমেন্ট স্টেশনে এ দুটি ইঞ্জিন উদ্বোধন করেন ভারতের রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী। অচিরেই রেল বিভাগ দৃশ্যমান কাজ দেখাতে পারবে। পাশাপাশি বন্ধ হওয়া রেললাইন যথাযথভাবে কাজে লাগানোর প্রক্রিয়া আমরা শুরু করবো।
রেলওয়ের মহাপরিচালক তোফাজ্জল হোসেন জানান, পর্যায়ক্রমে আমরা কাজ করছি। বন্ধ লাইন চালু করার পরিকল্পনা সরকারের আছে। তাছাড়া আমাদের জনবল, অর্থসহ নানা প্রতিবন্ধকতা আছে। এসব প্রতিবন্ধকতা আমরা দ্রুত কাটিয়ে উঠতে পারবো।
রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, সারাদেশে ২ হাজার ৮৯১ কিলোমিটার রেলপথের মধ্যে ব্রডগেজ ৬৫৯ কিলোমিটার, ডুয়েল গেজ ৩৭৫ কিলোমিটার এবং মিটারগেজ এক হাজার ৭৫৬ কিলোমিটার। এসব লাইনের মধ্যে প্রায় এক হাজার ১শ’ কিলোমিটার লাইন জরুরি মেরামত করার কথা জানান কর্তৃপক্ষ। এসব লাইনের মধ্যে ১শ’ কিলোমিটার লাইনই ঝুঁকিপূর্ণ। ফলে বাড়ছে লাইনচ্যুতির ঘটনা। রেল পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, গত এক বছরে ১৬২টি লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনার ভয়ে ধীরগতিতে চলছে রেল। কিছু কিছু ক্ষেত্রে মাত্র ৫০ কিলোমিটার রেলপথ অতিক্রম করতে সময় লাগছে চার-পাঁচ ঘণ্টা।
এছাড়া এক হাজার ১শ’ কিলোমিটার রেললাইনের নিচে স্লিপার ক্ষয় হয়ে গেছে। অনেক জায়গায় স্লিপারের নিচ থেকে পাথর সরে গিয়ে মাটি ও বালু বের হয়ে গেছে। এসব ঝুঁকিপূর্ণ লাইনে চলছে ট্রেন। ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, রাজশাহী, খুলনা, ময়মনসিংহ, পঞ্চগড় ও দিনাজপুরসহ রেলওয়ের পূর্ব ও পশ্চিম অঞ্চলের অধিকাংশ রেলপথ জরাজীর্ণ অবস্থায় রয়েছে। অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ এসব রেলপথ। দুর্ঘটনার ভয়ে কিছু কিছু লাইন দিয়ে রেল চলাচল করতে হচ্ছে ধীর গতিতে।
রেলওয়ের সূত্র আরও জানায়, বিগত সরকারের আমলে রেললাইনের সংস্কার, সিগন্যাল আধুনিকীকরণ, আন্ডারপাস-ওভারপাস নির্মাণসহ বিভিন্ন প্রকল্পে বাজেটে বরাদ্দ করা দেয়া হয়েছে ঠিকই কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। এ কারণে বিভিন্ন এলাকায় রেলওয়ে স্টেশনের চেহারা সুন্দর হলেও রেলপথের অবস্থা দিন দিন শোচনীয় অবস্থায় পৌঁছেছে। বর্তমান সরকার আমলেও সংস্কার কাজ হলেও রেলপথ মেরামত ও আধুনিকীকরণে কোনো বড় প্রকল্প এখন পর্যন্ত বাস্তবায়ন করা হয়নি। বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ