• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৪৪ অপরাহ্ন |

অন্তর্দ্বন্দ্বে বিএনপি: দিনাজপুরে জামায়াত প্রার্থীর বিজয়ের সম্ভাবনা

Mawlana Mojibur Picমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: দিনাজপুর সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন জমে উঠেছে। নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রার্থীরা ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। প্রার্থী ও তাদের কর্মী-সমর্থকরা নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন। আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী থাকলেও জাতীয় পার্টিকে নিয়ে খানিকটা বেকায়দায় রয়েছে। অপরদিকে বিএনপির একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী হলেও জামায়াত মূল ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়িয়েছে। কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না এবার কে হবেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান। ভোটাররা বলছেন, এবার বিএনপি-আওয়ামী-জামায়াত ত্রিমূখী লড়াই হবে।
দিনাজপুর সদর উপজেলায় আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও জামায়াতের বরাবরই রয়েছে নিজ নিজ অবস্থান। বিগত তিনটি নির্বাচনে এই উপজেলায় একবার জাতীয় পাটি, একবার জামায়াত ও একবার বিএনপির প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। সর্বশেষ ২০০৯ সালের নির্বাচনে দিনাজপুর জেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. মোফাজ্জল হোসেন দুলাল বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছিলেন। এ সময় তাকে জামায়াত ব্যাপক সমর্থন দিয়েছিল ফলে তার বিজয়টি নিশ্চিত হয়েছিল। তবে এবার তিনি নির্বাচন করছেন না।
বিএনপি এখনো তাদের একক প্রার্থী ঘোষনা করতে পারেনি। যে যার মত প্রার্থী হয়েছেন। বিএনপি থেকে এবার দু’জন চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন- জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আকতারুজ্জামান জুয়েল এবং সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমার উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ মোকাররম হোসেন।  তারা দু’জনই মাঠে রয়েছেন। তবে সিংহভাগ নেতাকর্মী ও জেলা বিএনপির সভাপতি লুৎফর রহমান মিন্টু, রয়েছেন মোকাররম হোসেনের সাথে। তিনি ইতোমধ্যে মোকাররম হোসেনকে বিএনপির একক প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা দিয়েছেন।
মোকাররম হোসেন বিএনপির অন্যান্য প্রার্থীর চেয়ে এগিয়েও রয়েছেন। এ কারণে ঘরের প্রার্থী নিয়ে মাথা ব্যাথা না থাকলেও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জামায়াতের প্রার্থী মাওঃ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে বিপাকে রয়েছেন তিনি।
কারণ মাওলানা মুজিবুর রহমানের রয়েছে ব্যক্তিগত ইমেজ। তিনি দিনাজপুর জেলা জামায়াতের কর্ম পরিষদ সদস্য ও  জেলা ওলামা-মাশায়েক কমিটির সভাপতি। তিনি শুধমাত্র মাদ্রাসা শিক্ষিতই নন। মাদ্রাসা শিক্ষার পাশাপাশি তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম এ ডিগ্রি অর্জন করেছেন। বিগত দিনে চেয়ারম্যান থাকাকালে দিনাজপুর থেকে পতিতালয় উচ্ছেদ করেন। এ কারণে তাকে সাধারণ ভোটাররা এবং মহিলা ভোটাররা বেশ পছন্দ করেন। এ ছাড়াও জেলার আলেম-ওলামাসহ সর্বস্তরের মানুষ মাওঃ মুজিবুর রহমানকে সমর্থন করছেন। অপরদিকে দিনাজপুর শহরসহ সদর উপজেলায় জামায়াতের ছাত্র সংগঠন ছাত্রশিবিরের অবস্থানও ভাল।
মাওঃ মজিবুর রহমান সাধারণ মাুনষের যে কোন সমস্যায় এগিয়ে আসেন এবং সমাধান করার চেষ্টা করেন। দলের সমর্থন ছাড়াও তার ব্যক্তিগত ইমেজ ও পরিচিতির কারণে তার বিজয় লাভের সম্ভাবনা উজ্জল বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষক মহল। বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের সাথে কথা বলে এমনটিই জানা গেছে।
অপরদিকে গত দু’দফা উপজেলা নির্বাচনের ফলাফলে জামায়াতের নেতাকর্মীরা চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। তারা দুই দফায় অনুষ্ঠিত দিনাজপুরের ৬টি উপজেলার মধ্যে একটিতে জয়লাভ করেছে। দু’টিতে রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে। ভাইস চেয়ারম্যান পদে রয়েছে ব্যাপক সফলতা। কাজেই ব্যক্তিগত ইমেজ আর জামায়াতের সফলতার ফলে মাওঃ মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে অবাক হবার কোন কারণ হবেনা। তবে সদর আসনে বিএনপি-জামায়াতকে নিয়ে এক সাথে চলতে না পারলে তাদের জয়লাভ করা হবে খুবই কঠিন। বিএনপির একটি সূত্র জানায়, তারা এখনও জামায়াতের সাথে নির্বাচন নিয়ে সমঝোতার চেষ্টা চালিয়ে যাচেছন। তবে জামায়াতের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে বর্তমান প্রেক্ষাপটে সাদালন ভোটারদের সমর্থনের কারণে সমঝোতার আর কোন সুযোগ নেই।
এদিকে আওয়ামী লীগ একক প্রার্থী দিতে পারলেও জাতীয় পার্টিকে নিয়ে পড়েছে বেকায়দায় দলটি। কারণ এই উপজেলায় বিএনপি ও জামায়াতের অবস্থা ভাল। বিএনপির রয়েছে ভোট ব্যাংক। তাছাড়া গত উপজেলা নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী আহমেদ শফি রুবেল উল্লেখযোগ্য ভোট নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে ছিলেন। আর আওয়ামী লীগ প্রার্থী শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান হিসাবে পদক প্রাপ্ত সাবেক আউলিয়াপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ফরিদুল ইসলাম ছিলেন দ্বিতীয় স্থানে। তার পরও তাদের প্রাপ্ত ভোট ছিল বিএনপির বিজয়ী প্রার্থীর চেয়ে কম। তিনি এবার বিপুল ভোটে জয় লাভের আশায় সকল প্রস্তুতি নিয়ে মাঠে নেমেছেন।
ভাইস চেয়ারম্যান পদে যুবদল নেতা মোন্নাফ মুকুল ও বিএনপি নেতা সম্পাদক মাহবুবুল হক হেলাল, আওয়ামী লীগের কিশোর কুমার রায়, জামায়াতে ইসলামীর এ্যাড. মাঈনুল আলম ও স্বতন্ত্র প্রার্থী বাবু আহমেদ বাব্বা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপির আলহাজ্ব খালেদা পারভীন, শাহিন সুলতানা বিউটি, জামায়াতের সকিনা খাতুন ও আওয়ামী লীগের হাসমিন লুনা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ