• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩৪ পূর্বাহ্ন |

ইসরায়েলে ফিলিস্তিনি নারীকে বিবস্ত্র করে তল্লাশি

Biman Esrilআন্তর্জাতিক ডেস্ক: সন্ত্রাসী সন্দেহে ইসরায়লের বেন-গুরিয়েন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে এক ফিলিস্তিনি নারীকে বিবস্ত্র করে তল্লাশি করা হয়েছে। ঘটনার শিকার ওই নারী একজন শিক্ষিকা। তাঁর নাম আজিস ইলিয়াস শেহাদেহ। সন্ত্রাসী আশঙ্কায় বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ তাঁর চুল, ব্যাগ, মোবাইল ফোন, আংটি সবই পরীক্ষা করে। এরপর একটি ছোট্ট ঘরে নিয়ে গিয়ে বিবস্ত্র করে তাঁর শরীর তল্লাশি করা হয়। তখন অবনত মস্তকে তাঁর দু’চোখে ঝরেছে শুধু অশ্রু। এ খবর দিয়েছে ইসরায়েলেরই প্রভাবশালী পত্রিকা হারেটজ। বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের এমন আচরণে ক্ষোভ প্রকাশ করে পত্রিকাটি লিখেছে, এ লজ্জা আমাদের। সমস্ত ইহুদির। আমরা যারা ইসরাইলে বাস করি এবং এমন অভিজ্ঞতা অর্জন করি, এ লজ্জা আমাদের।

হারেটজ জানায়, ফিলিস্তিনের সাফেদ এলাকায় ইলিয়াস শেহাদেহর জন্ম। ১৯ বছর ধরে তিরাত কারমেল এলাকায় ইহুদিদের একটি হাই স্কুলে পর্যটনের ওপর তিনি পড়াশোনা করেছেন। ঘটনার দিন তিনি শিক্ষার্থীদের নিয়ে একটি সফর শেষে আইলাতে ফিরছিলেন। বেন- গুরিয়েন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টের নিরাপত্তা স্ক্রিনিং স্টেশনের কাছে পৌঁছাতেই তাঁকে শিক্ষার্থীদের থেকে আলাদা করা হয়। এমন আচরণ করা হয় যেন তিনি একজন সন্ত্রাসী।

ইলিয়াস নিরাপত্তারক্ষীদের তাঁর শিক্ষক সমিতির সদস্য কার্ড দেখান। তিনি একজন আরব এটা বোঝার পর তাঁকে বোর্ডিং পাস না দিয়ে ডাকা হয় স্ক্রিনিং স্টেশনে। পার্স ও সুটকেস খুলে সব তন্ন তন্ন করে দেখা হয়। জুতা, আংটি খুলতে বলা হয়। তাঁর মোবাইল ফোন নিয়ে দূরে নিয়ে যায় নিরাপত্তারক্ষী। তাঁর পার্স একেবারে ফাঁকা করে দেওয়া হয়।

ওই ফ্লাইটে অন্য কোন যাত্রীর সঙ্গে এমন আচরণ করা হয়নি। এরপর তাঁকে একটি ঘরে নিয়ে যাওয়া হয়। ইলিয়াস অভিযোগ করেন, ওই ঘরের বাইরে অবস্থান নেয় ইসরাইলের একজন নিরাপত্তারক্ষী। অন্যদিকে ঘরের ভিতরে তাঁর শরীর তল্লাশি করেন আরেক নারী কর্মকর্তা। তিনি হাতে পরে নেন গ্লোভস। শেহাদেহ ওইদিন সুন্দর করে চুল বেঁধেছিলেন। ওই নিরাপত্তারক্ষী তার সেই চুল খুলে তার ভেতর বিনুনি দিয়ে দেখেন কোন অবৈধ জিনিস আছে কিনা।

শেহাদেহ বলেন, তারা আমার শরীরের সব জায়গায় হাত দিয়েছে। তারা আমার পোশাক খুলতে বলে। অন্তর্বাস খুলতে বলে। তখন আমি শুধু অন্তর্বাস পরিহিত। অসহায় আমি কিছু বলতে না পারায় আমার দু’চোখ দিয়ে ঝরছিল অঝোর কান্না। এ নিয়ে যখন অভিযোগ করলাম জবাবে তারা বললো, যদি তুমি সহজভাবে পরীক্ষা করতে না দাও তাহলে এখানেই থাকতে হবে। এক ঘণ্টা ধরে চলে এই দেহ তল্লাশি।

শেহাদেহ’র সঙ্গে এমনটা এবারই প্রথম ঘটে নি। এর আগে যখন তিনি পরিবার নিয়ে বিদেশ সফরে গিয়েছিলেন তখন একবার ঘটেছিল এমনটি। এর কারণ তাদের নামের সঙ্গে যুক্ত ছিল ইলিয়াস শব্দটি। বিমানবন্দরের স্ক্রিনিংয়ে যখন তা ধরা পড়ে তখন তাদেরকে একটি এক্সপ্রেস লাইনে সফর করতে বলা হয়। কিন্তু পরিদর্শকরা যখন তার পাসপোর্টে তার নামের সঙ্গে শেহাদেহ শব্দটি দেখতে পায় তখন তারা তাদেরকে নিয়ে যায় একটি লম্বা লাইনে। সেখানে শিশুদের খাদ্যও পরীক্ষা করা হয়।

অন্য একবার শেহাদেহ ও তার স্বামীকে বলা হয় বিবাহের সনদ দেখাতে। তারা যখনই কোথাও ভ্রমণে গেছেন তখনই তাদেরকে এভাবে হেনস্থা হতে হয়েছে।

এর জবাবে ইসরায়েলের বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ বলেছে, কোন যাত্রী কোন গোত্রের বা কোন জাতির তার সঙ্গে নিরাপত্তা স্ক্রিনিং প্রক্রিয়ার কোন সম্পর্ক নেই। যাত্রীর বস্ত্র হরণের কোনও অনুমতি নেই। তবে শরীর তল্লাশির কারণ হলো, এর মাধ্যমে নিশ্চিত হতে হয় যে কোন যাত্রী বিমান ও বাকি যাত্রীদের ক্ষতি হতে পারে এমন কোন দ্রব্য বহন করছে কিনা। বিমানবন্দরে শেহাদেহ একাই নন, আরও মানুষ এভাবে নিগৃহীত হয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ