• শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪৬ অপরাহ্ন |

পল্লী বিদ্যুত সমিতির লাইনম্যানদের জীবন অন্ধকারে

polliসিসি ডেস্ক: ক্ষোভের আগুনে পুড়ছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মচারীরা। বুধবার নওগাঁ পল্লীতলায় আশিষ কুমার নামে এক লাইনম্যান বিদ্যুতের কাজ করতে গিয়ে দুর্ঘটনায় আহত হয়ে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসায় থাকায় বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন সমিতির লাইনম্যানরা। গতকাল রংপুর প্রেস ক্লাবে এসে সাংবাদিকদের অভিযোগ করে বলেন, জনবলের অভাবে দিন-রাত পরিশ্রম করতে হয়। এর উপর নেই কোন ওভার টাইম, সুযোগ-সুবিধা কিংবা পদমর্যাদা। তার ওপর পল্লী বিদ্যুতের নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করতে গিয়ে ঝুঁকির মুখে পড়তে হয়। ইতিমধ্যে অনেকে পঙ্গুত্বসহ মৃত্যুবরণ করেছে। তাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে অনাহারে-অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছে। অথচ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তারা দেখেও না দেখার ভান করছে। কান্না জড়িত কণ্ঠে অভিযোগ করে জানান, যে লাইনম্যানরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে গ্রাহকের ঘর আলোকিত করছেন, তাদের নিজেদের জীবনে নেই কোন আলো।  এ ব্যাপারে রংপুর পল্লী বিদ্যু সমিতি-১ এর জিএম দেওয়ান তোফাজ্জল হোসেনের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, বিদ্যুৎ সমিতির নিয়ম মাফিক কর্মচারীদেরকে চালানো হচ্ছে। রংপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি (পবিস)-এর লাইনম্যানরা জানান, গ্রামীণ অর্থনীতিকে চাঙ্গা করার জন্য ১৯৭৮ সালে গঠন করা হয় পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি। তৎকালীন সময় লাইনম্যানদের সুযোগ-সুবিধা দেয়া হলেও পরবর্তীতে রহস্যজনকভাবে তাদের সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত করা হয়। রংপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ শঠিবাড়ীর অধীনে ১ লাখ ১৫ হাজার গ্রাহকের জন্য ৯২ লাইনম্যান ও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২, পাগলাপীরের ১ লাখ ১০ হাজার গ্রাহকের জন্য ৭৮ লাইনম্যান রয়েছেন। এই লাইনম্যানরা ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ১৬ থেকে ১৮ ঘণ্টা পরিশ্রম করছেন। শ্রম আইন অনুযায়ী তাদের কোন সুযোগ-সুবিধা না দেয়ায় বিষয়টিতে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। গুটি কয়েক অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজশে উচ্চপর্যায়ে কর্তৃপক্ষ তাদের স্বার্থসিদ্ধি করার লক্ষ্যে এসব লাইনম্যানদের প্রতি বিমাতা সুলভ আচরণ করছে। অথচ পিডিবি ও ডেসার অধীনে গ্রাহকের সংখ্যা কম হলেও কর্মচারী ও লাইনম্যান রয়েছে যথেষ্ট। সেই সঙ্গে তাদের সুযোগ-সুবিধাও বেশি দেয়া হচ্ছে। তারা আরও অভিযোগ করে বলেন, পবিস কর্মচারীদের নৈমিত্তিক ছুটির বিধান রয়েছে ৩৩, ঐচ্ছিক ছুটি ২০ দিন। জনবল কম থাকার কারণে তাদের সেই ছুটি দেয়া হচ্ছে না। এমনকি শত অসুবিধা থাকলেও সার্ভিস কোডের বিধান অনুসারে তারা ছুটি দাবি করতে পারবেন না। এত সমস্যার পরেও চাকরি শেষে তাদের কোন এলপিআরের ব্যবস্থা নেই। সবচেয়ে দুঃখের বিষয় লাইন টেকনিশিয়ানদের দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা থাকলেও জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার পদে পদোন্নতি নিয়মের মধ্যে পড়লেও সমপ্রতি সে সুযোগ থেকেও তাদেরকে বঞ্চিত করে লাইনম্যান পদবি দেয়া হয়েছে। আর জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ারের পদে নতুন করে অনভিজ্ঞদের নিয়োগ দিয়ে এসব অভিজ্ঞ লাইনম্যানদের অবমূল্যায়নসহ হেয় করা হয়েছে। জনবলের অভাবে উপ-কেন্দ্রগুলোতে জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার নিয়ে কাজ করার নিয়ম থাকলেও তা লাইনম্যানদের দিয়ে সে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। এত সমস্যার পরেও কতিপয় অসাধু কর্মকর্তারা উচ্চ পর্যায়ের সঙ্গে যোগসাজশ করে পল্লী বিদ্যুতের জন্য নিম্নমানের ট্রান্সফরমার, তার, কাটআউট, মিটারসহ বিভিন্ন সামগ্রী ক্রয় করে লাইনম্যানদের মৃত্যু ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিচ্ছে। বিদ্যুতের কাজ করতে গিয়ে কোন কর্মচারীর মৃত্যু বা পঙ্গুত্ব বরণ করলে তাদের কোন ঝুঁকি ভাতা দেয়া হয় না। কর্মচারীদের প্রশ্ন আর কত পঙ্গুত্ববরণসহ মৃত্যু হলে তাদের ন্যায্য দাবি মানা হবে। উৎস: মানবজমিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ