• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৪২ অপরাহ্ন |

মহাসড়কে চাঁদাবাজির মহোৎসব

chadeabaziসিসি নিউজ: উত্তরাঞ্চল থেকে ঢাকাগামী একমাত্র মহাসড়কটিতে পণ্য বাহনের গাড়িগুলোতে চাঁদাবাজদের অশুভ দৃষ্টি পড়েছে। এতে পণ্য নিয়ে যাওয়া-আসা ট্রাক, মিনি পিকআপ, পিকআপ পরিবহনগুলোর ভোগান্তি দিন দিন বাড়ছে। কতিপয় হাইওয়ে পুলিশ, শ্রমিক ও মটর মালিক সমিতি মিলে ৩০টি পয়েন্টে টাকা দেয়ার পরই কেবল প্রবেশ করছে গাড়িগুলো উত্তর ও দক্ষিণাঞ্চলে। এভাবে অর্ধ কোটি টাকা প্রতিদিন হাতিয়ে নিচ্ছে চাঁদাবাজরা। এ চাঁদাবাজদের উৎপাত দিন দিন বেড়ে যাওয়ায় ক্ষোভ বিরাজ করছে পণ্যবাহী চালক ও মালিকদের মধ্যে। এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে তারা কঠোর আন্দোলনে যাওয়ারও হুমকি দিয়েছেন।
একটি সূত্র জানায়, রংপুর বিভাগের ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, নীলফামারী, পঞ্চগড়, লালনিরহাট, কুড়িগ্রাম, রংপুর, গাইবান্ধা হতে প্রতিদিন ৬ থেকে ৭ হাজার পণ্যবাহী গাড়ি চলাচল করে ঢাকাগামী সড়কপথে। হাইওয়ে পুলিশ, শ্রমিক ও মটর মালিক সমিতি বিভিন্ন অজুহাতে দিনাজপুর, পঞ্চগড়, দশমাইল, ঠাকুরগাঁও, নীলফামারী, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, চম্পাতলী, ইকরচালী, পীরগঞ্জ, বড়দরগা, শঠিবাড়ি, পলাশবাড়ী, গোবিন্দগঞ্জ, বগুড়া, শেরপুর, চাপলাইকোনা, বগুড়া, রংপুর, হাটি কুমরুল, ব্ড্ডাার মোড়, যমুনা সেতু, এলেঙ্গা, টাঙ্গাইল, মোকামতলা, মির্জাপুর, হাটভাঙ্গা, চান্দুরা, বাইপাল, সাভার, মহাস্থানগড়, যাত্রাবাড়ী স্পটগুলো থেকে নামে বেনামে স্লিপ দ্বারা ১শত থেকে ২শত টাকা আদায় করছে। এভাবে প্রতিদিন অর্ধ কোটি টাকা পণ্যবাহী যানবাহন থেকে চাঁদা আদায় করা হচ্ছে।
পণ্যবাহী চালকরা জানান, এ স্পটগুলো থেকে এখন প্রকাশ্যে নিয়মিত টাকা আদায় চলছে। তাদেরকে টাকা না দিলে যেকোন মামলা দিয়ে হয়রানি করে। কিংবা গাড়ি আটকিয়ে রাখে তাই বাধ্য হয়েই আমরা টাকা  দেই। লালমনিরহাট এলাকার নয়ন নামে এক ট্রাক ড্রাইভার জানান, রাস্তায় সামান্য টাকা দিলেও জেলা শহরগুলোতে পণ্য নিয়ে প্রবেশ করলে ৫শত টাকা দিতে হয় পুলিশকে। না হলে তারা রিকুইজিশন শাস্তি দেয়। নীলফামারীর নান্নু নামে এক পিকআপ চালক জানান, হাইওয়ে পুলিশ আমাদের কখনও কোন সহযোগিতা করে না। উল্টো তারা সড়কে ধাওয়া করে বিভিন্ন আইন দেখিয়ে জোরপূর্বক চাঁদা নেয়। একই অভিযোগ করেন তারা শ্রমিক ও মালিক সমিতির বিরুদ্ধে। পলাশবাড়ী-রংপুর থেকে বগুড়া ঢুকতে মালিক সমিতি ও শ্রমিক সংগঠনের নামে স্লিপ দিয়ে জোরপূর্বক চাঁদা আদায় করছে। এতে ক্ষোভে ফুঁসে উঠছে পণ্যবাহী চালকসহ মালিকরাও। সৈয়দপুরের বদিয়ার নামে এক পিকআপ মালিক জানান, সড়কে যতগুলো পরিবহন চলে সবগুলোই মালিক সমিতির সদস্যভুক্ত। সংগঠনে তারা মাসিক চাঁদাও দেয়া হয়। অথচ সংগঠনের নামে টাকা জোরপূর্বক চাঁদা আদায় করছে মালিক সমিতিসহ নামে বেনামে বিভিন্ন মোটর শ্রমিক সংগঠন। এটি অব্যাহত থাকলে আমরা চালকদের নিয়ে কঠোর আন্দোলনে যাব। তবে হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়িগুলোর সার্জেন্ট চাঁদাবাজির এ অভিযোগ অস্বীকার করেন। হাটি কুমরুল হাইওয়ের সার্জেন্ট জুনাইদ, এলেঙ্গা হাইওয়ের সার্জেন্ট আব্দুর রাজ, ইকরচালী হাইওয়ের সার্জেন্ট মমিন জানান, চাঁদাবাজি নয় আমরা সড়কে সেবা দেয়ার জন্য সর্বদা তৎপর। তবে আড়ালে কেহ করলে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।
রাজশাহী বিভাগের শ্রমিক পরিবহনের ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক মমতাজ আলী জানান, অবৈধভাবে কেহ চাঁদা করতে পারে না। যদি কোন অভিযোগ আসে তাহলে অবশ্যই সংগঠনের নিয়মনীতির মধ্যে দিয়ে তাদের বিচার হবে।
এদিকে সচেতন মহল মনে করছেন, মহাসড়কে পণ্যবাহী যানবাহনের কাছে চাদাবাজির কারণে পণ্য দর বৃদ্ধিতে প্রভাব ফেলছে। এতে সাধারণ জনগণেরাই ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। তাই জনস্বার্থে সংশ্লিষ্ট মাননীয় মন্ত্রীকে মহাসড়কে চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়া উচিত বলে মনে করছেন তারা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ