• বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৫৪ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে হেভিওয়েট প্রার্থীদের চলছে নির্ঘুম রাত

jasim photoসিসি নিউজ: ভোট যুদ্ধে নেমেছেন নীলফামারীর হেভিওয়েট প্রার্থীরা। ১৫মার্চ’র নির্বাচন ঘিরে সমান তালে প্রচারণায় নেমেছেন তারা। মুলত আ’লীগ, বিএনপি, জাপা আর জামায়াত সমর্থীত প্রার্র্থীরা পড়েছেন মহাটেনশনে। উপজেলা নির্বাচনকে প্রেস্টিজ ইস্যু ধরে জয়ের মালা ছিনিয়ে আনতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত।
গত ৫জানুয়ারীর নির্বাচনে আ’লীগ অংশগ্রহণ করলেও ভোটাভুটি থেকে পিছিয়ে থাকা বিএনপি, জামায়াত এবং জাপা প্রার্থী রয়েছেন চরম অস্থিরতায়। সংসদ সদস্য(এমপি) হতে না পারলেও অন্তত উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে সাংগঠনিক গতিশীলতা বজায় রাখা, জনগণের কাছে যাওয়ার পথ সুগম হবে এমন ধারণা মাথায় রেখে অবিরত নির্বাচনী কাজে সময় পাড় করছেন প্রার্থীরা।
জাপা সমর্থীত বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন এবং বিএনপি সমর্থীত শামসুজ্জামান জামান সংসদ সদস্য হিসেবে প্রতিদ্বন্ধিতা করার কথা থাকলেও রাজনৈতিক গ্যারাকলের কারণে গত ৫জানুয়ারীর নির্বাচনে অংশগ্রহণ থেকে বিরত ছিলেন তারা। অন্যদিকে জামায়াত সদর আসনে বরাবর প্রার্থী হয়ে আসলেও দশম সংসদ নির্বাচনে ১৮দলীয় জোটের সিদ্ধান্তে একই পথ অনুসরণ করে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেনি। যার কারণে জামায়াতও উপজেলা নির্বাচনকে কোনভাবেই হাতছাড়া করতে চাইছে না। দল সমর্থীত প্রার্থী দিয়ে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন তারাও।
১৫মার্চের নির্বাচনে প্রার্থী সিলেকশনে আ’লীগ শক্ত অবস্থানে থাকলেও বিপাকে পড়েছে বিএনপি এবং জাপা। বিএনপির হয়ে দুই এবং জাপার হয়ে দুইজন লড়ছেন নির্বাচনে এছাড়া রয়েছে ১৯দলের অপর খেলাফত মজলিশের প্রার্থী মাহবুবার আলী।
জেলা জাতীয় পার্টির(জাপা) আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন, কেন্দ্রীয় যুব সংহতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ পারভেজ, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব শামসুজ্জামান জামান ও সদর উপজেলা বিএনপি সভাপতি ফরহানুল হক নির্বাচনি মাঠে রয়েছেন নিজেদের দল সমর্থীত প্রার্থী হিসেবে। বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় ইতোমধ্যে বিএনপির সদর উপজেলা সভাপতি ফরহানুল হককে বহিঃস্কার করা হয়েছে কেন্দ্র থেকে। অপরদিকে জাপা দলীয় প্রার্থী জয়নাল আবেদীন এবং অপর প্রার্থী নিজেকে দল সমর্থীত বলে নির্বাচনি প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন। দলের নেতা কর্মীদের কাছে টেনে দুই প্রার্থী নির্বাচনি কার্যক্রম করছেন উপজেলার বিভিন্ন এলাকায়।
একক প্রার্থী হওয়ায় সুবিধা জনক অবস্থানে রয়েছেন আ’লীগ সমর্থীত নীলফামারী সদর উপজেলা আ’লীগের সাধারন সম্পাদক আবুজার রহমান। প্রচার প্রচারণায় দিন রাত ছুটে চলেছেন ভোটারদের বাড়ি বাড়ি। ক্ষমতাসীন দলের সমর্থন পাওয়ায় তার সাথে রয়েছে সক্রিয় তৃণমুলের কর্মী বাহিনী। অন্যদিকে সমান তালে এগিয়ে রয়েছেন বিএনপি সমর্থীত জেলা বিএনপির সদস্য সচিব শামসুজ্জামান জামানও। দীর্ঘদিনের সাংগঠনিক বলয় তৈরি করার পর প্রথমবারের মত ভোট যুদ্ধে অংশগ্রহণ করছেন তিনি। গ্রামে গঞ্জে বিচরণ করা জামান ইতোমধ্যে নিজেকে তৈরি করেছেন এলাকার কাছের মানুষ হিসেবে।
জাপা প্রার্থী বিদায়ী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন পুরোনো ব্যক্তি হওয়ার কারণে রয়েছে নিজের আলাদা সংস্কৃতি সেকারণে মাঠ পর্যায়ে তারও রয়েছে জনপ্রিয়তা। নীলফামারী পৌরসভার বড় বাজার এলাকার রিকসা চালক জুলফিকার আলী ভুট্টু মনে করেন ‘সেয়ানে সেয়ানে লড়াই হবে নীলফামারী সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে”। তিনি বলেন, যার দ্বারা এলাকার কাজ হবে, যাকে কাছে পাওয়া যাবে তাকেই ভোট দেব আমি।
অন্যদিকে নিজস্ব ভোট ব্যাংক থাকা জামায়াত রয়েছে তাদের নিজস্ব গতিতে। গত দুটি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাদের দলের প্রার্থী দ্বিতীয় অবস্থানে থাকায় রয়েছে খোঁশ মেজাজে। তাদের ধারণা নিজস্ব ভোট উপজেলা নির্বাচনে দল সমর্থীত খায়রুল আলম আনামের টেলিফোন প্রতিকে পড়লে নিশ্চিত বিজয়।
আগামী ১৫মার্চ নীলফামারী সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। ১৫টি ইউনিয়ন এবং ১টি পৌরসভা নিয়ে নীলফামারী সদর উপজেলার ভোটার সংখ্যা ২লাখ ৭৫হাজার ১৩৭জন এরমধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছেন ১লাখ ৩৭হাজার ৭৭৩ এবং মহিলা ভোটার রয়েছেন ১লাখ ৩৭হাজার ৩৬৪জন।
উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আজাদুল হেলাল জানান, ১১৯টি ভোট কেন্দ্রের ৭৩০টি ভোট কক্ষে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ১৫মার্চ। তিনি জানান, চেয়ারম্যান পদে সাতজন, ভাইস চেয়ারম্যান পাঁচজন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে চারজন অংশ গ্রহণ করছেন নির্বাচনে।
প্রসঙ্গত চেয়ারম্যান পদে আবুজার রহমান আনারস প্রতিকে(আ’লীগ), শামসুজ্জামান জামান কাপ পিরিচ প্রতিকে(বিএনপি), ফরহানুল হক দোয়াত কলম প্রতিকে(বিএনপি-বহিঃস্কৃত), জয়নাল আবেদীন মটর সাইকেল প্রতিকে(জাপা), সাজ্জাদ পারভেজ ঘোড়া প্রতিকে(জাপা), খায়রুল আলম আনাম টেলিফোন প্রতিকে(জামায়াত) এবং মাহবুবার আলী শাহ উড়োজাহাজ প্রতিকে(খেলাফত মজলিশ) প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন।
এছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান(পুরুষ) নাহিদুল ইসলাম নিক্সন চশমা প্রতিকে(আ’লীগ), প্রবির গুহ রিন্টু টিয়াপাখি প্রতিকে(বিএনপি), কাজী আখতারুজ্জামান জুয়েল বই প্রতিকে(বিএনপি), আতাউর রহমান শাহ বাবু(কৃষক শ্রমিক জনতালীগ) এবং মোকাররম হোসেন টিউবওয়েল প্রতিকে(জামায়াত) এবং ভাইস চেয়ারম্যান(মহিলা) আরিফা সুলতানা লাভলী ফুটবল প্রতিকে(আ’লীগ), নাসরিন আক্তার পদ্মফুল প্রতিকে(বিএনপি), মাহমুদা আক্তার কলস প্রতিকে(জামায়াত) ও শিরিন নুর রিক্তা প্রজাপতি প্রতিকে(স্বতন্ত্র) লড়ছেন নির্বাচনে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ