• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৫৩ অপরাহ্ন |

ফাঁসির দড়ি থেকে রেহাই মিলেছে ২৯ আসামির

Adalotঢাকা: রাষ্ট্রপতির বিশেষ ক্ষমায় ফৌজদারী মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ২৯ জন কয়েদীর ফাঁসির দড়ি থেকে রেহাই মিলেছে। এদের মধ্যে ২৩ জনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে। বাকী ৬ জনকে সাজা পরিবর্তন করে যাবজ্জীবন সাজা দেয়া হয়েছে।

২০০৫ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত ৭ বছরে পর্যায়ক্রমে এদের ক্ষমা করেছেন রাষ্ট্রপতি। এছাড়া আরও ৪ জনকে এ বিশেষ ক্ষমতাবলে সাজা কমানো হয়েছে। তারা বিভিন্ন মেয়াদে দণ্ডপ্রাপ্ত ছিলেন।

জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বেবুধবার সুনামগঞ্জ-৪ আসনের এমপি পীর ফজলুর রহমানের এ সংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল সংসদকে এসব তথ্য জানান। বন্দীদের প্রাণ ভিক্ষার আবেদন বা সাজা মওকুফের আবেদনের প্রেক্ষিতে তাদের মুক্তি বা সাজা মওকুফ করার বিষয়টি বিবেচনা করা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

মন্ত্রীর দেয়া তথ্য থেকে জানা গেছে, রাষ্ট্রপতির বিশেষ ক্ষমতায় মৃত্যুদণ্ডাদেশ থেকে বেঁচে যাওয়াদের ১৯ জনই নাটোরের। এরা হলেন- জেলার নলডাঙ্গা থানার রামশার কাজীপুর গ্রামের মোবারক শাহের পুত্র মো. আনিছার রহমান ও তার দুই ছেলে মো. সেন্টু এবং মো. ফয়সাল, ফয়েজ শাহের পাঁচ ছেলে এম এ ফিরোজ, ফখরুদ্দিন ফুটু, ফরমাজুল, ফজলুল হক শাহ এবং ফারুক শাহ, আসাদ শাহের ছেলে জাহিদুল, আব্বাস আলীর দুই ছেলে আবুল হোসেন ও শাহজাহান আলী, কোড়ন মিস্ত্রির ছেলে বাদল, কপির মন্ডলের ছেলে জলিল, জাহিরুল মেম্বারের পরিবারের তিনজন নিজে ও দুই ছেলে সোহাগ ও সাজ্জাদ হোসেন, ঢাকার সুত্রাপুর এলাকার শহিদুল্লাহর ছেলে জিন্টু ওরফে মহিউদ্দিন, শাখারীবাজারের বিজয় ঘোষের ছেলে মিন্টু ঘোষ, মাদারীপুরের পশ্চিম চিলারচর গ্রামের আলাউদ্দিন চৌকিদারের ছেলে চান মিয়া, রাজশাহীর পুটিয়া থানার দরবেশপুর গ্রামের বাবলু, ঠাকুরগাঁও জেলার হরিপুর থানার বকুয়া খাগড়াতলা গ্রামের আব্দুল খালেক, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর থানার খাগাউড়া গ্রামের তালেব উদ্দিন, লক্ষ্মীপুরের বাঞ্জানগর গ্রামের এ এ তাহেরের ছেলে এইচ এম বিপ্লব, কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ থানার আশুতিয়াপাড়া গ্রামের আব্দুল বারেকের ছেলে ইসলাম উদ্দিন ওরফে দ্বীন ইসলাম, কুমিল্লার দেবীদ্বার থানার হোসেনপুর গ্রামের অক্ষয় সাহার ছেলে রাখাল সাহা এবং সিলেটের কোতোয়ালী থানার সাগর দিঘীর পাড় গ্রামের মনি শিংয়ের ছেলে শিমন শিং।

আওয়ামী লীগের সদস্য মো. আবদুল্লাহ’র এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, চলতি অর্থ বছরে দেশের প্রতিটি থানায় জনবল বৃদ্ধির পরিকল্পনা রয়েছে। উক্ত পরিকল্পনার আওতায় পুলিশি বিভাগের সকল ইউনিটসহ থানা, ফাঁড়ি ও তদন্ত কেন্দ্রের জনবল বৃদ্ধির কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে।

আওয়ামী লীগের সদস্য মোরশেদ আলমের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান, বাংলাদেশে মাদকাসক্তের সংখ্যা কত এ সম্পর্কে এখন পর্যন্ত কোনো জরিপ হয়নি। তাই দেশে কতজন শিশু বা লোক মাদকাসক্ত তার সঠিক পরিসংখ্যান নেই। তবে এটা স্বীকার্য যে বিশ্বায়নের ফলে মাদক সমস্যা বৃদ্ধির পাশাপাশি মাদকাসক্তের সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ