• সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৩৯ অপরাহ্ন |

খোঁজ মেলেনি হারিয়ে যাওয়া মালয়েশিয়ান বিমানটির

Bimanআন্তর্জাতিক ডেস্ক: ১০টি দেশের ৩৪টি বিমান, ৪০টি জাহাজ, অত্যাধুনিক রাডার-প্রযুক্তি এবং ডুবুরিদল নিরলসভাবে অনুসন্ধানকার্যক্রম চালিয়ে গেলেও অদৃশ্য হওয়ার তিন দিন পরও মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের বিমানটির কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বিমানটি ঘিরে রহস্য বাড়ছে। কোনো ধরনের চিহ্ন না রেখে বিমানটির এভাবে লাপাত্তা হয়ে যাওয়াটা বিশেষজ্ঞদের কাছে অবিশ্বাস্য মনে হচ্ছে। কেউ কেউ মনে করছেন, আকাশে বিধ্বস্ত হয়ে টুকরা টুকরা হয়ে যাওয়ায় সেটির সন্ধান মিলছে না। কারো মতে, বিমানটিকে হাইজ্যাক করা হয়েছে। কিন্তু যা-ই ঘটুক না কেন, কোনো না কোনো আলামত পাওয়া যাওয়ার কথা। সেটাই পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে প্রতীক্ষা বাড়ছে। খবর সিএনএন, বিবিসি, আলজাজিরা ও অন্যান্য সংবাদমাধ্যমের।
সম্ভাব্য দুর্ঘটনাকবলিত পুরো এলাকা চষে ফেলা হয়েছে। মার্কিন নৌবহরের পি-৩সি ওরিয়ান পর্যবেক্ষণ বিমান, পিঙ্কনে ডেস্ট্রয়ার, দু’টি এমএইচ-৬০আর শিক হেলিকপ্টার বিমানও উদ্ধারকাজে অংশ নিচ্ছে। রাতের বেলায় ইনফারেড প্রযুক্তিও ব্যবহার করা হচ্ছে। কিন্তু তবুও অদৃশ্য হয়ে যাওয়া বিমানটির একটা খড়কুটার সন্ধানও পাওয়া যায়নি। কেন পাওয়া যাচ্ছে না, সে সম্পর্কে কোনো যুক্তিসঙ্গত ব্যাখ্যা কেউ দিতে পারছেন না। মার্কিন সপ্তম নৌবহরের মুখপাত্র কমান্ডার উইলিয়াম মার্কস এক ইমেইল বার্তায় বলেন, ‘আমাদের পি-৩সি বিমান পানিতে ছোট্ট কোনো বস্তুও স্পষ্টভাবে শনাক্ত করতে সক্ষম। কিন্তু এখন পর্যন্ত আবর্জনা বা কাঠ ছাড়া কিছুই দেখেনি।’ যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা উপগ্রহেও বিস্ফোরণের কোনো ঘটনা ধরা পড়েনি।
তবে উদ্ধারকারীরা এখনো আশা ছাড়েননি। সামান্য কোনো বস্তু পাওয়া গেলেও সেখানে ছুটে যাচ্ছেন তারা। তাদের বেপরোয়া প্রয়াস সত্ত্বেও কাক্সিত কোনো সাফল্য আসেনি।
যে স্থানে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে, সেখানে পাওয়া ছয় থেকে নয় মাইল দীর্ঘ তেলের স্তর নিয়েও গবেষণা হয়েছে। ল্যাব-পরীক্ষায় দেখা গেছে, ওই তেল অদৃশ্য হওয়া বিমানের নয়।
বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, হঠাৎ কোনো বড় ধরনের বিস্ফোরণ বা ইঞ্জিন বিকলের কারণে বিমানটি টুকরা টুকরা হয়ে থাকতে পারে। তবে মালয়েশিয়া বিমানবাহিনী প্রধান বলেছেন, রাডার চিত্র দেখে মনে হচ্ছে, বিমানটি অদৃশ্য হয়ে যাওয়ার আগে হয়তো ফিরে আসতে চেয়েছিল।
মালয়েশিয়ান বেসামরিক বিমান চলাচল বিভাগের মহাপরিচালক আজহারউদ্দিন আবদুল রহমান গতকাল সোমবার সাংবাদিকদের বলেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা বিমানটিও নয়, এটির কোনো অংশের সন্ধানও পাইনি।’
২৩৯ যাত্রী নিয়ে মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের এমএইচ৩৭০ ফাইট শনিবার বেইজিংয়ের উদ্দেশে কুয়ালালামপুর থেকে উড্ডয়নের ঘণ্টাখানেক পর মালয়েশিয়া ও ভিয়েতনাম এলাকার মাঝামাঝি থেকে অদৃশ্য হয়ে যায়।
এক সিনিয়র কর্মকর্তা সোমবার বলেন, মালয়েশিয়ান বিমানটির অদৃশ্য হয়ে যাওয়াটা ‘বিমান চলাচল ইতিহাসে নজিরবিহীন রহস্য।’
আজহারউদ্দিন আবদুল রহমান বলেন, বিমানটির অবস্থা নিয়ে সব তত্ত্বই বিবেচনায় আনা হয়েছে। ফলে এটি হাইজ্যাক হওয়ার আশঙ্কাও নাকচ করা হচ্ছে না।
ভিয়েতনামি হেলিকপ্টার থেকে ওই এলাকায় হলুদ কিছু দেখতে পাওয়া সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আমরা এখনো এমন কিছু পাইনি, যা থেকে মনে হতে পারে যে সেটি ওই বিমানটি থেকে আসা বস্তু। আমাদেরকে বিমানটি বা এর কিছু অংশ খুঁজে পেতেই হবে।’ তিনি জানান, ভিয়েতনামি হেলিকপ্টার থেকে যে বস্তুটির ছবি পাওয়া গেছে, সেটি সম্ভবত কোনো লাইফবোটের ছবি। আর সেটা নিখোঁজ বিমানের নয় জানানো হয়েছে।
তিনি জানান, বিমানটি যদি বোমা বা অন্য কোনোভাবে মধ্য আকাশে বিস্ফোরিত হয়ে থাকে, তবে সেটার কিছু টুকরা অন্তত পাওয়া যাওয়ার কথা।
মালয়েশিয়ার তদন্তকার্যক্রমের সাথে জড়িত এক সিনিয়র কর্মকর্তা বলেন, বিমানটি ৩৫ হাজার ফুট উঁচুতে ভেঙে পড়ায় বিশাল এলাকায় ধ্বংসাবশেষ পড়েছে। আর এ কারণে কোনো ধ্বংসাবশেষ পাওয়া যাচ্ছে না।
বোমা বা অন্য কোনো ধরনের বিস্ফোরণ সম্পর্কে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত এ ধরনের কোনো কিছুর নিশ্চয়তা পাওয়া যায়নি। বিমানটি কারিগরি কারণেও বিধ্বস্ত হয়ে থাকতে পারে।
তিনি উদাহরণ হিসেবে ১৯৮৫ সালে এয়ার ইন্ডিয়ার বিমান এবং ১৯৮৮ সালে লকারবি বিমান দুর্ঘটনার কথা উল্লেখ করেন। উভয় বিমানই প্রায় ৩১ হাজার ফুট উঁচুতে বিস্ফোরিত হয়েছিল।
সন্দেহজনক দুই যাত্রীর চেহারা এশীয়দের মতো : মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, চুরি করা পাসপোর্ট নিয়ে যে দু’জন যাত্রী নিখোঁজ বিমানের যাত্রী হয়েছিলেন তাদের চেহারা এশীয়দের মতো। পাসপোর্ট দু’টি চুরি হয়েছিল থাইল্যান্ডে। তবে ওই পাসপোর্ট নিয়ে কারো বৈধভাবে মালয়েশিয়ায় আসার কোনো তথ্য নেই। ফলে ধারণা করা হচ্ছে, ওই পাসপোর্ট ব্যবহারকারীরা অবৈধ পথে মালয়েশিয়ায় গিয়েছিলেন।
রোববার মালয়েশিয়ার জাতীয় বার্তা সংস্থা বারনামা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জাহিদ হামিদির উদ্ধৃতি দিয়ে বলেছে, ‘আমি খুবই আশ্চর্য হচ্ছি অভিবাসন কর্মকর্তারা কেন চিন্তা করলেন না ইতালীয় ও অস্ট্রীয় কী করে এশীয়দের মতো হয়।’
তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমরা অভ্যন্তরীণ তদন্ত চালাব। বিশেষ করে এমএইচ৩৭০ ফাইট কাউন্টারে ওই সময়ে যেসব কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করেছেন তাদের বিষয়ে খতিয়ে দেখা হবে।
চুরি করা পাসপোর্টধারী দু’জন একই সাথে টিকিট কেনেন এবং তাদের উদ্দেশ্য ছিল বেইজিং থেকে ইউরোপ যাওয়া। আর ভুয়া পাসপোর্ট নিয়ে দুই ব্যক্তির বিমানে চড়ার সুযোগ পাওয়াকে উদ্বেগজনক বলেও মনে করছেন ইন্টারপোলের মহাসচিব রোনাল্ড নোবেল।
এ দুই ভুয়া যাত্রীর খবর জানার পর বোমা মেরে বিমানটি উড়িয়ে দেয়ারও সন্দেহ করছেন অনেকে।
এ দুই যাত্রী যে দু’জনের পাসপোর্ট ব্যবহার করেছিলেন তারা হলেন অস্ট্রিয়ার নাগরিক ক্রিস্টিয়ান কোজল এবং ইতালির লুইজি মারাদলদি। মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের দেয়া যাত্রী তালিকায় এ দু’জনের নাম ছিল। কিন্তু এ দু’জনের কেউ বিমানে ছিলেন না। তারা যার যার দেশেই অবস্থান করছেন। দেশ দু’টির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, উভয়ের পাসপোর্ট দুই বছর আগে থাইল্যান্ডে হারিয়ে গিয়েছিল।
৫ যাত্রী নিয়ে সন্দেহ : নানা সম্ভাবনা খতিয়ে দেখতে গিয়ে যে পাঁচ যাত্রী চেক ইন করলেও বিমানে প্রবেশ করেনি, তাদের দিকে এখন নজর নিবদ্ধ হয়েছে। ওই যাত্রীদের ব্যাগ বিমানে ওঠানো হলেও তারা তাতে ওঠেনি। ফলে তাদের ব্যাগেই কোনো বিস্ফোরক থাকতে পারে বলে সন্দেহের সৃষ্টি হয়েছে।
অনিশ্চয়তায় স্বজনেরা : বিমানটির কোনো সন্ধান পাওয়া না যাওয়ায় স্বজনেরাও রয়েছেন অনিশ্চয়তায়। তারা বুঝতে পারছেন না কী করবেন । আশা ফিকে হয়ে এলেও তারা কিন্তু এখনো অপেক্ষা করছেন, প্রিয়জনেরা ফিরে আসবেন। অবশ্য তারা নির্মম খবরটি শোনার জন্যও নিজেদের প্রস্তুত করে নিয়েছেন।
আকাশেই বিমান সবচেয়ে নিরাপদ : মালয়েশিয়ান বিমানটি আকাশ থেকে হঠাৎ অদৃশ্য হয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত তাতে বোমা বা অন্য কোনো কারণে বিস্ফোরণ ঘটার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তাহলে কি বিমানের অভ্যন্তরীণ কোনো ত্রুটির কারণে এমনটা ঘটেছে? বিশেষজ্ঞদের একটি বড় অংশ সেটাও গ্রহণ করতে পারছেন না। কারণ বিমান সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ থাকে উড্ডয়নের সময় বা অবতরণের সময়। আকাশেই বিমান থাকে সবচেয়ে নিরাপদ। অথচ মালয়েশিয়ান বিমানটি সাগর থেকে প্রায় ৩৫ হাজার ফুট (১১ কিলোমিটার) উঁচু থেকে ‘গায়েব’ হয়ে গেছে। বিমান বিশেষজ্ঞ ডি ল্যাবিজনের মতে, উড্ডয়নে এটাই সবচেয়ে নিরাপদ পয়েন্ট। তা ছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে এটা অন্য কোনো ধরনের দুর্ঘটনায় পড়েছিল এমন রেকর্ডও নেই। এই বিমানটি সবচেয়ে নিরাপদ বিমানের একটি ছিল।
তা ছাড়া বিমানের কোনো যন্ত্রাংশ বিকল হয়ে গেলে পাইলট বিমানবন্দরে বার্তা পাঠাতে পারেন। কিন্তু এই বিমান থেকে কোনো বার্তা কোথাও যায়নি।
বলা হচ্ছে, বিমানটি আকাশে বিস্ফোরিত হওয়ায় বিশাল এলাকাজুড়ে ধ্বংসাবশেষ ছড়িয়ে পড়েছিল। এ কারণে কিছুই পাওয়া যাচ্ছে না। কিন্তু অনেকে বলছেন, বিশাল এলাকায় ধ্বংসাবশেষ ছড়িয়ে পড়লে বরং কোনো না কোনো টুকরা পাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ