• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৬:১০ পূর্বাহ্ন |

বিক্রি না হওয়ায় গুদামে চিনির পাহাড়

Sugarকুষ্টিয়া: কুষ্টিয়া চিনিকলের চলতি মাড়াই মৌসুমে আখচাষিদের পাওনা ১০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে গেছে। চিনি বিক্রি না হওয়ায় মিলি কর্তৃপক্ষ চাষিদের পাওনাসহ মিলের শ্রমিক-কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের দুই মাসের বেতন পরিশোধসহ মিলের বিভিন্ন ব্যয় মেটাতে পারছে না।
জানা গেছে, গত দুই মৌসুম ও বর্তমান মৌসুমে উৎপাদিত দেড় হাজার মেট্রিক টন চিনি অবিক্রীত অবস্থায় মিলের গোডাউনে পড়ে আছে। এসব চিনির বড় একটি অংশ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। মিল কর্তৃপক্ষ কয়েক দফা দাম কমানোর পর সর্বশেষ ৫০ টাকা থেকে প্রতি কেজি চিনি ৪০ টাকায় নামিয়ে এনেও সুবিধা করতে পারছে না।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বাজারে ভারতীয় চিনি পাওয়া যাচ্ছে ৩৬-৩৮ টাকায়, তাই কুষ্টিয়া চিনিকলের চিনি ৪০ টাকা দরে কেউ কিনছেন না। আবার মিলের নির্ধারিত ডিলাররা চিনি কেনায় আগ্রহ দেখাচ্ছেন না বলে জানা গেছে।
সূত্র মতে, মিলে আখ মাড়াই চলছে। তবে কারখানায় যান্ত্রিক ত্রুটি লেগেই থাকে। এক ঘণ্টা চললে আধা ঘণ্টা মাড়াই বন্ধ থাকছে। তার পরও কুষ্টিয়া চিনিকলে চলতি মৌসুমে প্রায় ৮০ হাজার মেট্রিক টন আখ মাড়াই করে ৫০০ মেট্রিক টনের কাছাকাছি চিনি উৎপাদিত হয়েছে। কিন্তু উৎপাদিত এই বিপুল পরিমাণ চিনির এক কেজিও বিক্রি হয়নি, বরং ২০১১-১২ ও ২০১২-১৩ মাড়াই মৌসুমের অবিক্রীত পাঁচ হাজার ৬২০ মেট্রিক চিনি মিলের গোডাউনে পড়ে আছে।
মিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুদর্শন মল্লিক জানান, চাষিদের সহযোগিতা পাচ্ছি; কিন্তু তাদের পাওনা পরিশোধ করতে পারছি না। চাষিদের পাওনা সাড়ে ১০ কোটি টাকারও বেশি হবে। চিনি বিক্রি না হওয়ায় চাষিদের টাকা পরিশোধ করতে পারছি না। এ ছাড়া মিলের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শ্রমিকদের বেতন দুই মাস যাবৎ বন্ধ রয়েছে। মোলাসেস বিক্রি চলছে, যা দিয়ে একান্ত প্রয়োজনীয় খরচ মেটাতে হচ্ছে। চাষিরা প্রতিনিয়ত ধরনা দিচ্ছেন পাওনা টাকার জন্য। তিনি জানান, চাষিদের পাওনা এবং শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন পরিশোধের বিষয়ে হেড অফিসের সঙ্গে সর্বদা যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছি।
কুষ্টিয়া চিনিকলে অবিক্রীত চিনির পরিমাণ সাড়ে ১০ হাজার মেট্রিক টনেরও বেশি, যার বাজার মূল্য টাকার অঙ্কে প্রায় ৪০ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবে। দিন দিন চিনির উৎপাদন বাড়ছে; কিন্তু  চিনি বিক্রি হচ্ছে না। স্থানীয়রা জানান, বেসরকারিভাবে উৎপাদিত চিনির বাজারমূল্য কম হওয়ায় দেশি চিনি কেউ কিনছেন না।
আবার মন্ত্রণালয় থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত খোলাবাজারে চিনি বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকায় মিল কর্তৃপক্ষ খোলাবাজারে চিনি বিক্রি করতে পারছে না। তবে শিগগিরই মিলের উৎপাদিত চিনি বাজারে বিক্রির ব্যবস্থা হবে বলে অনেকে আশা করছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ