• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৩৬ অপরাহ্ন |

তৃণমূলে লেজে-গোবরে অবস্থা জাপার

jatio_partyসিসি ডেস্ক: চলমান উপজেলা নির্বাচনের প্রথম দুই ধাপে চরম ভরাডুবি ঘটেছে সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টির। ২১১টি উপজেলায় দলটির মাত্র দু’জন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার পরও ১৫ মার্চ তৃতীয় ধাপের ভোট নিয়ে উপজেলা পরিষদের প্রবর্তক দলটির নেই কোন প্রস্তুতি। বিপদ কাটাতে কোনো উদ্যোগও নেই।
কেন্দ্র থেকে কাউকে সমর্থন দেওয়া হয়নি। কোনো কোনো উপজেলায় দল-সমর্থিত প্রার্থী একাধিক। আবার কোথাও প্রার্থীই নেই। এসব ক্ষেত্রে নেই কেন্দ্রের কোনো তদারকি। উপজেলা নির্বাচন নিয়ে লেজে-গোবরে অবস্থা প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির।

জানতে চাইলে জাপার নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান ও দলটির প্রেসিডিয়াম সদস্য মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা বলেন, তৃতীয় ধাপের উপজেলা নির্বাচন উপলক্ষে কেন্দ্র থেকে তৃণমূলে নেতাকর্মীদের কোনো নির্দেশনা দেওয়া হয়নি। কেন্দ্রের ধোঁয়াশা না কাটায় তৃণমূলে ফলাফল খারাপ হচ্ছে,  এটাই মানতে হবে।

তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাচন অরাজনৈতিক হলেও প্রথম দুই ধাপে জাতীয় পার্টির বিপর্যয় ঘটেছে এটা অস্বীকার করার উপায় নেই। কেন্দ্র থেকে ম্যাসেজ দিতে না পারার কারণে এ অবস্থা হয়েছে। অচিরেই এ সমস্যা সমাধান হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন সোহেল রানা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির হযবরল অবস্থা বিরাজ করছে। প্রথম ধাপের ১১জন প্রার্থীকে এরশাদ জাতীয় পার্টির সমর্থন দিয়েছিলেন। পরবর্তীতে আর কাউকেই পার্টি থেকে সমর্থন দেওয়া হয়নি। ফলে কোনো কোনো উপজেলায় একাধিক আবার কোথাও কোনো প্রার্থীই থাকছে না। কেন্দ্রের সমন্বয়ের কারণে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি উপজেলায় ভাল করতে পারছে না। ফলে তৃণমূলে পার্টির সাংগঠনিক অবস্থা তছনছ হয়ে যাচ্ছে।

নেতাকর্মীদের অভিযোগ, উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি জামায়াত তাদের দলীয় প্রার্থীদের সমর্থন দিয়ে দলের অবস্থান শক্ত করে নিচ্ছে আর জাতীয় পার্টির ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। আর এজন্য পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ এবং সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য রওশন এরশাদের দ্বন্দ্বই দায়ী। তাঁরা দুজন এক হতে না পারার কারণে কেন্দ্র থেকে প্রার্থীর সমর্থন দেওয়া সম্ভব হয়নি।
এ প্রসঙ্গে মাসুদ পারভেজ সোহেল রানা বলেছেন, এরশাদ ও রওশনের টানাপোড়েনের কারণেই মূলত দলটির তৃণমূল পর্যায়ে এ অবস্থা। এরশাদ বা রওশন কেউই তাঁকে উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কোনো নির্দেশনা দেননি।

জানা যায়, প্রথম পর্যায়ে এরশাদ সমর্থিত কেউ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে জেতেনি। গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলায় দলের একমাত্র প্রার্থী এইচ এম গোলাম শহীদ রঞ্জু জিতলেও তাঁর প্রতি সমর্থন ছিল না এরশাদের। ব্যক্তি ইমেজে জিতেছেন তিনি। সামগ্রিকভাবে জাতীয় পার্টির পরাজয়ের কারণ নেতৃত্বের বিরোধ, সংশয়, প্রার্থী দিতে না পারা। আর জাতীয় সংসদে রওশন এরশাদ ও হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মধ্যে নেতৃত্বের বিরোধ জিইয়ে রেখেছেন পার্টির কয়েকজন নেতা। তাঁরা চান, পার্টিতে রওশনের কর্তৃত্ব। তবে সারা দেশে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা চান এরশাদকে। নেতৃত্বের এই দ্বন্দ্ব নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি করছে। এর প্রভাব পড়েছে দলে। ভোটের রাজনীতিতে তাই পিছিয়ে পড়েছে জাতীয় পার্টি।

প্রেসিডিয়াম সদস্য সদস্য মীর আবদুস সবুর আসুদ জানান, উপজেলা নির্বাচন অরাজনৈতিক। এই নির্বাচনের মাধ্যমে কোনো দলের জয় পরাজয় নির্ভর করে না। তিনি জানান, জাতীয় পার্টিই একমাত্র নির্বাচন কমিশনের আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল দল যারা এই অরাজনৈতিক নির্বাচনকে রাজনৈতিকভাবে রূপ দেয়নি। জাতীয় পার্টি দলকে শক্তিশালী করতে কাজ করে যাচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ