• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন |

জামায়াতকে সন্ত্রাসী সংগঠন ঘোষণার আবেদন হতে পারে

Jamatঢাকা: মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীকে সন্ত্রাসী সংগঠন ঘোষণা, একাত্তরে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ ও ক্ষমা প্রার্থনার দাবি জানিয়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে আবেদন করতে পারে প্রসিকিউশন।
একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে জামায়াতের বিরুদ্ধে তদন্ত চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। ২৬ মার্চের আগেই তদন্ত প্রতিবেদন ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশন বরাবর দাখিল করা হতে পারে।
জামায়াতের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদনের বিষয়ে জানতে চাইলে তদন্ত সংস্থার প্রধান কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান খান  বলেন, আশা করছি, মার্চ মাসের মধ্যেই প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।
জামায়াত ইসলামীর বিরুদ্ধে (ফরমাল চার্জ) আনুষ্ঠানিক অভিযোগ গঠনের জন্য করা আবেদনে কী দাবি করা হবে জানতে চাইলে প্রসিকিউটর টিমের অন্যতম সদস্য সৈয়দ হায়দার আলী বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছুই বলব না।
জানতে চাইলে ট্রাইব্যুনালের জ্যেষ্ঠ তদন্ত কর্মকর্তা সানাউল হক বলেন, জামায়াতের বিরুদ্ধে তথ্য সংগ্রহ করে তদন্ত রিপোর্ট প্রসিকিউশন বরাবর দাখিল করার পস্তুতি চলছে। আশা করি, এই মাসের মধ্যে প্রসিকিউশন বরাবর এটি দাখিল করা হবে। তিনি বলেন, আমরা আশা করেছিলাম, ২০১৪ সালের জানুয়ারি মাসের মধ্যেই তদন্ত কার্যক্রম শেষে প্রতিবেদন দাখিল করব কিন্তু সংগঠন হিসেবে জামায়াতের প্রচুর ডকুমেন্ট রয়েছে যে কারণে চেষ্টা করেও প্রতিবেদন প্রস্তুত করা সম্ভব হয়নি।
প্রসিকিউটর রানা দাসগুপ্ত বলেন, সংগঠন হিসেবে জামায়াতের বিরুদ্ধ তদন্ত শেষ হলে মামলায় তদন্তে নথিপত্র ও ডকুমেন্ট ট্রাইব্যুনালের চিফ প্রসিকিউটর বরাবরে দাখিল করা হবে। তবে এটা বলতে পারি প্রতিবেদন দাখিলের পরে আমরা তা পর্যবেক্ষণ করব, যদি দলটির অপরাধ মিলে তাহলে আদালত আমলে নেবেন।
তিনি বলেন, আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ)গঠনের জন্য উপস্থাপন করব। ট্রাইব্যুনালে অভিযোগ গঠন করার পর দলটির বিরুদ্ধে বিচার শুরু হবে।
অন্য কোনো দেশে সংগঠনের বিচারের দৃষ্টান্ত আছে কিনা জানতে চাইলে প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজ বলেন, পৃথিবীতে এই প্রথম মানবতাবিরোধী অপরাধে বাংলাদেশ জামায়াতের ক্রিমিনাল সংগঠন ঘোষণার বিচার শুরু হতে যাচ্ছে। তবে অন্যান্য রাষ্ট্রে টেরোরিস্ট হিসেবে দলের বিচার হয়েছে বলে জানান তুরিন আফরোজ। তিনি বলেন, সংগঠন হিসেবে পৃথিবীতে এর আগে নুরেমবাগ ট্রাইব্যুনালে সাতটি দলের বিচার হয়েছিল। জার্মানির দলগুলো হলো গেস্টাপো, এসএসস ও এসপিসহ সাতটি। এর মধ্যে তিনটি দলকে সাজা দিয়েছিল আদালত।
তুরিন আফরোজ বলেন, তদন্ত প্রতিবেদন চূড়ান্ত করার পর ট্রাইব্যুনালের কাছে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ (ফরমাল চার্জ) আকারে উপস্থাপন করা হবে প্রসিকিউশন টিম থেকে।
প্রসিকিউশন টিম থেকে জামায়াতের বিরুদ্ধে করা বিচারের আবেদনে একাত্তরে সংঘটিত করা অপরাধের জন্য জাতির কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করতে হবে, সঙ্গে সঙ্গে ভিকটিমদের ক্ষতিপুরণ দেওয়ার জন্য এবং (ক্রিমিনাল) সন্ত্রাসী সংগঠন ঘোষণারও দাবি জানানো হবে। আন্তর্জাতিক অপরাধে ট্রাইব্যুনাল (অ্যাক্ট) ১৯৭৩ সালের আইনে এসব শাস্তির বিধান উল্লেখ রয়েছে বলেন ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ।
মানবতাবিরোধী অপরাধ তদন্তে গঠিত তদন্ত সংস্থার সদস্য ও জামায়াতে ইসলামীর বিষয়ে তদন্ত কর্মকর্তা (আইও) অতিরিক্ত এসপি মতিউর রহমান বলেন, চূড়ান্ত তদন্ত প্রতিবেদন প্রসিকিউশন বরাবর দাখিল করার প্রস্তুতি চলছে। তবে কবে নাগাদ তা প্রস্তুত করে দাখিল করব তা বলতে পারছি না।
আইও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় এ সংগঠনের মানবতাবিরোধী অপরাধ সংক্রান্ত বিভিন্ন ডকুমেন্ট, তথ্য, দলটির অর্গানোগ্রামসহ অন্যান্য তথ্যাদি সংগ্রহ করা হয়েছে। এসব ডকুমেন্ট ও তথ্য পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সংগঠনটির বিরুদ্ধে চার্জ প্রস্তুত করা হবে।
মুক্তিযুদ্ধের সময় জামায়াতের ভূমিকা বিষয়ে বিভিন্ন ডকুমেন্ট এবং তার পরবর্তী সময়ে দলটির নানা কার্যক্রমেরও তদন্ত হচ্ছে বলে জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মতিউর রহমান। গত বছর ১৮ আগস্ট তদন্তের বিষয়টি নথিভূক্ত করে জামায়াতের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিকভাবে তদন্ত কাজ শুরু করে তদন্ত সংস্থা।
তদন্তের বিষয়: ১৯৭১ সাল ২৫ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় কাল। চারটি বিষয় সামনে নিয়ে তদন্ত কাজ শেষ হয়েছে বলে জানান তদন্তকারী এ কর্মকর্তা। এগুলো হলো মুক্তিযুদ্ধকালীন অপরাধের ষড়যন্ত্র ও পরিকল্পনা, শান্তির বিরুদ্ধে অপরাধ, যুদ্ধাপরাধ ও গণহত্যা। এ ছাড়া ওই সময়ে জামায়াত কর্মীদের দ্বারা সংঘটিত গণহত্যা, হত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, নির্যাতনসহ বিভিন্ন অপরাধে জামায়াতের ভূমিকা।
জামায়াতের বিরুদ্ধে সাক্ষী হলেন কারা: তদন্তের স্বার্থে সাক্ষীর নাম না জানালেও ৩০ থেকে ৪০ জন বিশিষ্ট নাগরিকের জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে বলে জানানো হয়। তবে ট্রাইব্যুনালে কারা সাক্ষী হচ্ছেন তা জানাতে চানানি তদন্ত কর্মকর্তা।
অপরাধ সংগঠনের সীমানা: সারা বাংলাদেশ।
আইও বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময়ের ঘটনাগুলোর বিভিন্ন দলিল, ওই সময়ে দেশ-বিদেশে প্রকাশিত দৈনিক পত্রিকা, দেশে ও দেশের বাইরের প্রথিতযশা ব্যক্তিদের লেখা বিভিন্ন প্রবন্ধ, নিবন্ধ, বিভিন্ন সময়ে প্রকাশিত জামায়াতের কর্মকাণ্ডের বিবরণ, জামায়াত নেতাদের লিখিত বই, তাদের দেওয়া বক্তব্য সংগ্রহ করা হয়েছে। এগুলো যাচাই-বাছাইয়ের কাজও শেষ। তার প্রয়োজনীয় ‘ডকুমেন্ট’ তদন্ত প্রতিবেদনের সঙ্গে যুক্ত করা হচ্ছে।
তিনি জানান, ডকুমেন্ট ও তথ্যভিত্তিক প্রতিবেদনের পাশাপাশি থাকছে ‘পলিসি উইটনেস’। রাষ্ট্রপক্ষের হয়ে ট্রাইব্যুনালে সংগঠনটির বিষয়ে ‘পলিসি উইটনেস’ সাক্ষ্য দেবে। তাদের একটি তালিকা প্রস্তুত করা হচ্ছে।
তদন্তকারী এ কর্মকর্তা বলেন, যারা সংগঠনটির ভূমিকার বিষয়ে প্রত্যক্ষ করেছে এবং দীর্ঘদিন গবেষণামূলক কাজ করছেন, এ নিয়ে একাধিক প্রবন্ধ-নিবন্ধ প্রকাশ করেছেন এমন কেউ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সাক্ষ্য দিলে তাকে বলা হয় ‘পলিসি উইটনেস’।
মতিউর রহমান বলেন, মানবতাবিরোধী অপরাধের বিভিন্ন মামলায় ট্রাইব্যুনালের দেওয়া রায়ে মুক্তিযুদ্ধে জামায়াতের ভুমিকার বিষয়ে উল্লেখ করা হয়েছে। দলটির সাবেক আমীর অধ্যাপক গোলাম আযমের মামলার বিচারে সাক্ষী হিসেবে বিভিন্ন ডকুমেন্ট পেশ করা হয়েছিল। জামায়াতের বিষয়েও তদন্তে সেই ডকুমেন্ট গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।
আইও বলেন, মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতের কয়েকজন শীর্ষ নেতার মামলায় রায় হয়েছে। দলটির আরও অনেকের বিরুদ্ধে বিচার চলছে। ইতোমধ্যে দলটির সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আব্দুল কাদের মোল্লার রায় কার্যকর করা হয়েছে।
তদন্তকারী এ কর্মকর্তা বলেন, গোলাম আযমের ৯০ বছর কারাদণ্ড দিয়ে ট্রাইব্যুনাল-১ এর দেওয়া রায়েও জামায়াতে ইসলামীসহ দলটির অন্যান্য সহযোগী সংগঠনকে সন্ত্রাসী, মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত দল হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। গোলাম আযমের বিরুদ্ধে মামলারও তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন মতিউর রহমান।
ট্রাইব্যুনালে দেওয়া মামলাগুলোর রায়ের মধ্যে জামায়াতকে অপরাধী সংগঠন (ক্রিমিনাল অর্গানাইজেশন) বলা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, পাকিস্তান রক্ষার নামে সশস্ত্র সহযোগী বাহিনী গঠন করে নিরস্ত্র বাঙালি, হিন্দু সম্প্রদায়, বুদ্ধিজীবী, আওয়ামী লীগ ও স্বাধীনতার পক্ষের রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের নিশ্চিহ্ন করার জন্য জামায়াতে ইসলামী বিশেষ ভূমিকা রাখে।
উৎসঃ   প্রাইমনিউজবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ