• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১০:০১ অপরাহ্ন |

নিয়ানডারথাল মানব প্রজাতি ফিরিয়ে আনা সম্ভব

timthumb.phpসিসি ডেস্ক: আজ থেকে প্রায় ৩০ হাজার বছর আগে বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া নিয়ানডারথাল মানব প্রজাতি আবার ফিরিয়ে আনা সম্ভব। বিজ্ঞানিরা দাবি করছেন তাদের কাছে সেই ডিএনএ কোড আছে। মানব প্রজাতির মধ্যে এদের সবচেয়ে আদিম মানবপ্রজাতি হিসেবে বিবেচনা করা হয়। যদি নিয়ানডারথাল মানব এবং আধুনিক মানুষের পূর্ব পুরুষদের ডিএনএ অক্ষতভাবে পুনরুদ্ধার এবং আধুনিক মানুষ ও বন মানুষের ডিএনএর সঙ্গে এর তুলনা করা যায় তাহলে মানব বিবর্তন সম্পর্কে ধারণা অনেকখানিই স্পষ্ট হয়ে যাবে।
১৮৫৬ সালে জার্মানিতে প্রথম নিয়ানডারথাল মানবের মূর্তি আবিষ্কৃত হয়। জীবাশ্মের নমুনা নিয়ে একুশ শতকের প্রথম দিকে মানব উৎপত্তি সম্পর্কে ধারণা লাভ করা যায়। এই ধারণার দ্রুত পরিবর্তন এসেছে ডিএনএ এবং মানব জিনম প্রকল্পের মাধ্যমে।
সাভান্টে পাবো নামে এক সুইডিশ বিজ্ঞানী ১৯৯৭ সালে নিয়ানডারথাল মানবের ওপর নতুন পর্যবেক্ষণের ঘোষণা দেন। তার মতে, শিম্পাঞ্জিরা আগুন জ্বালাতে, অস্ত্র বানাতে ও কথা বলতে পারতো না। কিন্তু নিয়ানডারথাল মানবরা এর দুটি আয়ত্ত করতে পেরেছিল। ধারণা করা হয়, নিয়ানডারথাল মানবরা অস্ত্র বানাতে পারতো। তবে সম্ভবত তাদের জিন এবং আচরণগত বৈশিষ্ট্যে ঘাটতি ছিল যার ফলে তারা আমাদের গ্রহের ওপর প্রভাবশালী ভূমিকা রাখতে পারেনি।
মানব বিজ্ঞানের বিবর্তন মূলত দুইটি পরস্পর বিরোধী তত্ত্বের মাধ্যমে এসেছে। একটি হলো আউট অব আফ্রিকা হাইপোথিসিস অন্যটি হলো মাল্টিরিজিওনাল হাইপোথিসিস।
আউট অব আফ্রিকা হাইপোথিসিসে দাবি করা হয়- দুই লাখ বছর আগে আফ্রিকাতে আধুনিক মানুষের আবির্ভাব। পরে ইউরোপ এবং এশিয়ায় এদের আবির্ভাব। তবে ইউরোপের আগে অস্ট্রেলিয়ায় আধুনিক মানুষের আবির্ভাব বলে মনে করা হয়। যেসময় প্রোটো হিউম্যানরা বিলুপ্ত হয়ে গেছে। আধুনিক মানব এবং নিয়ানডারথাল মানব ৩ লাখ বছর আগে বিভিন্ন দিকে বিস্তার লাভ করে। কিছু কিছু স্থানে তারা আবার একত্রিত হয়। এর ৯০ বছর আগে সম্ভবত মধ্যপ্রাচ্যে তারা একত্রিত হয়। কারণ আধুনিক ইউরোপ এবং এশিয়ার ১ দশমিক ৫ থেকে ২ দশমিক ১ শতাংশ নিয়ানডারথাল মানবের ডিএনএ। কিন্তু আফ্রিকার মানুষের মধ্যে তা পাওয়া যায়নি।
এদিকে গতবছরে যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলের গবেষক জর্জ চার্চ নিয়ানডারথাল মানবদের নিয়ে এক নতুন তথ্য দেন। তিনি নিয়ানডারথাল মানবের ডিএনএ নিয়ে কাজ করছেন। তিনি জানান, আবারো পৃথিবীতে ফিরে আসবে নিয়ানডারথাল মানব! শুধু একজন সাহসী মা পাওয়া গেলেই ৩০ হাজার বছর আগে বিলুপ্ত এ মানব প্রজাতিকে পৃথিবীতে ফিরিয়ে আনা যাবে।  তার দাবি, নিয়ানডারথাল শিশু জন্ম দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ডিএনএ কোড তার কাছে রয়েছে। জার্মানির একটি পত্রিকাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, কোনো নারী রাজি হলেই নিয়ানডারথাল শিশুর জন্ম দেয়া সম্ভব। জিন ক্লোনিং পদ্ধতিতে এ গুহামানব ফিরিয়ে আনা যাবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ