• বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ০৯:১৯ অপরাহ্ন |

শুরু হয়ে গেল ভারতের আন্তঃনদী সংযোগ?

মাসুম খলিলী:

Masumভারতের বহুল আলোচিত-সমালোচিত আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্পের কাজ কি শুরুই হয়ে গেল? গত জানুয়ারিতে ক্ষমতাসীন ইউপিএ সরকারের শেষ সময়ের এক মন্ত্রিসভা বৈঠকে এটি বাস্তবায়নের প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে। আর মধ্য প্রদেশের বিজেপি সরকার এ রাজ্যে কেন ও বেতওয়া নদীর মধ্যে সংযোগ খাল খননের কাজ শুরু করে দিয়েছে। গঙ্গা অববাহিকার পানি দিয়ে এখানে দু’টি বৃহৎ বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। কয়েক দিন আগে ভারতের স্যাটেলাইট টেলিভিশন এনডিটিভি এ নিয়ে একটি বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশ যখন তিস্তার পানি বণ্টনের চুক্তি নিয়ে দেনদরবার করছে, ঠিক সেই সময়ে ভারতের বিশাল অংশজুড়ে প্রধান প্রধান নদীগুলোর মধ্যে আন্তঃসংযোগ তৈরি করে ভাটির দেশে প্রবহমান পানি প্রত্যাহার করে শুষ্ক রাজ্যগুলোয় সেচ কাজের জন্য পানি নেয়ার প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে।
বাংলাদেশের উজানে গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র, তিস্তাসহ প্রধান প্রধান প্রায় সব নদীর মধ্যে সংযোগ সাধনের এ প্রকল্পে ১৪ হাজার কোটি মার্কিন ডলারের বেশি খরচ হবে, যা বাংলাদেশের জাতীয় বাজেটের পাঁচ গুণের চেয়ে বেশি। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পর্যায়ক্রমে সংযোগ খাল ও বাঁধ তৈরির কাজ করা হবে। প্রথম দফায় ছয়টি প্রকল্প বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে, যেখানে ৯ হাজার ১৫ কোটি ভারতীয় রুপি ব্যয় হবে। বাংলাদেশের প্রধান প্রধান নদীর মধ্যে সুরমা ও কুশিয়ারার সাথে এই সংযোগ তৈরির পরিকল্পনা নেই। টিপাইমুখ বাঁধের মাধ্যমে সুরমা, কুশিয়ারার পানি প্রত্যাহারে রয়েছে ভিন্ন এক প্রকল্প।

আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্প

১৯৭২ সালে আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্পের ব্যাপারে প্রথম চিন্তাভাবনা শুরু হলেও তা কিছুটা পরিণতি লাভ করে আশি দশকের শুরুতে। আর ২০০০-এর দশকের প্রথমার্ধে বিজেপির নেতৃত্বাধীন এনডিএ সরকারের প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ির স্বপ্নের প্রকল্প ছিল এই আন্তঃনদী সংযোগ। পরের বার এনডিএ নির্বাচনে জয়ী হতে না পারায় এই প্রকল্প বেশি দূর এগোয়নি। এ ছাড়া প্রকল্প বাস্তবায়নে ভারতের রাজ্যগুলোর মধ্যে পানি প্রত্যাহারের হিস্যা নিয়ে অভ্যন্তরীণ বিরোধও দেখা দেয়। পরিবেশবাদীরা করেন এর তীব্র বিরোধিতা। কারিগরি বিশেষজ্ঞরা এর লাভালাভের ব্যাপারে নানা প্রশ্ন উত্থাপন করে। পরে এ নিয়ে বিরোধের বিষয়টি সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত গড়ালে আদালত ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারকে এ প্রকল্প বাস্তবায়নের দিকনির্দেশনা দেয়।
এ প্রকল্পের অন্যতম প্রধান সুবিধাভোগী হবে ভারতের বিজেপিশাসিত মধ্য প্রদেশ। রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান এ প্রকল্পের অধীন কেন-বেতওয়া নদীর সংযোগ প্রকল্পের কাজ শুরু করে বলেছেন, এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে মধ্য প্রদেশের তিন হাজার গ্রাম ও ৭২টি শহর খাবার পানি পাবে আর ১৬ লাখ একর জমিকে সেচের আওতায় আনা যাবে। প্রাথমিকভাবে নর্মদা ও কেসিপ্রা নদীর সংযোগের মাধ্যমে কাজ শুরু করা হয়েছে। বিজেপির সিনিয়র নেতা এল কে আদভানি এ প্রকল্পকে বিজেপির প্রধান অগ্রাধিকার হিসেবে বর্ণনা করে বলেছেন, সুপ্রিম কোর্ট এটি বাস্তবায়ন করতে বলেছে। আগামী এনডিএ সরকারের প্রধান কাজ হবে এটি বাস্তবায়ন করা। প্রকল্পের সুবিধাভোগী এলাকাগুলোয় এবার লোকসভা নির্বাচনে এটিকে প্রচারণার অন্যতম ইস্যু বানানো হয়েছে।

আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্প হবে ভারতের বৃহত্তম অবকাঠামো নির্মাণের প্রকল্প, যার মাধ্যমে দেশটির প্রধান প্রধান সব নদীর মধ্যে সংযোগ তৈরি করা হবে। এর মাধ্যমে দেশটির পানি ঘাটতি রাজ্যগুলোয় পানি পৌঁছানো এবং পানিভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য অসংখ্য বাঁধ ও বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ করা হবে।

আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্পের মাধ্যমে ভারতের উত্তরের হিমালয়ের নদী এবং দক্ষিণের উপদ্বীপ এলাকার নদীগুলোর মধ্যে সংযোগ তৈরি করা হবে। পরিকল্পনা অনুসারে গঙ্গা ও ব্রহ্মপুত্রের ভারত অংশে এবং নেপাল ও ভূুটানে অনেক বাঁধ (ড্যাম) নির্মাণ হবে। পানি প্রত্যাহার ও বিদ্যুৎ উপাদনের জন্য ড্যাম বা ব্যারাজ নির্মাণ করা হবে। কোনো কোনো স্থানে ফারাক্কার মতো ড্যাম বা ব্যারাজ দু’টিই করা হবে। বাংলাদেশের উজানে ব্রহ্মপুত্রের পানি সংযোগ খাল দিয়ে ফারাক্কার উজানে গঙ্গা ও মহানন্দার সাথে এর সংযোগ তৈরি করে পানি নিয়ে যাওয়া হবে দক্ষিণে। এ অংশে দুই লাখ ২০ হাজার বর্গকিলোমিটার এলাকায় সেচ এবং ৩০ গিগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে। এর মাধ্যমে কলকাতা বন্দরকে নাব্য করতে ফারাক্কার উজানে ব্রহ্মপুত্র থেকে পানি নিয়ে যাওয়া হবে।

উপদ্বীপ ভারত এলাকায় সংযোগ খাল খননের মাধ্যমে দেশটির পূর্বাঞ্চল থেকে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে পানি নিয়ে যাওয়া হবে। এ লক্ষ্যে মহানন্দা গোদাবাড়ি কৃষ্ণা ও কাবেরি নদীর মধ্যে সংযোগ খাল তৈরি করা হবে। মহানন্দা ও গোদাবাড়ি নদী থেকে পানি দক্ষিণ ভারতে নিয়ে যাওয়ার জন্য এ সংযোগের প্রয়োজন হবে। এসব নদী পশ্চিম থেকে মুম্বাইয়ের উত্তর দিকে এবং টাপির দক্ষিণে সংযোগ করা হবে। এ পানি মুম্বাইয়ের শহরাঞ্চল এবং মহারাষ্ট্রের উপকূলীয় এলাকার সেচে ব্যবহার করা হবে। মধ্য প্রদেশ ও উত্তর প্রদেশে পানি সরবরাহ বাড়াতে কেন ও চম্বল নদীর মধ্যে সংযোগ খাল তৈরি করা হবে। এ ছাড়া পশ্চিমে আরব সাগরে পড়া নদীগুলোর প্রবাহকে সেচকাজে ব্যবহারে জন্য প্রয়োজনীয় সংযোগ খাল তৈরি করা হবে। মধ্য প্রদেশে যে কেন-বেতওয়া নদী সংযোগের মধ্য দিয়ে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে, সেটি হলো মূল প্রকল্পের অধীনে যে ৩০টি সংযোগ খাল তৈরির কথা, তার মধ্যে একটি। কেন-বেতওয়া সংযোগ খালটি নির্মাণ করা হচ্ছে ৩২৩ দশমিক ৮০ কিলোমিটার দীর্ঘ। কেন ৪২৭ ও বেতওয়া নদী ৫৯০ কিলোমিটার দীর্ঘ। এ প্রকল্পের সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ দিকটি হলো এখানে মধ্য প্রদেশে সাত্তারপুর-পান্না জেলায় ৭৩ দশমিক ৮০ মিটার উঁচু একটি ড্যাম নির্মাণ করা হচ্ছে, যেটি দু’টি বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণের জন্য ব্যবহার করা হবে। এখানে পানি আসবে মূলত গঙ্গার উৎস নদীগুলো থেকে। এ প্রকল্প থেকে উত্তর ও মধ্য প্রদেশের ৪ দশমিক ৯৭ লাখ হেক্টর জমিতে সেচ দেয়া হবে। এ প্রকল্পের ব্যাপারে বিশেষজ্ঞদের মধ্যে শুরু থেকে মতানৈক্য ছিল। প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য এর সুবিধার দিকগুলোকে অনেক বড় করে দেখানো হলেও এর ফলে যে পরিবেশগত ও অন্য বিপত্তি দেখা দেবে সেটিকে বিবেচনায় আনা হচ্ছে না। অল ইন্ডিয়া পিপলস সায়েন্স নেটওয়ার্কের প্রেসিডেন্ট ড. রঘুনাথন এ ব্যাপারে এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, যে উদ্বৃত্ত পানি এক অববাহিকা থেকে আরেক অববাহিকা নিয়ে যাওয়ার কথা বলা হচ্ছে, সেটি বর্তমান সরবরাহ ও চাহিদার ওপর ভিত্তি করে ঠিক করা হয়েছে। কোনো নির্ভরযোগ্য ও নিরপেক্ষ সমীক্ষা ছাড়া গঙ্গা অববাহিকার বর্তমান ও ভবিষ্যৎ চাহিদা কী- সে সম্পর্কে জানা যাবে না। এ ধরনের সমীক্ষা ছাড়াই ধরে নেয়া হয়েছে গঙ্গা অববাহিকায় বাড়তি পানির প্রবাহ রয়েছে, যা অন্য অববাহিকায় সরিয়ে নেয়া যাবে। যখন গঙ্গা অববাহিকার পানির চাহিদা আরো অনেক বেড়ে যাবে, তখন এই মেগা প্রকল্পের কী হবে। সব অববাহিকায় পানির চাহিদা এখন ক্রমাগতভাবে বাড়ছে।
২০১২ সালের ফেব্রুয়ারিতে সুপ্রিম কোর্ট প্রকল্পের ব্যাপারে নির্দেশনা দেয়ার পর গত জানুয়ারি মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ প্রকল্পের অনুমোদন দেয়া হয়। এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় পানিসম্পদ মন্ত্রী এবং উত্তর ও মধ্য প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীদের মধ্যে একটি ত্রিপক্ষীয় সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়। সুপ্রিম কোর্টের রায়ের পর ২০১২ সালের এপ্রিলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ছয়টি নদীসংযোগ নির্মাণ করা হবে বলে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী ঘোষণা করেন। এতে ব্যয় ধরা ৯ হাজার ১৫ কোটি ভারতীয় রুপি। প্রথম দিকে এ প্রকল্পের ব্যাপারে ইউপিআই সরকারের আগ্রহ কম থাকলেও এখন এটি দুই প্রধান রাজনৈতিক জোটের ঐকমত্যের প্রকল্পে পরিণত হয়েছে।

বাংলাদেশের উদ্বেগ
আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্পটি হলো বাংলাদেশের জন্য বাঁচা-মরার একটি ইস্যু। ভারতের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশকারী নদীগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় নদী হলো ব্রহ্মপুত্র বা যমুনা। এই যমুনা ও গঙ্গা নদীর মাধ্যমে ৫০ শতাংশের মতো পানি বাংলাদেশে প্রবেশ করে। অন্য প্রধান নদী গঙ্গায় ফারাক্কা এবং এর উজানে আরো অনেক বাঁধ দেয়ার মাধ্যমে পানি প্রত্যাহার শুরুর পর বাংলাদেশ বর্তমানে পানির জন্য প্রধানত ব্রহ্মপুত্রের ওপর নির্ভরশীল হয়ে আছে। এর মধ্যে আরেকটি প্রধান নদী তিস্তার উজানে গজলডোবাসহ আরো বেশ কয়েক স্থানে বাঁধ দিয়ে পানি প্রত্যাহার করা হচ্ছে। উজানে পানি প্রত্যাহারের জন্য সেই আশির দশক থেকেই গঙ্গার পানিপ্রবাহ অপর্যাপ্ত হওয়ার বিষয়টি উঠে আসছিল। তখন গঙ্গার পানি বণ্টনের ব্যাপারে অনুষ্ঠিত একাধিক সভায় বাংলাদেশের পানিসম্পদ মন্ত্রী বি এম আব্বাস এটি গঙ্গার পানিপ্রবাহ বাড়াতে এ নদীর উৎস অঞ্চলে পানির রিজার্ভার বা জলাধার নির্মাণের প্রস্তাব দেন। অন্য দিকে তখনকার ভারতীয় পানিসম্পদ মন্ত্রী জগজীবন রাম প্রস্তাব দিয়েছিলেন ব্রহ্মপুত্রের ভারতীয় অংশ থেকে একটি সংযোগ খাল তৈরি করে বাংলাদেশের ওপর দিয়ে ফারাক্কার উজানে নিয়ে যাওয়ার। বাংলাদেশ কোনোভাবেই তখন এ প্রস্তাবে সাড়া দেয়নি এবং বাংলাদেশের স্বার্থের জন্য এটি আত্মঘাতী হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে। এখন নতুন মেগা প্রকল্পে সেই সংযোগ খালটি বাংলাদেশের উজানে ব্রহ্মপুত্র থেকে শুরু করে চিকেন নেকের মধ্য দিয়ে ফারাক্কার উজানে গঙ্গায় নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এর সাথে গজলডোবার উজানে তিস্তার সাথেও সংযোগ থাকবে। এর মাধ্যমে আসাম মেঘালয় থেকে সাতক্ষীরার অন্য প্রান্ত পর্যন্ত একটি নদী সংযোগ নেটওয়ার্কে বাংলাদেশে এ এলাকা দিয়ে যত নদী প্রবেশ করেছে, সব নদীর পানি দক্ষিণ ভারতের তামিলনাড়– পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া যাবে।

গঙ্গা ও ব্রহ্মপুত্র দিয়ে বাংলাদেশের যে ৬০ শতাংশ পানি এখন প্রবাহিত হচ্ছে, ১৪টি নদীর সংযোগ খাল নির্মাণ হলে বাংলাদেশে বর্ষা ছাড়া অন্য মওসুমে সে প্রবাহ মারাত্মক কমে যাবে। দেশের ভূপৃষ্ঠের পানির প্রধান উৎসও এই দু’টি নদী হওয়ায় পানি নিয়ে বড় ধরনের সঙ্কট দেখা দেবে। যমুনা-গঙ্গার পানি কেন-বেতওয়া প্রকল্পের জন্য প্রত্যাহার করার পর ফারাক্কা পয়েন্ট পর্যন্ত শুষ্ক মওসুমে বাংলাদেশকে দেয়ার মতো কোনো পানি অবশিষ্ট থাকবে না। শেখ হাসিনার প্রথম সরকারের সময় স্বাক্ষরিত ফারাক্কা চুক্তি থেকে গ্যারান্টি কজ উঠিয়ে দেয়ার পর নিশ্চিত গঙ্গার পানিপ্রাপ্তির কোনো বিষয় আর নেই। চুক্তি অনুযায়ী পানি পাওয়ার মতো প্রবাহ ফারাক্কার উজানে না থাকলে যা পাওয়া যাবে তাই ভাগাভাগি করে নিতে হবে। ফলে পদ্মার পানি থেকে যে বাংলাদেশ পুরোপুরি বঞ্চিত হওয়ার মতো অবস্থা সৃষ্টি হবে, তাতে সন্দেহ নেই।

আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্প বাস্তবায়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত ভারতীয় প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল ওয়াটার ডেভেলপমেন্ট এজেন্সি (এনডব্লিউডিএ) তিনটি প্রধান বিবেচনা থেকে এ প্রকল্প নেয়ার কথা বলেছে। এর মধ্যে রয়েছে ২০৫০ সাল নাগাদ ১৭০ কোটি ভারতীয়ের খাদ্য নিশ্চিত করার মতো পর্যাপ্ত সেচের ব্যবস্থা করা। গঙ্গা ও ব্রহ্মপুত্র অববাহিকায় প্রতি বছরের বন্যা থেকে আসাম, পশ্চিমবঙ্গ, বিহার ও উত্তর প্রদেশের লোকদের রক্ষা করা। রাজস্থান, গুজরাট ও খরাপ্রবণ অন্য রাজ্যগুলোয় বনায়ন। ভারতের এ লক্ষ্যগুলো অর্জনের জন্য সে দেশেরই অনেক রাজ্য পানি থেকে বঞ্চিত হবে এবং পরিবেশ বিপর্যয়েরর শিকার হবে। এসব বিষয়ের উল্লেখ করা হয়নি মূল্যায়নে। আর বাংলাদেশের মতো দেশের পানির প্রবাহ থেকে বঞ্চিত হলে কী প্রতিক্রিয়া হবে, সেটি তো আমলেই নেয়া হয়নি।
গোটা আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রতিক্রিয়া বাংলাদেশের জন্য যে ভয়াবহ হবে, তাতে সন্দেহের অবকাশই নেই। কেন-বেতওয়া- যে প্রকল্পটির বাস্তবায়ন কাজ শুরু করা হয়েছে, তাতেই বাংলাদেশের ওপর মারাত্মক বিরূপ প্রভাব পড়বে। এ বিষয়ের ওপর গবেষণা করেছেন আমেরিকার লক হ্যাভেন ইউনিভার্সিটিতে কর্মরত বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন পানিবিজ্ঞানী ড. খালেকুজ্জামান। তিনি বলেছেন, কেন-বেতওয়া নদী সংযোগ সরাসরি বাংলাদেশের ক্ষতি করবে। গঙ্গার পানি এ প্রকল্পে সরিয়ে নেয়া হলে ফারাক্কা পর্যন্ত গঙ্গায় পানি পাওয়া যাবে না। তখন বিদ্যমান গঙ্গা পানি বণ্টন চুক্তির পরও বাংলাদেশ তার পানির অংশ পাবে না। বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের হিসাব অনুসারে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হলে পদ্মা ও যমুনার পানি এক-তৃতীয়াংশে নেমে আসবে। জীববৈচিত্র্যেরও হবে মারাত্মক ক্ষতি। এটি বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশ বর্ষাকালে পর্যাপ্ত পানি পাবে আর শুষ্ক মওসুমে রাজস্থানের হাহাকার শুরু হবে। এতে নদীর প্রবাহ কমার কারণে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে সমুদ্রের লোনা পানির যে প্রবাহ ঘটছে, সে অবস্থা হবে অন্য অববাহিকায়ও। এক কথায় বাংলাদেশের জন্য হবে তা অকল্পনীয় বিপর্যয়কর।
(নয়া দিগন্ত, ০৭/০৩/২০১৪)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ