• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৩৯ পূর্বাহ্ন |

মাতৃত্বকালীন ছুটি কী কেবল কাগজে-কলমে?

Garmentsনিউজ ডেস্ক: আমাদের দেশে পুরুষের পাশাপাশি নারীরা কাজ করে চলেছেন সমান দক্ষতায়। তারপরও কর্মক্ষেত্রে নারীরা নানা রকম শারীরিক, মানসিক ও যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছেন। এসব সমস্যা ছাড়াও অফিস কর্তৃপক্ষ বেতন কাঠামো, প্রমোশন, বেতন বৃদ্ধিসহ সকল ক্ষেত্রেই বৈষম্য করে থাকে নারীদের সঙ্গে। শুধু বেসরকারি অফিস কর্তৃপক্ষই নয়, সরকারও নারীদের সঙ্গে বৈষম্য করে আসছে। যে কারণে আমাদের দেশের শিক্ষিতা নারীদের অনেক সময় অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে চাকরি ছেড়ে দিতে দেখা যায়।

সরকার কর্মজীবি নারীদের জন্য মাতৃত্বকালীন ছুটি ৬ মাস ঘোষণা করলেও শ্রমিক নারীরা পাচ্ছেন না সে সুফল। এ নিয়ে সরকারের উদাসীনতায় প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে- সরকার কী আদৌ নারীবান্ধব, না নারী বিদ্বেষী?
৬ মাসের মাতৃত্বকালীন ছুটি পূর্ণ বেতনসহ দুবার ভোগ করার কথা থাকলেও নারী শ্রমিকদের ক্ষেত্রে তা চার মাস। এরপরও অধিকাংশ ক্ষেত্রে ছুটি চাইতে গেলে চাকরি থেকেই ছাঁটাই করে দেয়া হয়, যা কিনা রীতিমতো মানবাধিকার লঙ্ঘন, একইসঙ্গে হৃদয়হীন ও বৈষম্যমূলক আচরণ।
বেসরকারী স্কুলের শিক্ষিকা তানজিলা গাফফার বলেন, কয়েক বছর ধরে স্কুলে শিক্ষকতা করলেও মাতৃত্বকালীন ছুটি না দেয়ায় নবজাতকের সুস্থতার কথা চিন্তা করে চাকরিটাই ছেড়ে দিই। ছয়মাস মাতৃত্বকালীন ছুটি পেলে ঠিকই আমি আমার কর্মস্থলে ফিরে যেতাম।
নারী সংহতির সমন্বয়ক শ্যামলী শীল  বলেন, রাষ্ট্রই সকল ক্ষেত্রে নারীর প্রতি বৈষম্য করে থাকে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা যায় নারীর অধিকার নিয়ে আইন করলেও তা বাস্তবায়ন হচ্ছে কিনা সে ব্যাপারে সরকার একেবারেই উদাসীন। জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকল মানুষ সমান এবং আইনের চোখে সবাই সমান। কিন্তু মাতৃত্বকালীন ছুটির ক্ষেত্রে কেন নয়?
তিনি আরও বলেন, অন্য যেকোন সেক্টরের চেয়ে শ্রমিক শ্রেণির নারীদের প্রতিবাদের ক্ষমতা কম। তাই এক্ষেত্রে সরকার বৈষম্য চালিয়ে যেতে পারছে। সরকার মালিকপক্ষকে অর্থনৈতিক প্রণোদনাসহ অন্যান্য সুবিধা দিলেও নারী শ্রমিকদের প্রতি অবহেলা করছে।
সম্মিলিত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি নাজমা আক্তার বলেন, সরকার মাতৃত্বকালীন ছুটি ৬ মাস ঘোষণা করলেও গার্মেন্টসহ অন্যান্য শ্রমিক নারীদের ক্ষেত্রে তা মানা হয় না। এক দেশে ‍দুই আইন- যা মানবাধিকার লঙ্ঘন। শ্রমিক নারীরা সবচেয়ে কঠোর পরিশ্রম করে, কিন্তু সে তুলনায় তারা ‍সুযোগ সুবিধা পায় না। তিনি আরও বলেন, সরকার ও মালিকদের দৃষ্টিভঙ্গি বদলালেই কেবল নারীরা তাদের ন্যায্য অধিকার ফিরে পাবে।
গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্য ফোরামের সভাপতি ও বাম মোর্চার সমন্বয়ক মোশরেফা মিশু বলেন, সরকার মাতৃত্বকালীন ছুটি ৬ মাস ঘোষণা করলেও বেসরকারী সব অফিস, কলকারখানায় তা মানা হয় ১২০ দিন। নারী দিবসে আমাদের দাবি গার্মেন্টসসহ শ্রমজীবি নারীদের মাতৃত্বকালীন ছুটি ৬ মাস করা হোক। একই সঙ্গে সরকার যেন তা অবিলম্বে কার্যকর করে। শ্রমজীবি নারীদের মাতৃত্বকালীন ছুটি ৪ মাস করা হয়েছে মূলত শ্রেণীভিত্তিক চিন্তা ভাবনা থেকে।
বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি ও মানবাধিকার কর্মী ফাওজিয়া করিম ফিরোজ বলেন, সরকার নারীর মাতৃত্বকালীন ছুটি ৬ মাস করেছে কিন্তু বিজিএমই বলেছে তারা ৪ মাস করবে। কিন্তু সরকার এ ব্যাপারে কিছু বলেনি। এ ব্যাপারে সরকারের সঙ্গে বিজিএমইর কোনো লিখিত কিংবা কোনো সমঝোতা হয় নি। বিজিএমই এর এই নীতি অন্যান্য বেসরকারী কোম্পানীগুলো অনুসরণ করছে।
তিনি আরও বলেন, একদেশে নারীদের দুই আইন মেনে নেয়া যায় না। মাতৃত্বকালীন ছুটি নিয়ে সরকারের এই নীরবতা প্রমাণ করে সরকার নারীদের প্রতি বৈষম্য করছে। নারীদের এই আইন সংবিধানের বিপক্ষে চলছে। সরকার সর্বক্ষেত্রে সংবিধান সংবিধান করে, নারীদের কর্মক্ষেত্রের বেলায় কেন সংবিধান মানা হবে না?
সরকার পদক্ষেপ নিলেই কেবল এই বৈষম্য দূর হবে বলে মনে করেন ফাওজিয়া।
উৎসঃ   বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ