• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১২:০৫ অপরাহ্ন |

তিস্তা ও সীমান্ত চুক্তি না হওয়া মহাবিপদ সংকেত

Tistaঢাকা: বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে তিস্তার পানি বণ্টন ও স্থল সীমান্ত চুক্তি না হওয়া জাতির জন্য মহাবিপদ সংকেত বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচিত কুড়িগ্রাম-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাইদুল ইসলাম।
বৃহস্পতিবার দশম জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনে পয়েন্ট অব অর্ডারে এমন মন্তব্য করেন তিনি।
মাইদুল ইসলাম বলেন, ‘গত ৪ মার্চ মিয়ানমারে দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংহের দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে তিস্তা ও সীমান্ত চুক্তি না হওয়ার বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। মনমোহন সিং শেখ হাসিনাকে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন- তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি, স্থল সীমান্ত চুক্তি কিংবা ছিটমহল বিনিময় চুক্তির কোনোটিই হচ্ছে না।’
মাইদুল ইসলাম আরো বলেন, ‘ইতিমধ্যে ভারতের গজলডোবা ব্যারেজের সব গেট বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে তিস্তায় এখন আর পানি নেই। তিস্তা চুক্তি না হওয়ার কারণে গোটা উত্তরাঞ্চল মরুভূমিতে পরিণত হওয়ার উপক্রম হয়েছে। উত্তরাঞ্চলের বিশাল এলাকার বোরো ধান সেচের অভাবে মরে যাচ্ছে। সেচের পানির অভাবে কৃষকদের মাঝে শোনা যাচ্ছে হাহাকার।’
তিনি বলেন, ‘প্রতিবেশী বন্ধুপ্রতীম দেশ হিসেবে তিস্তা চুক্তির একটা সুরাহা হবে বলে আমাদের আশা ছিল। কিন্তু তা আর হচ্ছে না।’ এসব বিষয়ে সরকারকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানান এ সংসদ সদস্য।

উল্লেখ্য, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ৫৪টি অভিন্ন নদী রয়েছে। এসব নদীর পানি প্রবাহ নিয়ে ১৯৭২ সাল থেকে নানা হিসাব নিকাশ কষছে দু’দেশের নদী কমিশন। এর মধ্যে শুধু গঙ্গার (পদ্মা) পানি বণ্টন নিয়ে ৩০ বছর মেয়াদি চুক্তি রয়েছে। এরপর ২০১১ সালে তিস্তার পানি বণ্টন নিয়ে চুক্তি স্বাক্ষরের সব কিছু সম্পন্ন হলেও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আপত্তির মুখে তা আটকে গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ