• সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৪:১৮ পূর্বাহ্ন |

রবি মৌসুমে ভুট্টা চাষ

Agriকৃষিবিদ নিতাই চন্দ্র রায়: বাংলাদেশে হেক্টরপ্রতি ভুট্টার গড় ফলন মাত্র ৫.৭৬ মেট্রিক টন। উন্নত প্রযুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে রবি মৌসুমে ভুট্টার ফলন হেক্টরপ্রতি ৭.০ থেকে ৮.০ টনে উন্নীত করা সম্ভব। ভুট্টা একটি অধিক ফলনশীল দানাজাতীয় শস্য। ধান ও গমের তুলনায় ভুট্টার পুষ্টিমাণ বেশি। এতে প্রায় শতকরা ১১ ভাগ আমিষজাতীয় উপাদান আছে। আমিষে প্রয়োজনীয় অ্যামিনো এসিড, ট্রিপটোফ্যান ও লাইসিন অধিক পরিমাণে রয়েছে। এছাড়া হলদে রঙের ভুট্টাদানার প্রতি ১০০ গ্রামে প্রায় ৯০ মিলিগ্রাম ভিটামিন-এ রয়েছে। ভুট্টাদানা মানুষের খাদ্য হিসেবে এবং ভুট্টা গাছ ও সবুজ পাতা উন্নত মানের গোখাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। হাঁস-মুরগি ও মাছের খাদ্য হিসেবে এর যথেষ্ট গুরুত্ব রয়েছে। বাংলাদেশে প্রতি বছরই ভুট্টার চাষ, উৎপাদন ও ব্যবহার বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০১১-১২ মৌসুমে বাংলাদেশে রবি ও খরিপ মৌসুম মিলে ২ লাখ ৮৩ হাজার হেক্টর জমি থেকে ১৯ লাখ ৫৪ হাজার মেট্রিক টন ভুট্টা উৎপন্ন হয়। বাংলাদেশে হেক্টরপ্রতি ভুট্টার গড় ফলন মাত্র ৫.৭৬ মেট্রিক টন। উন্নতপ্রযুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে রবি মৌসুমে ভুট্টার ফলন হেক্টরপ্রতি ৭.০ থেকে ৮.০ টনে উন্নীত করা সম্ভব। জাত সংগ্রহ ও বাছাইকরণের মাধ্যমে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট বেশ কয়েকটি উন্নতজাতের ভুট্টার জাত উদ্ভাবন করেছে। জাতগুলো হলো- বর্ণালী, শুভ্রা, খই ভুট্টা, মোহর, বারি ভুট্টা-৫, বারি ভুট্টা-৬, বারি হাইব্রিড ভুট্টা-১ ইত্যাদি। এছাড়াও দেশে বিভিন্ন কৃষি উপকরণ বিপণন কোম্পানি বেশ কয়েকটি হাইব্রিড জাতের ভুট্টার বীজ কৃষকদের মধ্যে বিক্রি করছে। এসব হাইব্রিড জাতের ভুট্টা চাষ করেও চাষিরা ভালো ফলন পাচ্ছেন। হাইব্রিড জাতগুলো হলো- সানশাইন, এনকে-৪০, এনএমএইচ-৯০৯, প্যাসিফিক-৯৯৯, প্যাসিফিক-৯৮৪, প্যাসিফিক-২২৪, প্যাসিফিক-৫৫৫, মধু-২, মধু-৩, ৯০০ এমগোল্ড, সুপারগোল্ড ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

বর্ণালী : বর্ণালীর দানার রঙ সোনালি হলদে এবং দানার আকার বেশ বড়। হাজারদানার ওজন ২৪৫.৩০ গ্রাম। এ জাতটি রবি মৌসুমে ১৪০ থেকে ১৪৫ দিনে পরিপক্বতা লাভ করে। রবি মৌসুমে প্রতি হেক্টরে ফলন প্রায় ৫.৫ থেকে ৬.০ টন।

শুভ্রা : শুভ্রার দানা আকারে বড় এবং সম্পূর্ণ মোচা দানায় ভর্তি থাকে। হাজার দানার ওজন ৩১০ থেকে ৩৩০ গ্রাম। রবি মৌসুমে আবাদ করলে জাতটি ১৩৫ থেকে ১৪৫ দিনে পাকে। রবি মৌসুমে ফলন হেক্টরপ্রতি ৪.০-৫.৫ টন। দানার রঙ সাদা বলে গমের আটার সঙ্গে মিশিয়ে রুটি করা যায়।

খই ভুট্টা :  খই ভুট্টা রবি মৌসুমে ১২৫ থেকে ১৩০ দিনে পাকে। রবি মৌসুমে হেক্টরপ্রতি ফলন ৩.৫ থেকে ৪.০ টন। এ ভুট্টার দানা থেকে শতকরা ৯০ থেকে ৯৫ ভাগ খই পাওয়া যায়। খই আকারে বেশ বড় এবং সুস্বাদু।

বারি ভুট্টা-৫ ও বারি ভুট্টা-৬ : জাত দুটি ১৯৮৮ সালে চাষাবাদের জন্য অনুমোদন লাভ করে। রবি মৌসুমে জীবনকাল প্রায় ১৪০ থেকে ১৫০ দিন। হাজার দানার ওজন ৩০০ থেকে ৩২০ গ্রাম। রবি মৌসুমে হেক্টরপ্রতি ফলন ৫৫.৫-৬.০ টন।

বারি হাইব্রিড ভুট্টা-১ : থাইল্যান্ড থেকে সংগৃহীত বাছাইয়ের মাধ্যমে বারি কর্তৃক উদ্ভাবিত একটি উচ্চ ফলনশীল হাইব্রিড জাত। জাতটি বাংলাদেশের আবহাওয়ায় উৎপাদন উপযোগী। রবি মৌসুমে জীবনকাল ১৩৫ থেকে ১৪০ দিন। জাতটির দানা বেশ বড় ও রঙ হলুদ। হাজার দানার ওজন ৫৭০ থেকে ৫৮০ গ্রাম। রবি মৌসুমে হেক্টরপ্রতি ফলন ৮.০-৮.৫ টন।

মাটি : যেসব বেলে-দোআঁশ, এটেল-দোআঁশ ও দোআঁশ মাটিতে পানি জমে না সেসব মাটি ভুট্টা চাষের জন্য উপযোগী।

বপনের সময় : বাংলাদেশে রবি মৌসুমে অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত ভুট্টা চাষ করা যায়।

বীজ বপন হার ও বপন পদ্ধতি : শুভ্রা, বর্ণালী ও মোহর জাতের ভুট্টা হেক্টরপ্রতি ২৫ থেকে ৩০ কেজি এবং খই ভুট্টার জন্য ১৫ থেকে ২০ কেজি বীজ বুনতে হয়। বীজ সারিতে বুনতে হবে। সারি থেকে সারির দূরত্ব হবে ৭৫ সেন্টিমিটার। সারিতে ২৫ সেন্টিমিটার দূরত্বে একটি গাছ রাখতে হবে।

সারের পরিমাণ : রবি মৌসুমে ভুট্টা চাষের জন্য হেক্টরপ্রতি গোবর ৫ টন, ১৭২ কেজি ইউরিয়া, ১৬৮ কেজি টিএসপি, ৯৬ কেজি এমওপি, ১৪৪ কেজি জিপসাম, ১০ কেজি জিঙ্ক সালফেট, ৫ কেজি বরিক এসিড সারের প্রয়োজন হয়।

পোকা ও রোগ দমন : চারার ২ থেকে ৪ পাতা অবস্থায় কাটই পোকা কচি গাছের গোড়া কেটে দেয়। এ পোকা দমনের জন্য প্রতি লিটার পানিতে ২.৫ মিলিমিটার ডারসবান/পাইরিফস মিশিয়ে গাছের গোড়ায় স্প্রে করতে হবে। এছাড়া চারা অবস্থায় মাজরা পোকার আক্রমণ দেখা দিলে প্রতি লিটার পানিতে ২.৫ মিলিমিটার হারে সুমিথিন মিশিয়ে স্প্রে করে এ পোকা দমনের ব্যবস্থা নিতে হবে। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে ভুট্টার জমিতে তেমন কোনো মারাত্মক রোগ দেখা যায়নি। ভুট্টার প্রধান প্রধান রোগগুলো হলোÑ পাতায় দাগ, পাতা ঝলসে যাওয়া, খোল পচা ইত্যাদি। এসব রোগ দমনের জন্য প্রতি ১০ লিটার পানিতে ৫ মিলিমিটার হারে টিল্ট মিশিয়ে পরপর দু’বার স্প্রে করতে হবে। অনেক সময় ভুট্টার শিকড়ে নেমাটোডের আক্রমণ হলে গুচ্ছ মাথা অথবা খর্বাকৃতি গাছের লক্ষণ দেখা দেয়। এক্ষেত্রে আক্রান্ত গাছ শিকড়সহ তুলে ফেলতে হবে এবং ভুট্টা গাছের গোড়ায় হেক্টরপ্রতি ১৫ কেজি হারে কার্বোফুরান-৫জি প্রয়োগ করে মাটি দিয়ে ঢেকে দিতে হবে এবং এ সময় জমিতে জো থাকতে হবে, না থাকলে সেচ দিতে হবে।

ভুট্টা সংগ্রহ : দানার জন্য ভুট্টা সংগ্রহের ক্ষেত্রে মোচা চকচকে খড়ের রঙ ধারণ করলে এবং পাতা কিছুটা হলদে হলেই বা ভুট্টা গাছের মোচা ৭৫ থেকে ৮০ শতাংশ পরিপক্ব হলে গাছ থেকে ভুট্টার মোচা সংগ্রহ করতে হবে। তারপর মোচা থেকে শেলার মেশিনের মাধ্যমে দানা সংগ্রহ করে রোদে শুকিয়ে ও ঝেড়ে অল্প সময়ের মধ্যে ছালা/পলিথিন ব্যাগে সংরক্ষণ করতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ