• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪২ পূর্বাহ্ন |

জঙ্গিদের সঙ্গে হাত মেলালে কঠোর শাস্তি

sak-hasinaঢাকা: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘দেশি-বিদেশি চক্র বাংলাদেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে সদা তৎপর রয়েছে। জামায়াত-শিবির এবং বিএনপি প্রতিনিয়ত এই চক্রান্ত চালিয়ে যাচ্ছে।’
তিনি বলেন, ‘জঙ্গি অপরাধীদের সঙ্গে হাত মেলালে কঠোর শাস্তি পেতে হবে। যে পর্যায়ের ব্যক্তিই হোক, দোষীদের রেহাই দেয়া হবে না।’
বৃহস্পতিবার সকালে রাজারবাগ পুলিশ লাইনসে পুলিশ সপ্তাহের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
সন্ত্রাস নাশকতা ও জঙ্গিবাদের মূলোৎপাটনে পুলিশের পাশাপাশি দেশের নাগরিকদেরও এগিয়ে আসার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘উন্নয়নের শত্রুদের স্তব্ধ করে দিয়ে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করব আমরা।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা পুলিশকে আধুনিক জনবান্ধব হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে বহুমুখী পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করেছি। ইতিমধ্যে পুলিশ বিভাগে ৬১৪টি ক্যাডার পদসহ ৩০ হাজার ৮৩৩টি নতুন পদ সৃষ্টি করা হয়েছে।’
আমরা রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করার লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছি। এবার আমরা রূপকল্প ২০৪১ প্রণয়ন করেছি, যা বাস্তবায়নের মাধ্যমে আমরা বাংলাদেশকে উন্নত বিশ্বের সমপর্যায়ে নিয়ে যাব।’
তিনি বলেন, ‘বিশ্বমন্দা সত্ত্বেও আমরা ৬ শতাংশের বেশি অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছি।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘স্বাধীনতা বিরোধীদের যে কোনো নাশকতা জঙ্গিবাদ সন্ত্রাস নির্মূলে ব্যুরো অব কাউন্টার টেরোরিজম গঠনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আমরা ৩০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছি।’
তিনি বলেন, ‘আজকাল জঙ্গি সন্ত্রাসীরা অপরাধ সংগঠনে কম্পিউটারসহ উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করছে। এসব অপরাধ দমনে প্রশিক্ষণ মডিউল ও কলাকৌশল ঢেলে সাজানো হচ্ছে। চুরি ডাকাতি হত্যা রাহাজানি বন্ধ করার পাশাপাশি সাইবার ক্রাইম, মানিলন্ডারিং, মাদক পাচার, পণ্য চোরাচালান, নারী ও শিশু পাচার প্রতিরোধ, জলজ বনজ সম্পদ এবং পরিবেশ সংরক্ষণেও পুলিশকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। সেইভাবেই পুলিশ বাহিনীকে গঠন করা হচ্ছে।’
নিরাপত্তা ও অপরাধের নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় পুলিশের আধুনিকায়ন অব্যাহত থাকবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পুলিশের সার্বিক সক্ষমতা বৃদ্ধি করা হবে।’
তিনি নৈরাজ্য প্রতিরোধে পুলিশের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, ‘জামায়াত-বিএনপি আন্দোলনের নামে মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে। তাদের সহিংসতায় ১৬ জন পুলিশ সদস্য নিহত হয়েছে। পুলিশ বাহিনী অসীম সাহসিকতার সঙ্গে নৈরাজ্য মোকাবেলা করেছে।’
এর আগে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বর্ণাঢ্য কুচকাওয়াজে অভিবাদন গ্রহণের মধ্য দিয়ে পুলিশ সপ্তাহের উদ্বোধন করেন। এসময় তিনি পুলিশ সদস্যদের পদক প্রদান করেন।
উদ্বোধন শেষে সকাল সোয়া নয়টার দিকে সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন। সাড়ে নয়টার দিকে তার বক্তব্য শেষ হয়।
বিশেষ অবদান রাখার জন্য এ বছর ১০৫ জন পুলিশ সদস্য বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম) ও রাষ্ট্রপতি পুলিশ পদক (পিপিএম) দেয়া হয়।
প্রধানমন্ত্রী পুলিশ সদস্যদের মধ্যে চার ধরনের পদক বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম), বাংলাদেশ পুলিশ পদক (বিপিএম-সেবা), প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদক (পিপিএম) ও প্রেসিডেন্ট পুলিশ পদক (পিপিএম-সেবা) বিতরণ করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ