• মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১২:২৩ অপরাহ্ন |

জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ আজ শুরু

PSCঢাকা: আজ রবিবার থেকে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ-২০১৪ শুরু হচ্ছে। এ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আলাদা আলদা বাণী দিয়েছেন। প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে রাষ্ট্রপতি বলেছেন, প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়নে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ পালনের উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই। তিনি বলেন, ‘প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে ‘জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৪’ উদযাপিত হতে যাচ্ছে জেনে আমি আনন্দিত। আবদুল হামিদ বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সরকার ঘোষিত ‘রূপকল্প ২০২১’ বাস্তবায়নে সুশিক্ষিত, দক্ষ ও কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন কর্মমুখী দক্ষ জনশক্তি একান্ত প্রয়োজন। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, সকলের সম্মিলিত এবং সক্রিয় অংশগ্রহণের মাধ্যমে এ রূপকল্পের আওতায় ২০১৪ সালের মধ্যে বিদ্যালয় গমনোপযোগী সকল শিশুকে বিদ্যালয়ে ভর্তি এবং নিরক্ষরমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার যে প্রত্যয় ব্যক্ত করা হয়েছে সে লক্ষ্যমাত্রায় পৌঁছানো সম্ভব। আমি ‘সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা’ অর্জন এবং ’রূপকল্প ২০২১’ বাস্তবায়নে সকলের অংশগ্রহণের উদাত্ত আহ্বান জানাই। তিনি ‘জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৪’ এর সর্বাঙ্গীণ সাফল্য কামনা করেন।’
এদিকে প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর আধুনিক জাতি গঠনের পাশাপাশি দেশের সুষম ও টেকসই উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে আমাদের সুশিক্ষিত ও দক্ষ জনগোষ্ঠী প্রয়োজন। তিনি বলেন, এ জন্য আমাদের সরকার প্রাথমিক শিক্ষার ওপর সর্বাধিক গুরুত্বারোপ করেছে। তিনি সবার জন্য মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতকরার লক্ষ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে জেনে আনন্দিত হন এবং বলেন, ভর্তির ক্ষেত্রে ইতোমধ্যে অর্জিত সফলতা সুংসহত করার সঙ্গে সঙ্গে সবার জন্য মানসম্মত শিক্ষা ও ঝরেপড়া রোধ নিশ্চিত করতে হবে।
শেখ হাসিনা বলেন, এ জন্য আমাদের সরকার প্রাথমিক শিক্ষাক্ষেত্রে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা সংযোজন এবং অভিন্ন শিক্ষাক্রম, বিদ্যালয়ের ভৌতকাঠামো উন্নয়ন, শিক্ষার্থীদের জন্য সুপেয় পানি সরবরাহ ছাড়াও বিদ্যালয়ে গমনোপযোগী সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য উপবৃত্তির আওতা সম্প্রসারণ করেছে। তিনি বলেন, পাশাপাশি মিড-ডে মিল হিসেবে উন্নতমানের বিস্কুট সরবরাহ, প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা প্রবর্তন, শিশুদের নেতৃত্ববোধ জাগ্রত করার জন্য স্টুডেন্টস কাউন্সিল গঠন, শিক্ষা ব্যবস্থাপনায় অভিভাবক ও স্থানীয় জনগণের অধিকতর সম্পৃক্ততার মাধ্যমে মনিটরিং কার্যক্রম জোরদারকরণ এবং পাঠ্যপুস্তক সহজলভ্য করার জন্য ‘ই-বুক’ চালু করেছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, এছাড়া নতুন বছরের প্রথম দিনেই মাধ্যমিক পর্যায় পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের হাতে পাঠ্যপুস্তক তুলে দেয়া হচ্ছে। এমডিজি লক্ষ্য অর্জিত হয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ উপলক্ষে গৃহীত সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করে তিনি বলেন, আমি আশা করি, শিক্ষাসহ অন্যান্য ক্ষেত্রে সূচিত অগ্রযাত্রার ধারাবাহিকতায় রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়ন সম্ভব হবে। এ পথ ধরে আমরা দারিদ্র্যমুক্ত, ক্ষুধামুক্ত ও নিরক্ষরতামুক্ত অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার মাধ্যমে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করতে সক্ষম হব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ