• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৭:২৯ পূর্বাহ্ন |

বিএনপির কো-চেয়ারম্যান হচ্ছেন তারেক রহমান

Tareqসিসি ডেস্ক: বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে আরেক ধাপ ক্ষমতা বাড়িয়ে দলে আমূল সংস্কার করতে যাচ্ছেন বেগম খালেদা জিয়া। তারেক রহমানকে এবার ‘কো-চেয়ারম্যান’ করার চিন্তাভাবনা চলছে। সরকারবিরোধী আন্দোলনকে সামনে রেখে এবং বেগম জিয়ার স্বাস্থ্যগত দিক বিবেচনায় নিয়ে দলের নীতিনির্ধারকরা এ সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছেন। সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী কাউন্সিলেই তাকে ওই পদে দেওয়া হবে। এ নিয়ে দলের অভ্যন্তরে জোর আলোচনা চলছে। বিগত কাউন্সিলের সময়ই তারেক রহমানকে ওই পদের জন্য চিন্তাভাবনা ছিল। কিছু সিনিয়র নেতার আপত্তির কারণে পরে তা সম্ভব হয়নি। তবে এবার ওইসব বাধা থাকছে না বলে দলীয় নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে।
২০০৯ সালের ৮ ডিসেম্বর বিএনপির পঞ্চম কাউন্সিলে সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব থেকে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান হন তারেক রহমান। এর আগে ২০০৮ সালের ১১ জানুয়ারি জামিনে মুক্ত হয়ে তারেক রহমান চিকিৎসার জন্য সপরিবারে লন্ডন যান। এখনো সেখানে চিকিৎসাধীন তিনি। দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, চেয়ারপারসনের অনুপস্থিতিতে শুধু সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।
বুধবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে জাতীয় ফুটবলারদের কয়েকজন বিএনপিতে যোগদান অনুষ্ঠানে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, আগামী দিনে তরুণদের হাতে নেতৃত্ব তুলে দেওয়া হবে। আমরা জ্যেষ্ঠরা অভিভাবক হিসেবে তাদের পাশে থাকব। বাংলাদেশকে সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করতে পুরনো ধ্যান-ধারণা বাদ দিয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার ওপর জোর দেন বেগম জিয়া। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে তারেক রহমান স্বাভাবিকভাবেই দলের নেতৃত্বের হাল ধরবেন। এ জন্য নতুন কোনো পদ সৃষ্টির প্রয়োজন হয় না।
সূত্র জানায়, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে সামনে সরকারবিরোধী আন্দোলনে বেগম খালেদা জিয়াসহ দলের সিনিয়র নেতাদের ওপর যে কোনো সময় গ্রেফতারের খড়গ নেমে আসতে পারে। শীর্ষ নেতাদের অনুপস্থিতিতে দলে ভাঙন সৃষ্টির আশঙ্কা নীতিনির্ধারকদের। তাই সামনে কাউন্সিলের মাধ্যমে তারেক রহমানকে চেয়ারপারসন বেগম জিয়ার কাছাকাছি রাখার চিন্তাভাবনা চলছে। একইভাবে দলকে আন্দোলনমুখী করতে ব্যাপক পরিবর্তন করার চিন্তাভাবনা চলছে। তাছাড়া বেগম খালেদা জিয়ার বয়স এবং শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করা হচ্ছে। বেশ কিছু দিন ধরেই তারেক রহমানকে চেয়ারপারসনের প্রায় সমান ক্ষমতা দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে দলের ভেতর আলোচনা চলছে। বেগম জিয়াও চান তার অবর্তমানে তারেক রহমান দলের নেতৃত্ব দিক। দলের শীর্ষ নেতাদের সম্মতিতেই এবার বিষয়টি মোটামুটি চূড়ান্ত। কাউন্সিল হলেই কো-চেয়ারম্যান হবেন তিনি। সূত্র জানায়, আগামী এপ্রিল অথবা মে মাসের মধ্যেই বিএনপির ৬ষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হতে পারে। এই কাউন্সিলের মাধ্যমে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে পূর্ণাঙ্গ মহাসচিব করারও নীতিগত সিদ্ধান্ত রয়েছে দলের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে। পাশাপাশি আরও একজন অতিরিক্ত মহাসচিব করারও চিন্তাভাবনা রয়েছে দলের অভ্যন্তরে। দলের নির্বাহী কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোতেও ব্যাপক পরিবর্তন করা হবে। নিষ্ক্রিয়দের বাদ দিয়ে নির্বাহী কমিটির শতাধিক সদস্য পদে আন্দোলন সংগ্রামে পরীক্ষিত নেতাদের জায়গা করে দেওয়ার কথাবার্তা হচ্ছে। মহানগর বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদলসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনে দলের বিপদে পরীক্ষিত যোগ্য নেতাদের জায়গা করে দেওয়া হবে বলে জানা গেছে। উপজেলা নির্বাচনের পরপরই বেগম জিয়া দলের আমূল সংস্কারে নামবেন বলে জানা গেছে।
বিএনপির কয়েকজন সিনিয়র নেতা জানান, ৫ম কাউন্সিলের আগে তারেক রহমানকে কো-চেয়ারম্যান করার প্রস্তাব দেওয়া হলে তাতে সম্মত ছিলেন বেগম খালেদা জিয়া। কিন্তু কয়েকজন সিনিয়র নেতা খালেদা জিয়াকে বিষয়টি অন্যভাবে বুঝান। তাদের বক্তব্য ছিল, কো-চেয়ারম্যান আর চেয়ারপারসন পদটা প্রায় সমমর্যাদার। তারেক রহমান কো-চেয়ারম্যান হলে চেয়ারপারসনের মর্যাদা ক্ষুণ্ন হবে। পরে খালেদা জিয়া ওই নেতাদের পরামর্শে কাউন্সিলে তার বড় পুত্র তারেক রহমানকে সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান করেন।
এদিকে তারেক রহমানের ঘনিষ্ঠরা জানান, খালেদা জিয়া যতদিন সুস্থ থাকবেন, ততদিন তিনিই দলের চেয়ারপারসন থাকবেন। আগামীতে বিএনপি ক্ষমতায় গেলে বেগম জিয়া প্রধানমন্ত্রী হবেন। তবে তারেক রহমানও তার কাছাকাছি থাকবেন। দলের কো-চেয়ারম্যানের পাশাপাশি ক্ষমতায় গেলে তারেক রহমান হবেন উপ-প্রধানমন্ত্রী।
তাদের মতে, দলের বর্তমান সাংগঠনিক অবস্থা আরও শক্তিশালী করতে হলে তারেক রহমানের হাল ধরার বিকল্প নেই। তারেক রহমান দেশে থাকলে যুবদল ও ছাত্রদলের চিত্র এমন থাকত না। এই দুই সংগঠনের ওপর তার শতভাগ প্রভাব রয়েছে। বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বেও গতি থাকত। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের পরেই তারেক রহমানের স্থান। ভবিষ্যতে দল ও দেশের নেতৃত্ব দেবেন তিনি। তাই এ পদ তারেক রহমান পেতেই পারেন। তিনি দেশে থাকলে সাংগঠনিকভাবে দল আরও শক্তিশালী থাকত। দল তার অভাব অনুভব করছে। আশা করি, চিকিৎসকের পরামর্শে দ্রুত দেশে ফিরে দল ও দেশের জন্য কাজ করবেন তিনি। উৎসঃ   bd-pratidin


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ