• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪০ পূর্বাহ্ন |

উদীচী ট্রাজেডি: ধরাছোঁয়ার বাইরে দোষীরা

Udiciযশোর: যশোরের উদীচী হত্যাযজ্ঞের ১৫ বছরেও দোষীরা রয়েছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। ১৯৯৯ সালের ৬ মার্চ টাউন হল মাঠে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর দ্বাদশ জাতীয় সম্মেলনে বর্বরোচিত বোমা হামলায় চালানো হয়। এতে নিহত হন নূর ইসলাম, নাজমূল হদা তপন, সন্ধ্যা রানী ঘোষ, ইলিয়াস মুন্সী, শাহ আলম বাবুল, বাবুল সূত্রধর, শাহ আলম, বুলু, রতন রায় ও রামকৃষ্ণসহ ১০ জন। আহত হন দুশতাধিক নারী পুরুষ।
নারকীয় হত্যাযজ্ঞের ঘটনায় গত ১৫ বছরেও দোষীদের চিহ্ণিত করা যায়নি। এদিনটি সাংস্কৃতিক অঙ্গনে কলঙ্কিত দিন হিসেবে চিহ্ণত করে প্রতিবছরের মত এবারও শহীদদের স্মরণে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে উদীচী যশোর। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে শহীদের স্মরণসভা, মশাল প্রজ্জ্বলন ও প্রতিবাদী গানের অনুষ্ঠান।
আদালত সূত্র মতে, উদীচী ট্রাজেডি মামলায় ১৯৯৯ সালের ১৪ ডিসেম্বর বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলামসহ ২৪ জনের নামে অভিযোগপত্র দেয়া হয়। এসময় তরিকুল ইসলামের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট তার নাম বাদ দেন।  পরে ২০০৬ সালের ৩০ মে যশোরের স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল আদালত ২৩ আসামিকে বেকসুর খালাস দেন।
এরপর ন্যায়বিচার পেতে উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পুনর্তদন্তের আবেদন করলে মামলাটি বর্ধিত তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় সিআইডিকে।
২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে হরকাতুল জেহাদ নেতা মুফতি হান্নান গ্রেপ্তার হলে ওই বছরের ১৯ নভেম্বর আদালতে উদীচী বোমা হামলায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। তার স্বীকারোক্তিতে পুলিশ হরকাতুল জিহাদের সদস্য বরিশালের আবুল হোসেন ও মাদারীপুরের মাওলানা আবদুর রউফকে আটক করে।
অন্যদিকে, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বধীন মহাজোট সরকার দায়িত্ব পেলে ২০০৬ সালে নিম্ন আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে উচ্চ আদালত মামলার খালাসপ্রাপ্তদের পুনরায় আত্মসমর্পণের জন্য সমন জারির নির্দেশ দেন। এ সংক্রান্ত একটি আদেশ ২০১১ সালের ২০ জুন যশোর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এসে পৌঁছায়।
এরপর ২১ জুন খালাসপ্রাপ্ত ২৩ আসামির বিরুদ্ধে জমন জারি করেন চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত। এরমধ্যে মহিউদ্দিন আলমগীর, আহসান কবীর হাসান ও মিজানুর রহমান মিজান মারা গেছেন। অবশিষ্ট ২০ আসামির মধ্যে ১৭ জন বিভিন্ন সময়ে আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন নিয়েছেন। বাকি তিনজন শফিকুল ইসলাম মিন্টা, শরিফুল ইসলাম লিটু ও সোহরাব নির্ধারিত সময়ের মধ্যে আত্মসমর্পণ না করায় তাদের বিরুদ্ধে ২৪ জুলাই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।
সর্বশেষ ২০১২ সালের ফেব্রুয়ারিতে আটক হন এ মামলার অন্যতম আসামি শফিকুল ইসলাম মিন্টা। বর্তমানে তিনি জামিন রয়েছে। পরে আর মামলার কার্যক্রম এগোয় নি।
উদীচী যশোর শাখার সাধারণ সম্পাদক ডিএম শাহিদুজ্জামান বলেন, ইতিহাসের অন্যতম জঘন্য হত্যাকাণ্ড ও বিস্ফোরণ ঘটনায় গত ১৫ বছরেও কোনো বিচার হল না। সরকার প্রথমে বাদী হয়ে মামলা করে এবং প্রহসনের বিচার করে। পরে উদীচীর পক্ষ থেকে পুনর্তদন্তের জন্য আবেদন করা হলে সেটা গৃহীতও হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে মামলা কার্যক্রম স্থগিত হয়ে আছে। বার বার তাগিদ দেয়ার পরও জাতীয় ও স্থানীয় প্রশাসন কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেনি।
এবিষয়ে জানতে চাইলে যশোর পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) আবদুল কাদের জানান তারা মামলাটির কার্যক্রম গতিশীল করে দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য তৎপরতা চালাচ্ছেন।
বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ