• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৫৯ পূর্বাহ্ন |

পাকিস্তানকে সমর্থন করায় দেশদ্রোহিতার অভিযোগ

Criআন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের সঙ্গে ক্রিকেট ম্যাচে পাকিস্তানকে সমর্থন করার অভিযোগে এবার গ্রেপ্তার হতে পারেন ৬৭ জন কাশ্মীরি কলেজছাত্র। সাসপেন্ড করার পর তাঁদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার অভিযোগ এনেছে মীরাটের স্বামী বিবেকানন্দ সুভারতী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

গত রোববার রাতে এশিয়া কাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের পর ঘটনার সূত্রপাত। পাকিস্তান জেতায় উল্লাস করার অভিযোগে অনির্দিষ্টকালের জন্য সাসপেন্ড করা হয়
ওই ৬৭ জন ছাত্রকে৷ এবার তাঁদের বিরুদ্ধে আনা হল দেশদ্রোহিতার অভিযোগ।

ভারতীয় গণমাধ্যমের খবর, এই অভিযোগের জেরে গ্রেপ্তার করা হতে পারে ওই কাশ্মীরি কলেজছাত্রদের। তবে, এ নিয়ে রাজনীতিক মহলে অসন্তোষ দেখা দেওয়ায় বিষয়টি জানতে উত্তরপ্রদেশ সরকারের কাছে রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়৷

দেশদ্রোহিতার অভিযোগ আনায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন জম্মু ও কাশ্মীরের মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা৷ বৃহস্পতিবার তিনি টুইট করেন, ‘অভিযুক্ত কাশ্মীরি ছাত্ররা যা করেছে, তা নিঃসন্দেহে ভুল৷ কিন্ত্ত তাদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার অভিযোগ মেনে নেওয়া যায় না৷ এই কড়া শাস্তি তাদের ভবিষ্যত্‍ নষ্ট করে দিতে পারে৷ এমনকি তাদের বিরোধী মনোভাবাপন্নও করে তুলতে পারে৷ আমার বিশ্বাস, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদের সাসপেন্ড করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, কিন্ত্ত দেশদ্রোহিতার অভিযোগ আনার সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়া যায় না৷ অবিলম্বে তা প্রত্যাহার করা উচিত৷’

পরে অবশ্য ওমর জানান, উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদবের সঙ্গে কথা হয়েছে তাঁর৷ অখিলেশ ব্যক্তিগতভাবে ব্যাপারটি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন৷

বিশ্ববিদ্যালয়টির বেশ কয়েকজন ছাত্র গত রোববার হোস্টেলে একসঙ্গে ভারত-পাকিস্তান ক্রিকেট ম্যাচটি দেখছিল৷ অভিযোগ, এশিয়া কাপের এই ম্যাচ চলাকালীন ৮-১০ জন কাশ্মীরি ছাত্র পাকিস্তানের সমর্থনে চিত্‍কার করতে থাকে৷ পাকিস্তান-পন্থী স্লোগানও দেয় তারা৷ পাকিস্তান জেতার পর উল্লাস শুরু হলে স্থানীয় ছাত্ররা এর বিরোধিতা করে। এতে দু’পক্ষে মারামারি, ভাঙচুর, এমনকি পাথর ছোড়াছুড়িও হয়৷

ঘটনার পর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তরফে জানানো হয়, প্রথমে শুধুমাত্র অভিযুক্ত ছাত্রদের সাসপেন্ড করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল৷ কিন্ত্ত অন্যান্য কাশ্মীরি ছাত্ররা অভিযুক্তদের নাম বলতে চায়নি৷ পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই সব কাশ্মীরি ছাত্রকে সাসপেন্ড করা হয়৷ তাদের মীরাট ছেড়ে চলে যেতে বলা হয়৷

জানা যায়, অভিযুক্ত ছাত্রদের অধিকাংশই কাশ্মীরে ফিরে গেছে। তাদের অভিযোগ, প্রথমে বলা হয়েছিল তিন দিনের জন্য সাসপেন্ড করা হয়েছে৷ কিন্ত্ত তিন দিন কেটে যাওয়ার পরও বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকতে দেওয়া হয়নি তাদের৷ কলেজ কর্তৃপক্ষ তাদের কথাও শুনতে চায়নি৷

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর মনজুর আহমেদের দাবি, অভিযুক্ত ছাত্রদের আচরণ কখনওই মেনে নেওয়া যায় না৷ বড়সড় ঝামেলা এড়াতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷

তবে, দেশদ্রোহিতার অভিযোগ নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন প্রতিক্রিয়া ছড়িয়ে পড়েছে৷ বিশ্ববিদ্যালয়ের এই পদক্ষেপে অনেকেই বেশ ক্ষুব্ধ৷ মিহির শর্মা টুইট করেন, ‘উত্তরপ্রদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের এই সিদ্ধান্ত মেনে নেওয়া যায় না৷ ছাত্ররা যে দলকেই সমর্থন করুক না কেন, তাতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কী?’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ