• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৫:০৫ পূর্বাহ্ন |

শাস্তি ছাত্রলীগে আশির্বাদ !

ChatroLigঢাকা: বিভিন্ন ধরনের নাশকতা ও সহিংসতায় জড়িত থাকার অভিযোগে ছাত্রলীগের যেসব নেতাকর্মীর সাংগঠনিকভাবে শাস্তিô হয় পরবর্তীতে তারাই গুরম্নত্বপূর্ণ পদ পান। এই শাস্তিôই যেন তাদের জন্য আশির্বাদ হয়ে আসে। এমন অনেক উপমা রয়েছে যে, দেশের বিভিন্ন শিড়্গা প্রতিষ্ঠানে সন্ত্রাসী কর্মকাÐে জড়িত থাকার অভিযোগে অনেক নেতার বিরম্নদ্ধে সাংগঠনিকভাবে শাস্তিôমূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

কিন্তু যখনই ওই ঘটনা থেকে মানুুষের দৃষ্টি অন্য দিকে প্রবাহিত হয়। তখনই শাস্তিô পাওয়া ওই সব নেতাকর্মী সক্রিয় হয়ে উঠে। এবার দলের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের কাছে তারা পরিচিত হয়ে উঠেন। এক সময় সাংগঠনকিভাবে ভাল পদও পান তারা। ওই শাস্তিô যেন ভাল পদে আসীন হওয়ার জন্য সনদপত্র হিসাবে কাজ করে।

বর্তমান কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসাইন আনু। ২০০৮ সালে তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ছাত্রলীগ শাখা থেকে বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল। তার অপরাধ ছিল সহকর্মীদের মারধর করা।

এর এক বছরের মাথায় বহিষ্ড়্গারাদেশ থাকা সত্ত্বেও সলিমুলস্নাহ মুসলিম হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ পান তিনি। এরপর হল কমিটির মেয়াদ শেষ হলে ২০১২ সালে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পদে আসীন হন তিনি।
এটা শুধু এই আনুর ড়্গেত্রেই নয়। ছাত্রলীগের গুরম্নত্বপূর্ণ ও প্রভাবশালী পদে যারা আছেন তাদের প্রায় সবাই এভাবেই এসেছেন। যারা আগে সহিংসতা ও অপরাধমূলক কর্মকাÐে জড়িত থাকার অভিযোগ শাস্তিô পেয়েছেন, বেছে বেছে তাদেরকেই ওইসব গুরম্নত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

ছাত্রলীগের এমন একজন নেতা আহমেদুল বাশার। বর্তমানে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহকারী সেক্রেটারি। তিনি যখন শেরে-ই বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাপতি ছিলেন। তখন তাকে একবার বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের আরেক সহকারী সেক্রেটারি হাফিজুর রহমান। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যুগ্ম আহ্বায়কের পদে থাকাকালে ২০১২ সালে তাকে কমিটি থেকে বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মহিউদ্দীন মাহি। অন্তôর্দলীয় কোন্দলে জড়িত থাকার অভিযোগে ঢাবির হাজি মুহাম্মদ মুহসীন হল শাখা ছাত্রলীগ কমিটি থেকে ২০১০ সালে তাকে বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল।

এবি সিদ্দিকী রাহাত। বর্তমানে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক। তাকেও অন্তôর্দলীয় কোন্দলের অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ কমিটি দুটো থেকেই বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল।

সবচেয়ে মজার একটি ঘটনা হচ্ছে বর্তমান ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগ শাখার সাধারণ সম্পাদক সাকিব হাসান সুইমের ব্যাপারটি। কলেজ শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক আল-মাহমুদ তারেকের ওপর হামলার অভিযোগে তাকে ২০১২ সালে কমিটি থেকে বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল। পরবর্তীতে সুইম কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক হন। আর তারেক পান কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ।

এর কিছুদিন পর সুইম বারো প্রকাশ্যে আসে। তার নেতৃত্বে একটি হামলায় কলেজের একজন সাধারণ শিড়্গার্থী নিহত হন। এই ঘটনার পর ঢাকা কলেজ ছাত্রলীগ কমিটি সাময়িকভাবে স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু তারপরও সুইম সংগঠনে সক্রিয় বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক উত্তম কুমার দাস। তাকে বিভিন্ন সহিংসতামূলক কর্মকাÐে জড়িত থাকার অভিযোগ এর আগে দুই বার বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল। পরবর্তীতে তাকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য করে পুরস্ড়্গৃত করা হয়েছে। এরপর তিনি আবারো অন্তôর্দলীয় কোন্দলে জড়ান। তার নেতৃত্বে দলের প্রতিপড়্গের ওপর হামলার ঘটনায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমরান চির পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন। এরপর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ কমিটি তাকে আজীবন বহিষ্ড়্গার করে। কিন্তু তিনি এখনও সংগঠনে সক্রিয় বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির একজন সহ-সভাপতি বলেছেন, এটা এখন নিয়মে পরিণত হয়েছে যে, দলের নীতিনির্ধারকদের মনোযোগ আকর্ষণ করতে হলে সহিংসতায় জড়িত হতে হবে। ভাল পদ পেতে হামলা চালিয়ে পেশী শক্তির জানান দিতে হবে। নিজের প্রভাব দেখাতে হবে। মামলা খেতে হবে।

তিনি বলেন, যখন কোনো কর্মীর মনোভাবটাই এমন থাকে তখন সে শাস্তিôর ভয় করে না। এই ধরনের তথাকথিত বা নামমাত্র শাস্তিô দিয়ে দলীয় শৃঙ্খলা এবং সহিংসতা বন্ধ করা সম্্‌ভব নয় বলেও মনে করেন তিনি।

ব্যতিক্রম নয় ঢাবি ছাত্রলীগ কমিটিওঃ

একই ধরনের চিত্র লড়্গ্য করা গেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ছাত্রলীগ কমিটিতেও। এখানেও শাস্তিôপ্রাপ্ত নেতাকর্মীদের জয়-জয়কার।

ওয়াহিদুজ্জামান। বর্তমান ঢাবি ছাত্রলীগ কমিটির উপ অর্থ বিষয়ক সম্পাদক। ২০১১ সালে এক রক্তড়্গয়ী সংঘর্ষে জড়িত থাকার অভিযোগে তাকে কমিটি থেকে বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল।

ঢাবির সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক বরকত ও অভ্যর্থনা বিষয়ক সম্পাদক শাহীন আহমেদকেও বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল।

এছাড়া ঢাবির বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি মামুন। তাকেও সাংবাদিকের ওপর হামলার অভিযোগে একবার বহিষ্ড়্গা করা হয়েছিল। আর ইভটিজিংয়ের অভিযোগে বহিষ্ড়্গার হয়েছিলেন ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) চিত্রঃ

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে এই চিত্র আরো ভয়াবহ। জাবি ছাত্রলীগের বর্তমান সহ-সভাপতি সিরাজুল ইসলাম সুমন। ২০০৯ সালের ফেব্রম্নয়ারিতে ক্যাম্পাসে নিজ দলের কর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশ তাকে শটগানসহ আটক করেছিল। এ ঘটনায় তার এক বছরের জেল হয়েছিল। ওই সময় বিভিন্ন গণমাধ্যমে শটগানসহ সুমনের আটকের ছবি ফলাও করে ছাপা হয়েছিল।

জাবি কমিটির চার জন সহ-সভাপতি জুনায়েদুল হক পারভেজ, রাসেল মিয়া স্বাধীন, সুবাশীষ কুন্ডু টনি ও আরিফুল ইসলাম। যুগ্ম সম্পাদক এসএম আলমগীর, সাংগঠনিক সম্পাদক মোসাদ্দেক আলী এবং আল-বিরম্ননী হলের সাধারণ সম্পাদক চন্দ্র বাগচীকেও ২০১০ সালে ক্যাম্পাসে অন্তôর্দলীয় কোন্দলের কারণে বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল।

এছাড়া ২০১২ সালের আগস্টে বিশ্ববিদ্যালয় ভবন ও শিড়্গকদের আবাসিক ভবনে হামলায় জড়িত থাকার কারণে জাবির মীর মোশাররফ হোসেন হল শাখা ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি রাহাত করিম, সাংগঠনিক সম্পাদক তানভীর আহমেদ, সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক সানোয়ার হোসাইন, সমাজকল্যাণ বিষয়ক উপ সম্পাদক বশিরম্নল হককেও বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল।

জাবি শাখা ছাত্রলীগের বর্ধিত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মুরশিদুর রহমান। ২০১৩ সালের ১৬ মার্চ মাওলানা ভাসানী হল থেকে পুলিশ তাকে একটি নাইন-এমএম পিস্তôল ও ৬ রাউন্ড গুলিসহ আটক করে। এ ঘটনায় ওই বছরের ১৯ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপড়্গ তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্তô করে। পরবর্তীতে ২০১৩ সালের ১০ অক্টোবর মুরশিদ জাবি শাখা ছাত্রলীগের বর্ধিত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হন।

এছাড়া ২০১৩ সালের মার্চে জাবির শহীদ রফিক-জব্বার হল ও মাওলানা ভাসানী হলের ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে রক্তড়্গয়ী এক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় শহীদ রফিক-জব্বার হল শাখা ছাত্রলীগ নেতা মাজেদুল ইসলাম সীমান্তôকে হলের নিজ কড়্গ থেকে বিপুল পরিমাণ দেশীয় ধারালো অস্ত্রসহ পুলিশ আটক করে। পরে সাময়িকভাবে কমিটি থেকে তাকে বহিষ্ড়্গার করা হয়। এর আগেও সাংবাদিকের ওপর হামলার ঘটনায় একবার বহিষ্ড়্গার হয়েছিলেন তিনি। তারপরও বর্তমান জাবি ছাত্রলীগ কমিটির বিতর্ক ও নাট্য বিষয়ক সম্পাদক করা হয়েছে তাকে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি)ঃ

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির যুগ্ম সম্পাদক সঞ্জিত কুমার। ২০১১ সালে শিড়্গককে লাঞ্ছিত করার অভিযোগে তাকে ছাত্রলীগ কমিটি ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল।

বিশ্বজিৎ হত্যাকারী রফিকুল ইসলাম শাকিল ও এমদাদুল হক মিলনকেও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ কমিটি থেকে বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল। বিশ্বজিতের আরেক হত্যাকারী নূর-ই আলমকেও ২০০৯ সালে শিড়্গককে লাঞ্ছনার অভিযোগে বহিষ্ড়্গার করা হয়েছিল।

এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ কমিটির সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি শাস্তিôপ্রাপ্তদের কমিটিতে থাকার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

তিনি বলেন, আমরা সব সময় চেষ্টা করি এই ধরনের অপরাধীদের কমিটিতে না রাখার জন্য। কিন্তু যখন তারা ড়্গমা চায়, ভুল স্বীকার করে এবং ভবিষ্যতে এ ধরনের সহিংসতায় না জড়ানোর জন্য প্রতিশ্রম্নতি দেয় তখন আমরা বিষয়টি বিবেচনায় নিই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ